চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

শিপিং খরচ বেড়ে যাওয়ায় বৈশ্বিক বাণিজ্য সংকট

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক

১০ জুলাই, ২০২৪ | ১১:০৭ পূর্বাহ্ণ

বৈশ্বিক বাণিজ্যের জন্য লোহিত সাগরের শিপিং রুটের তাৎপর্য অপরিসীম। তবে এখন ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে, ইয়েমেনের হুথি মিলিশিয়ারা এই অঞ্চলের জাহাজগুলিতে আক্রমণ করছে, জাহাজ মালিক বা অপারেটরদের সঙ্গে ইসরাইলের সম্পর্কের জন্য। গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরাইলি নাগরিকদের ‘গণহত্যার’ পর গাজার সশস্ত্র হামাস যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে ইসরাইল তাদের যুদ্ধ অব্যাহত রেখেছে। এমন সময়ে হুথিরা এই হামলা চালাচ্ছে। উদাহরণস্বরূপ, ২০ জুন হুথিরা, যারা বলে যে তারা ফিলিস্তিনের জন্য লড়াই করছে, তারা একটি ড্রোন হামলার মাধ্যমে একটি কয়লা জাহাজ ডুবিয়ে দেয়। হুথি হামলার প্রতিক্রিয়ায়, মার্কিন এবং ব্রিটিশ সামরিক জাহাজগুলি গত কয়েক মাস ধরে ইয়েমেনে মিলিশিয়া অবস্থানগুলিকে বারবার লক্ষ্যবস্তু করেছে। উপরন্তু, দুটি আন্তর্জাতিক জোটের যুদ্ধজাহাজ ইয়েমেনি উপক‚লে সামুদ্রিক যানবাহন নিরাপদ করতে এই অঞ্চলে কাজ করছে। জার্মান নৌবাহিনী, এই ইইউ নৌ মিশন Aspides এর অংশ।

 

শিপিং খরচ আবার বাড়ছে : অক্টোবরে ইসরাইল-হামাস যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে বৈশ্বিক বাণিজ্য ব্যাপক চাপের মধ্যে রয়েছে। লোহিত সাগরে দ্বন্দ্বের অর্থ হল মালবহনের খরচ বৃদ্ধি এবং বাণিজ্য পণ্যের বীমা করার জন্য ব্যয় বৃদ্ধি। লোহিত সাগরে জাহাজ বিধস্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ায় জাহাজ মালিকরা উচ্চ বীমা প্রিমিয়ামের মুখোমুখি হন। অধিকন্তু, নিরাপত্তার কারণে সুয়েজ খাল এড়াতে এবং এর পরিবর্তে কেপ অফ গুড হোপের চারপাশে নেভিগেট করার পদক্ষেপগুলি ভ্রমণের সময়কে ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি করেছে এবং উল্লেখযোগ্যভাবে জ্বালানি খরচ বেড়েছে।

 

ড্রেউরি ওয়ার্ল্ড কন্টেইনার ইনডেক্স, যা মালবাহী বাজারের উপর নজরদারি করে, রিপোর্ট করেছে যে শুধুমাত্র জুনের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে একটি ৪০-ফুট স্ট্যান্ডার্ড কনটেইনারের জন্য শিপিংয়ের দাম ৭% বেড়েছে – এক বছর আগের একই সময়ের তুলনায় ২৩৩% বেশি।

 

নিরাপদ রুটের খোঁজ : লন্ডন ভিত্তিক আর্থিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ক্যাপিটাল ইকোনমিক্সের বিশ্লেষক সাইমন ম্যাক অ্যাডাম বলেছেন, ‘শিপিং কোম্পানিগুলোকে আরও নমনীয় হতে বাধ্য করা হচ্ছে। সুয়েজ খাল ব্যবহারের সীমাবদ্ধতা বিবেচনা করে জাহাজের মালিকরা পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছেন। আমদানিকারকরা বর্তমানে তাদের সারা বছর ধরে পর্যাপ্ত পণ্য মজুদ আছে তা নিশ্চিত করার জন্য অর্ডারগুলি বাড়াচ্ছেন। কিন্তু কেপ অফ গুড হোপের চারপাশে জাহাজগুলিকে পুনরায় রুট করা হলে আরও দাম বৃদ্ধির সম্ভাবনা বেশি।’

 

আরো জাহাজ প্রয়োজন : ইউনাইটেড নেশনস কনফারেন্স অন ট্রেড এন্ড ডেভেলপমেন্টের (টঘঈঞঅউ) একজন বাণিজ্য বিশেষজ্ঞ জ্যান হফম্যানও আফ্রিকার চারপাশে দীর্ঘ ভ্রমণের সময়কে ক্রমবর্ধমান খরচ বৃদ্ধির জন্য দায়ী করেছেন। তিনি উড কে বলেছেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকার আশেপাশে ঘুরতে গেলে সরবরাহ বজায় রাখতে আরও জাহাজের প্রয়োজন হয়। ২০২৪ সালে একটি কন্টেইনারের জন্য গড় ভ্রমণ দূরত্ব ২০২২ সালের তুলনায় ৯% বেড়েছে।’ হফম্যানের মতে, যেহেতু জাহাজগুলি সমুদ্রে বেশি সময় ব্যয় করে, তাই আরও শিপিং স্পেস প্রয়োজন। তার মানে শিপিং কোম্পানিগুলোকে চার্টার করতে হবে বা আরও জাহাজ কিনতে হবে এবং আরও বেশি কর্মী নিয়োগ করতে হবে। যেহেতু এই জাহাজগুলি এখনও বিদ্যমান নেই, মাল বহনের দাম বাড়বে।’

 

ফম্যান দীর্ঘ শিপিং রুটের আরেকটি অনাকাক্সিক্ষত পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়ার দিকেও ইঙ্গিত করেছেন: ক্রমবর্ধমান গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন। জাহাজগুলি তাদের গতি বাড়িয়েছে, যার ফলে নির্গমন বৃদ্ধি পেয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, সিঙ্গাপুর-রটারডাম রুটে নির্গমন ৭০% বেড়েছে।”

 

মধ্য আমেরিকায় সমস্যা : হফম্যান বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে নিরাপত্তার উদ্বেগ ছাড়াও, পানামা খালে পানির নিম্ন স্তরের কারণে বৈশ্বিক বাণিজ্যও ব্যাহত হচ্ছে। তার মানে পানি পথ পুরোপুরি কাজে লাগানো যাচ্ছে না। ফলস্বরূপ, মার্কিন শিপারদের পশ্চিম উপকূলের বন্দরগুলি থেকে মার্কিন পূর্ব উপকূলে থাকা বন্দরগুলিতে রেল বা সড়কের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পণ্য পরিবহন করতে হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে গম বা তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) এর মতো বাল্ক পণ্য পরিবহন অর্থনৈতিকভাবে সমস্যার বিষয়। দক্ষিণ আমেরিকার দক্ষিণ প্রান্তে কেপ হর্নের চারপাশে খুব দীর্ঘ এবং বিপজ্জনক পথ অতিক্রম করা ছাড়া তাই শিপারদের সামনে আর কোনও বিকল্প নেই। কিন্তু সাইমন ম্যাকঅ্যাডাম ক্ষীণ আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন। তিনি ডিডব্লিউকে বলেন, ‘পানামা খালের পানির স্তর সাম্প্রতিক মাসগুলিতে কিছুটা পুনরুদ্ধার হয়েছে এবং লা নিনা আবহাওয়ার কারণে শীঘ্রই পরিস্থিতি আরও স্বাভাবিক হতে পারে।’ ম্যাকঅ্যাডাম যোগ করেছেন, পানামা খালে পানির স্তরের সামান্য বৃদ্ধি ইতিমধ্যেই সেখানে মাল পরিবহন বাড়িয়েছে।

 

বাড়বে বৈশ্বিক শিপিং সংকট : ব্লুমবার্গের মতে, আফ্রিকার চারপাশে লোহিত সাগরের প্রায় ৭০% বাণিজ্য পুনরুদ্ধার করার চেষ্টা চলছে। সাইমন ম্যাক অ্যাডাম বিশ্বাস করেন যে, একটি দীর্ঘায়িত সঙ্কট শিপিং কোম্পানিগুলিকে বিপদে ফেলবে এবং উল্লেখযোগ্যভাবে মালবহনের খরচ বাড়িয়ে তুলবে। ক্যাপিটাল ইকোনমিক্স বিশেষজ্ঞ ডিডব্লিউকে বলেন, জাহাজ তৈরি করতে অনেক বছর সময় লাগে, এবং ৯০% নতুন কন্টেইনার চীনে তৈরি হয়। রাতারাতি জাহাজ তৈরি করা সম্ভব না। তাই এই শিল্পে সংকট আরো বাড়তে পারে।’

পূর্বকোণ/এসএ

শেয়ার করুন