চট্টগ্রাম রবিবার, ২১ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

লামা সদর পানির নিচে, শতাধিক স্থানে পাহাড়ধস

লামা-আলীকদম সংবাদদাতা

৭ আগস্ট, ২০২৩ | ৬:৩৩ অপরাহ্ণ

অতিবৃষ্টিতে পাহাড় থেকে নেমে আসা পানিতে সৃষ্ট বন্যায় বান্দবানের লামা উপজেলা শহর এখন পানির নিচে। উপজেলায় বিগত দিনের সবচেয়ে বড় বন্যার রেকর্ড ১৯৮৭ ও ১৯৯৭ কে হার মানিয়েছে এবারের বন্যার পানির স্তর, এমনটা দাবি করছে স্থানীয়রা।

 

গত ৫ দিনের টানা বৃষ্টিতে আজ সোমবার (৭ আগস্ট) সকাল থেকে বান্দরবানের লামা উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ৭টি ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা পানির নিচে ও পানিবন্দী হয়ে পড়েছে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ। এদিকে টানা বৃষ্টির ফলে শতাধিক স্থানে পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটেছে।

 

লামা পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. রফিক বলেন, চেয়ারম্যান পাড়া, নারকাটা ঝিরি ও কাটা পাহাড় এলাকায় ১৫টির অধিক ঘরবাড়ি পাহাড়ধসে ক্ষতি হয়েছে। সাধারণ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে পানিবন্দী ও পাহাড়ধসে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ ভিড় জমিয়েছেন।

 

পাহাড়ি ঢলে লামা-আলীকদম সড়ক পানিতে ডুবে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এদিকে লামা-চকরিয়া সড়কের মিরিঞ্জা পাহাড় এলাকায় বেশকিছু স্থানে পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটেছে। পরে ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা মাটি সরিয়ে যোগাযোগ সচল করেছে।

 

টানা দুইদিনের পানিতে বন্দি থাকা লোকজন খাবার ও সুপেয় পানিতে কষ্ট পাচ্ছে। লামা আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান করা নয়াপাড়ার বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন ও শামসুল ইসলাম বলেন, বানবাসী মানুষের তুলনায় সরকারি ত্রাণ সহায়তা খুবই অপ্রতুল।

 

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, পৌরসভার লামা বাজার, নয়াপাড়া, টিঅ্যান্ডটি পাড়া, চেয়ারম্যান পাড়া, পাহাড় পাড়া, মধুঝিরি, লাইনঝিরি, উপজেলা পরিষদের আবাসিক এলাকা, বাসস্ট্যান্ড, শিলেরতুয়া, কলিঙ্গাবিল, লামামুখ, রাজবাড়ী এলাকায় কয়েক হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। লামা-আলীকদম সড়কের লাইনঝিরি, ছাগলখাইয়া, শিলেরতুয়া, কেরারঝিরি, দরদরাঝিরি এলাকায় রাস্তা পানির নিচে ডুবে গেছে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। অতিবৃষ্টির ফলে মাতামুহুরী নদীসহ লামার সবকয়টি নদী খালে বিপদসীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

 

লামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মোস্তফা জাবেদ কায়সার বলেন, যেকোন দুর্যোগে সহযোগিতার জন্য কন্ট্রোলরুম খোলা হয়েছে। পানিবন্দী মানুষকে উদ্ধারে উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, ফায়ার সার্ভিস, যুব রেড ক্রিসেন্ট ও লামা থানা কাজ করছে। আহতদের লামা সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। উপজেলার অধিকাংশ সরকারি অফিস এখন পানির নিচে। ইতোমধ্যে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণস্থানে বসবাসকারীদের আশ্রয়কেন্দ্রে চলে আসতে মাইকিং করা হয়েছে। লামা উপজেলায় ১টি পৌরসভা ও ৭টি ইউনিয়নের ৫৫টি প্রাথমিক স্কুল, মাধ্যমিক স্কুল ও মাদ্রাসাকে আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রে আসা লোকজনের খাবারের ব্যবস্থা করা হবে। শহরের কাছাকাছি ৫টি আশ্রয়কেন্দ্রে ৪ শতাধিক পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। সাধ্যমতে আমরা ত্রাণ ও রান্না করা খাবার দেয়ার চেষ্টা করছি।

 

লামা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ফসলের মাঠ, সবজি খেত এখন পানির নিচে। কৃষকের প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। উপজেলার ৮০ শতাংশ আবাদি ফসলের জমি পানিতে ডুবে আছে।

 

এদিকে লামা পৌর শহরে চেয়ারম্যান পাড়া ও নয়া পাড়া, ফাইতং ইউনিয়নের বড় মুসলিমপাড়া এবং সরই আন্ধারি এলাকায় কয়েকস্থানে পাহাড়ধসের খবর পাওয়া গেছে। সোমবার সকাল থেকে একটানা ভারী বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টি বন্ধ হচ্ছে না। লামা বাজারের বড় আড়ত ও মুদি ব্যবসায়ীরা দোকানের মালামাল নিরাপদে সরিয়ে রাখা স্থানেও বন্যার পানি হানা দিয়েছে। লামা বাজারের ব্যবসায়িক সমিতির সভাপতি আমান উল্লাহ বলেন, এই বন্যায় এখন পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের ক্ষতি কয়েককোটি টাকা।

 

লামা পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেন বাদশা জানান, পাহাড়ি ঢলে লামা পৌর শহরের অধিকাংশ জায়গা এখন পানির নিচে।

 

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ফাতেমা পারুল বলেন, সকাল থেকে আমরা নৌকায় করে শুকনা খাবার, খাওয়ার পানি ও রান্না করা খাবার আশ্রয়কেন্দ্র গুলোতে পৌঁছে দিচ্ছি। পার্বত্য মন্ত্রী সবসময় বন্যার বিষয়ে খোঁজখবর রাখছেন।

 

পূর্বকোণ/রফিক/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট