চট্টগ্রাম রবিবার, ২১ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

বোয়ালখালীতে পতিত জমিতে পেঁপে চাষে বাজিমাত

পূজন সেন, বোয়ালখালী

১৪ জুলাই, ২০২৩ | ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ

বোয়ালখালীর শ্রীপুর-খরণদ্বীপ ইউনিয়নের বাসিন্দা এনামুল হক। বাড়ির পাশে রয়েছে ছোটখাটো মুদি দোকান। দিনে ২-৩ হাজার টাকার ব্যবসা হয়। তাই ব্যবসা করেও আর্থিক সচ্ছলতা ফেরাতে পারেনি। সচ্ছলতা ফেরাতে বর্গা জমিতে শুরু করেন কৃষিকাজ। কৃষিকাজে হাত দিয়েই বাজিমাত করেন নিজের ভাগ্য।

 

এনামুল হক জানান, মুদি দোকানে সারাদিন ২-৩ হাজার টাকার বেচাকেনা হয়। আর দিনের বেশির ভাগ সময় অলস বসে থাকতে হয়। জীবনের সময় নষ্ট না করার লক্ষ্যে বিকল্প আয়ের চিন্তা করা হয়। পরিকল্পনা মতে তিন একর পতিত জমি বর্গা নিয়ে সবজি চাষ শুরু করি। তাতে মরিচ, বেগুন, টমেটো চাষ করা হয়। স্থানীয় বাজারে এসব সবজি বিক্রি করে ভালো লাভবান হন তিনি। এরপর সাথী ফসল হিসেবে কৃষি বিভাগের পরামর্শে পেঁপে বাগান শুরু করেন। ১৭শ গাছ রোপণ করা হয়। এখন গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে কাঁচা-পাকা পেঁপে। সবুজে হাসছে তার বাগান।

 

এনামুল আরও জানান, চলতি বছরের মার্চ মাসে কৃষি অফিস ৪০০ চারা দেয়। খরণদ্বীপের বনখালী খালের পাশে বাগান গড়ে তোলা হয়। বাকি চারা তিনি কিনে লাগিয়েছেন। এতে ব্যয় হয় প্রায় ৮ লাখ টাকা। প্রথমে ৮ জন কর্মচারী ছিল। এখন প্রতিদিন কাঁচা পেঁপে বিক্রি করছেন ৩০ টাকা কেজি দরে। বাগানের পেঁপে বিক্রি করে ২৫ লাখ টাকা আয়ের আশা করছেন তিনি।

 

তিনি বলেন, ‘অনেকেই আমাদের বাগানে আসছেন। বাগান দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে অনেকেই পেঁপে চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন। পরামর্শ নিচ্ছেন।’

 

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সৌমিত্র দে বলেন, ‘এনামুলের বাগানে দুই জাতের পেঁপে গাছ রয়েছে। গ্রিন লেডি ও দেশীয় শাহী জাতের। এসব গাছ থেকে বছরে দুইবার ফলন পাওয়া যায়। পরবর্তী সময়েও ফলন দেবে। তবে ফলন কম হবে।

 

পেঁপে গাছে সাধারণত মোজাইক ভাইরাস, মিলিবাগের আক্রমণ বেশি হয় বলে জানান কৃষি কর্মকর্তা সৌমিত্র দে। তাই সবসময় যত্ন পরিচর্যা করতে হয়। গত সপ্তাহ থেকে পেঁপে সংগ্রহ ও বিক্রি করতে শুরু করেছেন বলে জানান এনামুল। ইতিমধ্যে ২০ মণ পেঁপে বিক্রি করেছেন।

 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আতিক উল্লাহ বলেন, ‘পেঁপে চাষের জন্য এখানকার আবহাওয়া ও মাটি বেশ উপযোগী। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে কয়েকটি বড় পেঁপে বাগান গড়ে উঠেছে। কাঁচা ও পাকা পেঁপের ভালো চাহিদা রয়েছে। নিয়মিত পরিচর্যায় রোগ প্রতিরোধের ব্যবস্থা করতে পারলে ভালো লাভবান হওয়া যায়। তাই চাষিরা পেঁপে বাগান করায় উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন।

পূর্বকোণ/মাহমুদ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট