চট্টগ্রাম সোমবার, ২২ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

‘জীবন বাঁচাও, সিন্ডিকেট থামাও’ শিরোনামে বাজারভিত্তিক প্রচারণা ক্যাবের

বিজ্ঞপ্তি

১৫ জুলাই, ২০২৩ | ১১:০৮ অপরাহ্ণ

ক্যাব চট্টগ্রাম ও ক্যাব যুব গ্রুপের উদ্যোগে চট্টগ্রামে ‘জীবন বাঁচাও, সিন্ডিকেট থামাও’ শিরোনামে বাজারভিত্তিক প্রচারণা কর্মসূচি শুরু হয়েছে।

 

শনিবার (১৫ জুলাই) বিকাল ৪টায় নগরীর ২ নম্বর গেট কর্ণফুলী কমপ্লেক্স চত্বরে এ কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন ক্যাব কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন।

 

ক্যাব যুব গ্রুপ চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি আবু হানিফ নোমানের সঞ্চালনায় সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আনিসুর রহমান, বিশিষ্ট নারী নেত্রী ও ক্যাব চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি জেসমিন সুলতানা পারু, ন্যাশনাল আওয়ামী লীগ (ন্যাপ)’র কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিটুল দাস গুপ্ত, ক্যাব চট্টগ্রাম মহানগরের যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ জানে আলম, ক্যাব বায়েজিদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবম হুমায়ুন কবির, বায়েজিদ থানা মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী জোহরা বেগম, সদরঘাট থানা থানা ক্যাবের সভাপতি শাহীন চৌধুরী, কিন্ডার গার্ডেন ঐক্য পরিষদের নেতা অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান দুর্জয়, ক্যাব পাহাড়তলীর হারুন গফুর ভুইয়া, ক্যাব চান্দগাঁও এর আবদুর রহমান, এডাব চট্টগ্রামের বিভাগীয় সমন্বয়কারী ফোরকান মাহমুদ, মানবাধিকার কর্মী লায়লা ইয়াছমিন, ক্যাব যুব গ্রুপের সিনিয়র সহসভাপতি নিলয় বর্মন, আইন সম্পাদক মিনা আকতার, সহ-সম্পাদক আমজাদুল হক আয়াজ, মো. খাইরুল ইসলাম, ফজলে রাব্বি তৌহিদ, পলি দাস, চিং মা মারমা প্রমুখ।

 

বক্তারা বলেন, আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে বেশ কয়েকবছর আগে বন্যায় পেয়াঁজ উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হলে পেয়াঁজের দাম উর্ধ্বমুখী হয়েছিল। ভারতীয় ক্রেতারা তখন পেয়াঁজ কেনা কমিয়ে দিয়েছিল। পরবর্তীতে ব্যবসায়ীরা পেয়াঁজ বিক্রি করতে না পেরে বিপুল পরিমাণ পেয়াঁজ নষ্ট হয়ে পচে যায়। আমাদের দেশেও বছর দু’এক আগে অতি লাভের আশায় পেয়াঁজ মজুত করলে পরে বিক্রি করতে না পেরে পেয়াঁজ ব্যবসায়ীরা বিপুল লোকসান দেন। ঠিক একইভাবে ছোলা আমদানি করে বেশি দামে বিক্রি করার জন্য ব্যবসায়ীরা ছোলা মজুত করলেও রমজানের মৌসুমে ছোলা বিক্রি করতে না পেরে লোকসান গুনতে হয়েছিল। এ বছর দেশীয় খামারী ঈদুল আজহায় বেশি দামের আশায় গরু বিক্রি না করে দাম ধরে রাখেন, পরবর্তীতে ক্রেতারা যখন বেশি দামে কেনা কমিয়ে দেন ফলে বিপুল পরিমান গরু অবিক্রিত থেকে যায়।

 

বক্তারা আরও বলেন, আবার দেশে পর্যাপ্ত উৎপাদন সত্ত্বেও কাঁচা মরিচ ইতিহাসের সর্বোচ্চ দামে কিনতে হয়েছে। সরকার দাম কমানোর জন্য ভারত থেকে কাঁচা মরিচ আমদানির অনুমতি দিলে কয়দিন দাম কম ছিল। চাহিদা বাড়তে থাকায় ব্যবসায়ীরা দাম আবার বাড়িয়ে দেন। এ অবস্থায় বাজারে সাধারণ ক্রেতারা বাজার তদারকিতে সরকারের গাফলতিকে দায়ী করলেও ভোক্তা হিসাবে আমাদের কি কোন দায় দায়িত্ব নাই? ভোক্তা হিসাবে জাতিসংঘ স্বীকৃত ভোক্তা অধিকারগুলি যে রকম আমরা উপভোগ করবো ঠিক তেমনি আমাদের দায়িত্বগুলি সম্পর্কে আমাদের দায়িত্ববান হতে হবে। বিশেষ করে পণ্য বা সেবার মান ও গুণাগুণ সম্পর্কে সচেতন ও জিজ্ঞাসু হওয়া; দরদাম যাচাই করে সঠিক পণ্যটি বাছাই করা; আপনার আচরণে অন্য ক্রেতা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হন সে ব্যাপারে সচেতন থাকা; ক্রেতা-ভোক্তা হিসাবে অধিকার সংরক্ষণে সোচ্চার ও সংগঠিত হওয়া।

 

তাই দাম বাড়লে হুড়াহুড়ি করে হুমড়ি খেয়ে না পড়ে খাদ্য-পণ্য ক্রয় না করা, মাসের বাজার একসাথে না কিনে সপ্তাহের বাজার করে নিত্যপণ্যের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সহায়তা করা দরকার। বাজারে একশ্রেণির ব্যবসায়ীরা ক্রেতাদের বলে থাকেন একসাথে মাসের বাজার করেন, দাম বেড়ে যাবে? কিছু স্টক করে রাখেন ইত্যাদি করে সরবরাহ লাইনে সংকট তৈরি করে কিছু ব্যবসায়ী দাম বাড়ানোর সুযোগ নেন। তাই ব্যবসায়ীদের এই অপতৎপরতায় পা না দিয়ে মাসের বাজার এক সাথে না করে সপ্তাহের বাজার করা হলে ভোগ্যপণ্যের সরবরাহ লাইনে সংকট তৈরি হবে না। একই সাথে মুনাফখোর, মজুতদার ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সহায়তা করা ও তাদেরকে সামাজিকভাবে বয়কট করার আহবান জানান।

 

চট্টগ্রাম নগরীর ২১টি বাজারে এ ধরনের প্রচারাভিযানের উদ্যোগ নেয়া হবে বলে ক্যাব জানান।

 

পূর্বকোণ/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট