চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪

সর্বশেষ:

ডিভোর্সের পর তালিকা ধরে বিয়ের উপহার ফেরত নিলেন স্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

২৪ মার্চ, ২০২৪ | ৮:০৯ অপরাহ্ণ

ডিভোর্সের পর বিভিন্ন সময়ে ছেলেপক্ষকে দেয়া উপহার তালিকা করে ফেরত নিয়েছে মেয়েপক্ষ। গত ১৯ মার্চ ঘটে এমন একটি বিরল ঘটনা। জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণের বাইরে ছেলেপক্ষ থেকে মেয়েপক্ষকে বুঝিয়ে দেয়া হয় বিভিন্ন উপহার সামগ্রী। সেখানে উপস্থিত অনেকেই বিষয়টি দেখতে ভিড় করেন।

 

টুকটুকি খাতুন মেহেরপুরের গাংনীর কসবা গ্রামের মেয়ে। চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গার বাসিন্দা মো. লিংকনের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তার। লিংকনের পরিবারের ফেরত দেওয়া পণ্যের মধ্যে ছিল খাট-টেবিল থেকে শুরু করে চিনি, লবণ পর্যন্ত। ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে থেকে তালিকা অনুযায়ী সবকিছু বুঝে নিয়েছে টুকটুকির পরিবার।

 

স্থানীয়রা জানিয়েছে, তিন বছর আগে লিংকন আর টুকটুকির বিয়ে হয়। সংসার জীবনে বনিবনা না হওয়ায় এক পর্যায়ে স্বামীর বিরুদ্ধে মেহেরপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ও সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে যৌতুক নিরোধ ও নারী নির্যাতন আইনে দুটি মামলা করেন টুকটুকি খাতুন। আদালত তাদের আইনজীবীদের বিষয়টি মীমাংসার নির্দেশ দেন। কেউ কাউকে ছাড় না দেয়ায় ছেলের পরিবার বিভিন্ন উপহার মেয়ের পরিবারকে বুঝিয়ে দেয়।

 

ছেলেপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আল মামুন রাসেল বলেন, মেহেরপুরের তালাক মহামারির বিষয়টি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে আসার পর সবার নজরে এসেছে। আমরা যারা আইনজীবী রয়েছি তারা মামলা পরিচালনা করতে গিয়ে দেখতে পাই তালাকের জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ছেলে ও মেয়ের থেকে তাদের মা-বাবার ভূমিকাই প্রকট হয়ে ওঠে। আর এ সমস্যাগুলো বেশি দেখা যায় গ্রামাঞ্চলের মেয়েদের অভিভাবকের ক্ষেত্রে।

 

তিনি আরও বলেন, তালাকের মামলার ক্ষেত্রে হয় ছেলে বা মেয়ে একটি পক্ষ জিতে যায়। অনেক ক্ষেত্রে তালাক হওয়াতে উভয় পক্ষই ভাবে তারা জিতেছে। তবে দিনশেষ হেরে যাই তাদের সন্তানরা। এই মামলার ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটেছে। উভয় পক্ষকে নিয়ে সমঝোতার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু তারা একে অন্যের সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে রাজি না হওয়ায়, এবং কেউ কাউকে কোনো ছাড় না দিতে চাওয়ায় ফলাফল আপনারা দেখেছেন জেলা প্রশাসক কার্যালয় প্রাঙ্গণে। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

 

 

পূর্বকোণ/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট