চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪

সর্বশেষ:

উখিয়ায় সরকারি জায়গা উদ্ধার

উখিয়া সংবাদদাতা

২২ অক্টোবর, ২০২৩ | ১১:৫৭ অপরাহ্ণ

কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের উখিয়া রেঞ্জের জায়গা জবরদখল করে কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি ঘর নির্মাণ করছে। উখিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা গাজী সফিউল আলমের নেতৃত্বে বনকর্মীরা রাজাপালং ইউনিয়নের আমগাছ তলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে দুইটি দালান আদালতের নির্দেশে গুঁড়িয়ে দিয়েছে। জালাল উদ্দিন প্রকাশ জালু বনভূমি দখল করে এই দালান নির্মাণ করছিল। অন্যটি মানুনের নির্দেশে নির্মাণ করেছিল।

 

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তিনতলা ফাউন্ডেশন দিয়ে তৈরি করেছে বিল্ডিং কিন্তু উপরে রং এর পরিবর্তে দেওয়া হয়েছে মাটি, বাহিরে দেখতে যাতে বুঝা না যায় এটি বিল্ডিং। কিন্তু বনবিভাগের চোখ ফাঁকি দিতে না পেরে আদালতের নির্দেশে রবিবার (২২ অক্টোবর) দুপুর ২টার দিকে বনবিভাগের অভিযানে উচ্ছেদ করা হয় দুইটি ঘর।

 

উখিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা গাজী সফিউল আলমের নেতৃত্বে উখিয়া থানা পুলিশ ও দৌছড়ি বিট কর্মকর্তা সাজ্জাদ সহ বনকর্মীরা উচ্ছেদ অভিযান চালান।

 

উখিয়ার রাজাপালং ইউনিয়নের আমগাছ তলা এলাকায় মামুনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং জালাল উদ্দিন জালুর অবৈধ ঘর উচ্ছেদ করে বনবিভাগ জায়গা উদ্ধার করে তাতে লাল পতাকা লাগিয়ে দেয়।

 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উখিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা গাজী সফিউল আলম বলেন, আদালতের নির্দেশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে সরকারি জায়গা উদ্ধার করা হয়েছে।

 

তিনি আরও বলেন, কোনভাবেই কাউকে বনভূমি দখল করতে দেয়া হবে না। উখিয়া রেঞ্জে কেউ বনভূমি দখলের অপচেষ্টা চালালে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। বর্তমানে উখিয়ার বিভিন্ন এলকায় কিছু ভূমিদস্যূ বনবিভাগের জায়গা দখল করে স্থাপনা বা ঘর নির্মাণ করছে। তাদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলমান থাকবে। যারা বন আইন মানবে না তাদের বিরুদ্ধে বনবিভাগ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

 

কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. সরওয়ার আলম জানান, বনবিভাগ এলাকা সংরক্ষিত। এইসব জায়গা আমাদের সংরক্ষণ করতে হবে। তাহলে পরিবেশ রক্ষা পাবে। কিন্তু এখন কিছু অসাধু ভূমিদস্যূ বনবিভাগের জায়গা দখল করে ঘর করা শুরু করে দিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলমান থাকবে।

 

পূর্বকোণ/মানিক/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট