চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

চমেক হাসপাতাল ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহাবিলিটেশন বিভাগ

কম খরচে মানসম্মত সেবা

ইমাম হোসাইন রাজু

৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ | ১২:৪১ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার বাসিন্দা রফিকুল আলম। পাঁচ বছর আগে মধ্যবিত্ত রফিকুলের সংসারে জন্ম নেয় দ্বিতীয় সন্তান সাইকুল। পৃৃথিবীর আলো দেখা সাইকুলের বয়স বাড়তে থাকলেও হঠাৎই বেঁকে যায় পা। যার কারণে ঠিকমতো হাঁটা চলায় সমস্যা হতে শুরু করে ছোট্ট এই শিশুর। তাতে একপ্রকার দুশ্চিন্তায় পড়েন রফিক ও তার পরিবার। ছেলের এ সমস্যা নিয়ে অবশ্য চিকিৎসকের দ্বারস্থও হয়েছেন বহুবার। তবে সমস্যা সমাধানের জন্য সাইকুলকে ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহাবিলিটেশন বিভাগে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। কিছুদিন বেসরকারি ফিজিওথেরাপিস্টের কাছে নিয়ে গেলেও অর্থের টানাপোড়নে একপ্রকার সামর্থ্য হারিয়ে ফেলেন রফিক। তবে পরিচিতজনের কাছে খবর পেয়ে শেষমেষ ছুটে আসেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহাবিলিটেশন বিভাগে। বর্তমানে সরকারি হাসপাতালটিতেই চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

রফিক বলেন, ‘বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে যে পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন হয়, তাতে কোনভাবেই ছেলের চিকিৎসা করানো সম্ভব ছিল না। শুধু তাই নয়- সেবার দিক থেকেও বেসরকারি হাসপাতালের চেয়ে অনেক বেশি উন্নত। ছেলের অবস্থাও উন্নতি হয়েছে। যদি আগে থেকে এখানের চিকিৎসার সম্পর্কে জানতাম, তাহলে অবশ্যই বহু আগেই নিয়ে আসতাম।’

শুধু রফিক নয়, তাঁরমতো অনেকের অজানার কারণে আড়ালেই রয়ে গেছে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহাবিলিটেশন বিভাগ। অথচ এ বিভাগে বেসরকারি সেন্টারের তুলনায় ১৫ থেকে প্রায় ২০ গুণ কম টাকায় মিলছে মানসম্মত ফিজিওথেরাপি সেবা। বিশেষ করে শিশু প্যারালাইসিস বা সেরিব্রাল পালসি ও মেরুদ-ের সমস্যায় আক্রান্ত, ঘাড়, হাত, পা বেঁকে যাওয়াসহ সকল ধরনের ফিজিওথেরাপি সংক্রান্ত সেবা মিলছে এখানে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মাত্র ২০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ পাঁচশ’ টাকার মধ্যেই প্রকারভেবে ফিজিওথেরাপির সকল সেবা নেওয়া যাচ্ছে চমেক হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহাবিলিটেশন বিভাগে। যেখানে প্রশিক্ষিত ফিজিওথেরাপিস্টরাই সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিদিন সকাল আটটা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত এ সেবা মিলছে হাসপাতালটিতে।

চমেক হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহাবিলিটেশন বিভাগের চিফ ফিজিওথেরাপিস্ট মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনা, শারীরিক প্রতিবন্ধিতা, বিকলাঙ্গতা, পক্ষাঘাত ও বড় কোন অস্ত্রোপচারের পর রোগীর স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার ক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপির ভূমিকা অনস্বীকার্য। তাছাড়া বিভিন্ন ধরনের বাত, মাথা, ঘাড়, কাঁধ, পিঠ, কোমর ও হাঁটুর ব্যথায় এবং স্পোর্টস ইনজুরিতে ফিজিওথেরাপি বিশ^ব্যাপী একটি স্বীকৃত চিকিৎসাব্যবস্থা। এসব সেবা কমমূল্যে চমেক হাসপাতালে পাওয়া যাচ্ছে। ইতোমধ্যে রোগীদের আস্থার ঠিকানা হিসেবে সুনাম অর্জন করেছে এ বিভাগটি।’

 

 

পূর্বকোণ/এসি

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট