চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪

সর্বশেষ:

ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে চবি ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ

চবি সংবাদদাতা

২১ মে, ২০২৪ | ৭:১৯ অপরাহ্ণ

স্থানীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র দখলকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের এক কর্মীকে কুপিয়ে জখম করেছে অন্য উপগ্রুপের কর্মীরা।

 

মঙ্গলবার (২১ মে) আড়াইটার দিকে চবি ক্যাম্পাসের ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্র এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় ওই ছাত্রলীগ কর্মীকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

আহত ছাত্রলীগ কর্মীর নাম সালাহ উদ্দিন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিজিক্যাল এডুকেশন অ্যান্ড স্পোর্টস সায়েন্স বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

 

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, দুপুরে চবি শাখা ছাত্রলীগের উপগ্রুপ চুজ ফ্রেন্ডস উইথ কেয়ার (সিএফসি) এবং বিজয়ের কর্মীরা চবি ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে অবস্থান করছিল। বিজয়ের কর্মীরা মোটরসাইকেল প্রতীক ও সিএফসির কর্মীরা ঘোড়া প্রতীকের পক্ষে কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে বিজয়ের সালাহ উদ্দিনকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম করে সিএফসির কর্মীরা।

 

আহতের ঘটনা টের পেলে আলাওল ও এফ রহমান হলে থাকা বিজয়ের অন্য কর্মীরা দেশীয় অস্ত্রসহ মহড়া দেয়। এ সময় রব হল থেকে সিএফসির কর্মীরাও দেশীয় অস্ত্রসহ বের হয়। উভয় পক্ষের মধ্যে ঘন্টাব্যাপী ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলতে থাকে। এসময় উভয় পক্ষের মধ্যে ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। ইটের আঘাতে উভয় গ্রুপের ৫ জন আহত হয়। পরে বিকেল ৫ টায় উভয় গ্রুপ কে নিয়ন্ত্রণে আনে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি। বর্তমানে উভয় গ্রুপ হলে অবস্থান করছে তবে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

 

এ ব্যাপারে সিএফসি উপগ্রুপের নেতা ও চবি ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব সোপান পূর্বকোণ কে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা অধিকাংশই বাইরে থেকে এসেছে। তাই স্থানীয় নির্বাচনের বিষয়ে গ্রুপের সিনিয়র বা নেতাদের কোনো নির্দেশনা নেই। কেউ অতিউৎসাহী হয়ে কিছু করলে তার দায়ভার সংগঠন নিবে না।

 

বিজয়ের নেতা ও চবি ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. ইলিয়াস বলেন, ভোটকেন্দ্র আমাদের হলের পাশে হওয়ায় ৩ জন কেন্দ্রের ওদিকে যায়। গিয়ে দেখে রব হলের ছেলেরা এসে কেন্দ্র দখল করার চেষ্টা করছে। এসময় সালাহ উদ্দিন তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে এই নির্বাচনে ইনভলভ না হওয়ার জন্য বলে। এরপরই তাকে কুপিয়ে জখম করা হয়।

 

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আবু তৈয়ব মো. আরিফ হোসেন বলেন, ছাত্রলীগের ছেলেদের জিজ্ঞাসা করা হলে তার জানায় নির্বাচন কেন্দ্রিক কোনো বিষয় নেই। হলে কোনো বিষয়ে ঝামেলা হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. অহিদুল আলম পূর্বকোণকে বলেন, নির্বাচন কেন্দ্রিক ঝামেলা থেকে সংঘর্ষের সূত্রপাত। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ছেলেকে কোপানো হয়েছে। তার অবস্থা একটু বেশি খারাপ। তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়েছে। যেহেতু নির্বাচন নিয়ে ঝামেলা পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের যারা অস্ত্রসহ মহড়া দিয়েছে তাদের কে তদন্ত কমিটির মাধ্যমে চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আজকে রাতেই তদন্ত কমিটি গঠন করা হতে পারে।

 

প্রসঙ্গত, হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের সভাপতি এসএম রাশেদুল আলম। অন্যদিকে চেয়ারম্যান পদে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন চৌধুরী নোমান। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি কেন্দ্রের মধ্যে ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে ২০৪৫ জন ভোটার ও নীপবন শিশু বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার রয়েছে ২২৬৯ জন।

 

 

পূর্বকোণ/জুনায়েদ/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট