চট্টগ্রাম রবিবার, ২১ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

চট্টগ্রামে অরক্ষিত নালা-খালে নিরাপত্তাবেষ্টনী জরুরি

আলতাফ হোসেন হৃদয় খান

৩ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ | ১:৩৯ অপরাহ্ণ

কয়েকবছর ধরে চট্টগ্রাম নগরীর অরক্ষিত নালা-খালে পড়ে নিয়মিত মৃত্যুর ঘটনা যেন থামছেই না। প্রতিনিয়ত নালা-খালে এমন নির্মম মৃত্যুর খবর আমরা দেখছি। এইতো বিগত ২০২১ সালে প্রবল বর্ষণের সময় মুরাদপুরে পা পিছলে খালে পড়ে এক সবজি বিক্রেতার মৃত্যু হয়। যার মরদেহ এখনও পাওয়া যায়নি। সেই বছর মেয়রগলি চশমাখালে অটোরিক্সাচালক ও একজন যাত্রীর মৃত্যু হয়। আগ্রাবাদে মাজার গেট এলাকায় ফুটপাত থেকে পা পিছলে পড়ে এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়। গত রবিবার আগ্রাবাদে দেড় বছরের নিখোঁজ শিশু ইয়াছিনকে ১৬ ঘণ্টা পর নালা থেকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। ইয়াছিনসহ চট্টগ্রামে এই বছর ৪ মাসে নালায় পড়ে ৪ জনের মৃত্যু হলো। চট্টগ্রামের প্রধান সড়কের পাশের খালগুলোতে নিরাপত্তাবেষ্টনী ও পাড়া-মহল্লায়, অলি-গলির নালাগুলো স্ল্যাব না থাকার ফলে এমন দুর্ঘটনা বেশি ঘটছে।

 

দেখা গেছে, চট্টগ্রাম নগরীর মুরাদপুর, চশমাখাল, ২ নম্বর গেট, বহদ্দারহাট, চকবাজার, মেয়রগলি, আলফালাহ গলি, মেহেদীবাগ, বাকলিয়া, হালিশহরসহ বিভিন্ন নালা অরক্ষিত। আবার কিছু জায়গায় স্ল্যাব দেখা গেলেও প্রধান সড়কের পাশে বড় খালগুলোতে নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতায় এখনও আনা হয়নি। তাই এসব খাল-নালার পাশে যাতায়াত বর্তমানে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ এবং মৃত্যুফাঁদ স্বরূপ। বারবার এমন দুর্ঘটনায় মৃত ব্যক্তির দায় এড়িয়ে যায় চসিক ও সিডিএ কর্তৃপক্ষ। এখন প্রশ্ন হলো কে নিবে এসব দুর্ঘটনার দায়? প্রশ্ন থেকেই যায়। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট অনুরোধ চট্টগ্রামের যেসব অরক্ষিত নালা-খাল ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে তা নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতায় নিয়ে এসে জনসাধারণের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করুন।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও সমাজকর্মী

পূর্বকোণ/পিআর/এএইচ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট