চট্টগ্রাম শনিবার, ২০ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

কারামুক্ত হয়ে যুক্তরাজ্য ছাড়লেন জুলিয়ান এসাঞ্জ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২৫ জুন, ২০২৪ | ১:০৮ অপরাহ্ণ

দীর্ঘ কয়েক বছরের আইনি লড়াইয়ের পর সোমবার (২৪ জুন) কারামুক্ত হয়েছেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান এসাঞ্জ। তিনি যুক্তরাজ্য ছেড়েছেন। এক এক্স বার্তায় উইকিলিকস এ তথ্য জানিয়েছে।

 

বলা হয়েছে, মার্কিন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এসাঞ্জ সমঝোতা চুক্তিতে পৌঁছেছেন। ফৌজদারি অপরাধের দোষ স্বীকার করায় এসাঞ্জকে কারামুক্ত করা হয়েছে।

 

অস্ট্রেলিয়ায় জন্মগ্রহণ করা ৫২ বছর বয়সী এসাঞ্জের বিরুদ্ধে জাতীয় প্রতিরক্ষাসংক্রান্ত তথ্য ফাঁসের ষড়যন্ত্র করার অভিযোগ এনেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

 

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, প্রশান্ত মহাসাগরীয় নর্দান মারিয়ানা আইল্যান্ডসের একটি আদালতে দায়ের হওয়া নথি অনুসারে এসাঞ্জ জাতীয় প্রতিরক্ষা-সংক্রান্ত তথ্য ফাঁসের একটি অভিযোগে দোষ স্বীকার করতে রাজি হয়েছেন।

 

২০১০ ও ২০১১ সালে ইরাক ও আফগানিস্তান যুদ্ধ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের লাখ লাখ গোপন সামরিক-কূটনৈতিক নথি ফাঁস করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা এসাঞ্জ। এ ঘটনায় এসাঞ্জের বিরুদ্ধে ১৮টি মামলার তদন্ত করছে মার্কিন বিচার বিভাগ।

 

পাঁচ বছর ধরে এসাঞ্জ যুক্তরাজ্যের কারাগারে আটক ছিলেন। সেখান থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

 

যুক্তরাষ্ট্রে বিবিসির অংশীদার সিবিএস এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সমঝোতা চুক্তির শর্তমতে এসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রের কারাগারে থাকতে হবে না। এমনকি যুক্তরাজ্যের কারাগারে থাকার সময়কে তার সাজাভোগের সময় হিসেবেও বিবেচনা করা হবে।

 

এর আগে মার্কিন বিচার বিভাগের এক চিঠিতে বলা হয়েছে, জুলিয়ান এসাঞ্জ অস্ট্রেলিয়ায় ফিরতে পারবেন।

 

এক্স বার্তায় উইকিলিকস জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সোমবার যুক্তরাজ্যের বেলমার্শ কারাগার থেকে এসাঞ্জ বের হয়েছেন। এই কারাগারের একটি ছোট্ট প্রকোষ্ঠে ১ হাজার ৯০১ দিন আটক ছিলেন তিনি।

 

উইকিলিকস বলছে, কারাগার থেকে বেরিয়ে এসাঞ্জ লন্ডনের স্ট্যানস্টেড বিমানবন্দরে যান। গতকাল বিকেলে তার ফ্লাইট ছাড়ে।

 

এএফপির খবর বলছে, স্থানীয় সময় বুধবার এসাঞ্জের যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল সরকারের তত্ত্বাবধানে থাকা নর্দান মারিয়ানা আইল্যান্ডসে পৌঁছানোর কথা। তার ৬২ মাসের কারাদণ্ড হতে পারে। তবে ব্রিটেনে যে পাঁচ বছর তিনি কারাভোগ করেছেন সেটিও এই সাজার অন্তর্ভুক্ত হবে। এর অর্থ হলো এসাঞ্জ নিজ দেশ অস্ট্রেলিয়ায় ফিরতে পারবেন।

 

এসাঞ্জের ছোট একটি ভিডিও এক্সে পোস্ট করেছে উইকিলিকস। তাতে দেখা যায়, জিনস ও নীল শার্ট পরা এসাঞ্জ বিমানবন্দরের পথে রয়েছেন। তবে বিবিসির পক্ষ থেকে স্বাধীনভাবে ভিডিওটি যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

 

জুলিয়ান এসাঞ্জের স্ত্রী স্টেলা মরিস এসাঞ্জ এক্স পোস্টে সমর্থকদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তারা (সমর্থকেরা) বছরের পর বছর ধরে একত্র হয়েছেন এবং দিনটিকে বাস্তবে পরিণত করেছেন।

 

পূর্বকোণ/মাহমুদ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট