চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

কলেরার টিকা খাওয়ানো হবে ডায়রিয়াপ্রবণ হালিশহরে

ইমাম হোসাইন রাজু

৯ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ | ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহর-ইপিজেড-পতেঙ্গা ও তৎসন্নিহিত এলাকাগুলোতে ডায়রিয়া ও কলেরার প্রবণতা কমাতে টিকাদান কর্মসূচি হাতে নিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এরমধ্যে পাইলট প্রকল্প হিসেবে ৩৮ নম্বর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ও ৩৯ নম্বর দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ডের ১ লাখ ৩৫ হাজার মানুষকে কলেরার টিকা খাওয়ানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। আগামী ১৭ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর পাঁচদিন কর্মসূচির মাধ্যমে এ অঞ্চলের বাসিন্দাদের খাওয়ানো হবে এ টিকা। ইতোমধ্যে কর্মসূচি বাস্তবায়নে সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগের প্রস্তুতিও গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। জানা যায়, বারবার নগরীর হালিশহর-ইপিজেড-পতেঙ্গা ও তৎসন্নিহিত এলাকায় ডায়রিয়া প্রদুর্ভাব বাড়ার কারণ খুঁজতে গত দুই বছরে কয়েকবার মাঠ পর্যায়ে অনুসন্ধান কার্যক্রম চালায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)। এ অঞ্চলে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধির কারণ হিসেবে কলেরার জীবাণু পাওয়ার কথা জানায় সংস্থাটি। সংস্থাটির তদন্তে ওঠে আসে-খাবার ও ব্যবহারের পানি থেকেই ডায়রিয়ার উদ্ভব হয়। তাই পানি বিশুদ্ধকরণের পরামর্শ দেয় সংস্থাটি।

 

স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, আইইডিসিআর’র প্রতিবেদনের পর নগরীর ৩৮ নম্বর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ও ৩৯ নম্বর দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ডে প্রাথমিকভাবে আগামী ১৭ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর মোট পাঁচদিন বিশেষ কর্মসূচির মাধ্যমে এলাকা ভিত্তিক কেন্দ্র স্থাপন করে এক বছরের বেশি বয়সী সকলকে এ টিকা খাওয়ানো হবে।

 

গত ৩ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্নস্থানে কলেরাসহ ডায়রিয়া রোগের সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ডায়রিয়া বা কলেরাজনিত রোগ জটিলতায় রোগীদের অনাকাক্সিক্ষত মৃত্যুহার প্রতিরোধে মুখে খাওয়ার কলেরা টিকার ভূমিকা অন্যতম। জাতীয় কলেরা কন্ট্রোল প্রোগ্রামের কোর ওয়ার্কিং গ্রুপের সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে চট্টগ্রাম নগরীর বন্দর থানাধীন ২টি ওয়ার্ডের প্রায় ১ লাখ ৩৫ হাজার মানুষকে মুখে খাওয়ার কলেরা ভ্যাকসিন প্রদানের পরিকল্পনা করা হয়েছে। আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে ২১ সেপ্টেম্বর মাঠ পর্যায়ে সিটি কর্পোরেশনের ৩৮ ও ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডে প্রথম ডোজ টিকা প্রদান কর্মসূচি বাস্তবায় করা হবে। পরবর্তীতে দ্বিতীয় ডোজের জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হবে।’

 

চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী পূর্বকোণকে বলেন, ‘নগরীর হালিশহর অঞ্চলে ডায়রিয়ার রোগীর প্রকোপ বাড়ার বিষয়ে বেশ কয়েকবার আইইডিসিআর’র প্রতিনিধি দল এসে অনুসন্ধান চালিয়েছিলেন। তারা এ অঞ্চলটিতে ডায়রিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধির কারণ হিসেবে কলেরার জীবাণু শনাক্ত করেছিলেন। এরপরই পাইলট প্রকল্প হিসেবে ৩৮ ও ৩৯ নম্বর হালিশহর ওয়ার্ডের ১ লাখ ৩৫ হাজার মানুষকে কলেরার টিকা খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ১ বছরের ঊর্ধ্বের যে কাউকে এ টিকা খাওয়ানো হবে। ইতিমধ্যে স্বাস্থ্যকর্মীদের কর্মসূূচি বাস্তাবায়ন করতে প্রস্তুত করা হয়েছে।’

পূর্বকোণ/পিআর 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট