চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

রামগড়ে কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে শ্রমিক খুন

রামগড় সংবাদদাতা

১৩ জুন, ২০২৪ | ৩:৩৩ অপরাহ্ণ

খাগড়াছড়ির রামগড়ে কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে মো. আবু মিয়া (৫৬) নামে এক শ্রমিককে খুনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের পুরাতন ডাকবাংলো আনসার ক্যাম্পের পাশের এলাকা থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

 

পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে রামগড় পাহাড়ঞ্চল কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের পুরাতন ডাকবাংলো আনসার ক্যাম্পের পাশের এলাকা থেকে আবু মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতের মাথার বামপাশে কানের উপরে লোহার অ্যাঙ্গেলের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মরদেহের পাশ থেকে লোহার অ্যাঙ্গেলটি আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে। লোহার অ্যাঙ্গেলের আঘাতে আবু মিয়ার মৃত্যু হয়েছে।

 

নিহতের ছোট ছেলে মো. হানিফ জানান, গতকাল বুধবার সকাল ৯টার দিকে রামগড়ের নুরপুর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে তার বাবা কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে ডিউটির উদ্দেশ্যে বের হন। দুপুরের খাবার খেতে বাসায় না আসায় তার মা দুপুর ২টার দিকে মোবাইলে কল করলে ফোন বন্ধ পান। পরে একাধিকবার কল দিলেও সংযোগ পাওয়া যায়নি। রাতেও বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের লোকজন বেশ খোঁজাখুজি করেও তার কোন সন্ধান পায়নি।

 

মো. হানিফ আরও বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের এক স্টাফের ফোন পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে এসে বাবার মরদেহ দেখতে পান।

 

মো. হানিফ বলেন, তার বাবার সাথে কারও কোন বিরোধ বা শত্রুতা ছিল না। কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের যেখানে মরদেহ পাওয়া যায় ওই ন্থানটি স্থানীয় বখাটে ও মাদকাসক্ত তরুণ-যুবকদের আড্ডাস্থল। নেশাখোরদের বাধা দেয়ার কারণে তারা বাবাকে খুন করেছে কি না বলতে পারছিনা।

 

রামগড় পাহাড়াঞ্চল কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. ফয়সাল বলেন, নিহত আবু মিয়া তাদের নিয়মিত শ্রমিক। ডিউটিরত অবস্থায় কে বা কারা তাকে হত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার সকালে শ্রমিকরা কাজ করতে গেলে তার মরদেহ দেখতে পায়। পরে থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

 

রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনির হোসেন বলেন, খবর পেয়ে সকাল ৯টার দিকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তিনি বলেন, লোহার অ্যাঙ্গেলের টুকরা দিয়ে মাথায় আঘাত করে তাকে হত্যা করা হয়। আলামত হিসেবে অ্যাঙ্গেলটিও ঘটনান্থল থেকে জব্দ করা হয়েছে।

 

নিহতের ছেলে মো. হানিফ বাদী হয়ে মামলা করবেন। মামলা রুজুর প্রস্তুতি চলছে। ময়নাতদন্তর জন্য মরদেহ খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারে পুলিশ তৎপরতা শুরু করেছে বলেও জানান ওসি।

পূর্বকোণ/পিআর/এএইচ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট