চট্টগ্রাম সোমবার, ২২ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

টেকনাফে রোহিঙ্গা ডাকাতের গুলিতে আহত রাখালের মৃত্যু

টেকনাফ সংবাদদাতা

২৯ আগস্ট, ২০২৩ | ১১:৩৬ অপরাহ্ণ

কক্সবাজারের টেকনাফের লেদা পাহাড়ে গরু চড়াতে গিয়ে রোহিঙ্গা ডাকাতের গুলিতে আহত রাখাল জাফর আলম (১৭) মারা গেছেন।

 

মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

 

নিহত রাখালের ছোট ভাই মো. দেলোয়ার হোসেন ও হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

 

নিহত জাফর আলম টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের দক্ষিণ আলীখালি এলাকার মৃত জালাল আহমদের ছেলে। গত শনিবার (২৬ আগস্ট) সকালে হ্নীলা ইউনিয়নের লেদার মুচনী রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবিরের পশ্চিমের পাহাড়ে গরু চড়াতে গিয়ে তিনি গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন।

 

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও নিহত কিশোরের স্বজনেরা জানান, পাহাড়ে রোহিঙ্গা ডাকাতদের আস্তানা দেখে ফেলায় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী কামালের দলের সদস্যরা জাফরকে গুলি করেন। গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর তাকে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়।

 

নিহত কিশোরের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতিদিনের মতো গত শনিবার সকালে গরু নিয়ে পাহাড়ে যান জাফর। যেতে যেতে তিনি রোহিঙ্গা ডাকাত কামালের দলের আস্তানার কাছাকাছি পৌঁছান। এ সময় তার গরু ছিনিয়ে নিতে ছয়-সাতজন চেষ্টা চালান। একপর্যায়ে জাফরকে লক্ষ্য করে তারা গুলি করেন। গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনি কোনোমতে দৌড়ে পালিয়ে আসেন। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবির-সংলগ্ন একটি হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

 

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা আশেকুর রহমান জানান, জাফরের পেটে গুলি লেগেছিল। প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল।

 

এ ব্যাপারে টেকনাফ মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন মজুমদার জানান, গুলিবিদ্ধ রাখাল জাফর আলম মারা যাওয়ার খবরটি স্বজনদের মাধ্যমে তারা জানতে পেরেছেন। ময়নাতদন্ত শেষে লাশটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

পূর্বকোণ/কাশেম/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট