চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪

সর্বশেষ:

রাউজানের সেই যুবক অপহরণ হয়নি, চাকরি করছিল দোকানে

রাউজান সংবাদদাতা

১০ অক্টোবর, ২০২৩ | ৫:১১ অপরাহ্ণ

অপহৃত বলে আলোচিত রাউজানের সেই যুবক মো. ফাহিম উদ্দীন (১৮) আসলে অপহরণ হয়নি। পরিবারের সদস্যদের অনুপস্থিতিতে কাউকে কিছু না বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে চট্টগ্রাম নগরীর একটি দোকানে সেলসম্যানের চাকরি করছিল। অপহরণের গুজব ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ তাকে হন্য হয়ে খুঁজতে তাকে। অবশেষে রাউজান থানা পুলিশ ফাহিমকে চট্টগ্রাম নগরীর স্টেশন রোডের রিয়াজ উদ্দিনবাজার প্যারামাউন্ট সিটি মার্কেটের সামনে থেকে উদ্ধার করে। মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) দুপুরে উদ্ধার হওয়া ফাহিমকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে থানা পুলিশ।

 

এ প্রসঙ্গে আজ মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১১টায় এক সাংবাদিক সম্মেলন করে রাউজান থানা পুলিশ। সেখানে ফাহিম অপহরণ নয়, নিখোঁজ বলে নিশ্চিত করেন থানার ওসি আবদুল্লাহ আল হারুন। তিনি তথ্য উপস্থাপন করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত ২৬ সেপ্টেম্বর বিকেল ৩টার দিকে হলদিয়া ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মো. আব্দুল মান্নানের ছেলে ফাহিম উদ্দীন পরিবারের সদস্যদের কিছু না বলে ফকিরটিলা বাজার হয়ে নিরুদ্দেশ হয়ে যায়। এদিকে গত ৬-৭ মাস পূর্বেও সে একবার স্বেচ্ছায় বাড়ি থেকে ঢাকায় গিয়ে ৩-৪ দিন পর বাড়িতে ফিরে আসে। পূর্বের ন্যায় এবারও বাড়িতে ফিরে আসবে মনে করে ফাহিমের বাবা-মা নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত না করে নিজেরা সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। বেশ কয়েকদিন পরও ফিরে না আসায় তার বাবা মো. আব্দুল মান্নান গত ৬ অক্টোবর রাউজান থানায় ডায়েরি করেন। নিখোঁজের কয়েকদিনে ফিরে না আসায় অপহরণ হয়েছে বলে গুজব ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

 

এ অবস্থায় রাউজান থানা পুলিশ চট্টগ্রাম শহরসহ বিভিন্নস্থানে গুপ্তচর নিয়োগ এবং তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে ৯ অক্টোবর সোমবার রাত সাড়ে ১০টায় স্টেশন রোডের রিয়াজ উদ্দিন বাজার প্যারামাউন্ট সিটি মার্কেট থেকে ফাহিমকে উদ্ধার করে। প্রাথমিকভাবে ফাহিম জানায়, সে ওই মার্কেটের নিচ তলায় একটি দোকানে সেলম্যান হিসেবে কাজ করতো।

 

হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ফাহিমকে অপহরণের গুজব সৃষ্টি হয়েছিল। বাস্তবে সে অপহরণ হয়নি, স্বেচ্ছায় বাড়ি ছেড়েছিল। পরিবারের কাছে যারা মুক্তিপণ দাবি করেছে বলে বলা হয়েছে, তারা আসলে অপহরণকারী নয়। নিখোঁজের সংবাদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখে সুযোগ নিয়েে একটি চক্র ফাহিমের পরিবারের কাছ থেকে টাকা আদায়ের ফাঁদ পেতেছিল।’

 

রাউজান থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) অজয়দেব শীল বলেন, ‘উদ্ধার ফাহিম দু’বছর আগে এসএসসির টেস্ট পরীক্ষা খারাপ করায় মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। সে একবার বাড়িতে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টাও করেছিল।’

 

পূর্বকোণ/এএইচ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট