চট্টগ্রাম রবিবার, ২৬ মে, ২০২৪

সর্বশেষ:

সীতাকুণ্ডে পৌরসভার গণশৌচাগার দখল করে রিকশার গ্যারেজ!

সৌমিত্র চক্রবর্তী, সীতাকুণ্ড

৭ মে, ২০২৩ | ১২:০৯ অপরাহ্ণ

সীতাকুণ্ডে পৌরসভার অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি গণশৌচাগার দখল করে প্রকাশ্যে রিকশা গ্যারেজের ব্যবসা চলছে। হাসেম নামক এক ব্যক্তি এই গ্যারেজটি এক বছরেরও বেশি সময় ধরে পরিচালনা করছেন বলে তিনি নিজেই জানিয়েছেন। তবে এ বিষয়ে অবগত নন বলে জানিয়েছেন পৌরমেয়র। অন্যদিকে শৌচাগারের মধ্যে গ্যারেজ হওয়ায় বাজারের ব্যবসায়ীরা এখন শৌচাগারটি বিমুখ হয়ে পড়েছেন। ফলে লাখ লাখ টাকা ব্যয়ে এটি নির্মিত করার উদ্দেশ্য ব্যর্থ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ। জানা গেছে, সীতাকুণ্ড পৌরসদরের মোহন্তেরহাট বাজারের ব্যবসায়ী, আগত পর্যটক ও যাত্রীদের সুবিধার্থে পৌরসভার উদ্যোগে গত ৮ বছর পূর্বে চারটি গণ শৌচাগার স্থাপন করা হয়। এর মধ্যে উত্তর বাইপাসে অবস্থিত শৌচাগারটি দখল করে সেখানে জমজমাট রিকশার গ্যারেজের ব্যবসা চলছে। কিন্তু এ নিয়ে কারো কোন মাথাব্যাথা নেই। সরেজমিনে দেখা যায়, এখানে হাজারো ব্যবসায়ী ও পর্যটকদের জন্য নির্মিত গণশৌচাগারটির বেশিরভাগ অংশজুড়ে স্থাপন করা হয়েছে একটি রিকশার গ্যারেজ। হাসেম নামক মধ্য বয়সী এক ব্যক্তি সেখানে দোকান খুলে রিকশা মেরামতের কাজ করছেন। আর শৌচাগারের ছোট্ট একটি অংশে টয়লেট থাকলেও দূর থেকে দেখে এটিকে সবাই গ্যারেজ বলে ভুল করেন। ফলে দিন দিন এটির ব্যবহার কমছে। সেখানে গিয়ে কথা হয় গ্যারেজ মালিক হাসেমের সাথে। তিনি বলেন, আমি এ বাথরুমটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্বে আছি। এখানে অলস বসে থাকি। রিকশার কাজ জানা আছে। তাই গত প্রায় এক বছর ধরে তিনি এই গ্যারেজ খুলেছি। এই গ্যারেজের বিষয়টি পৌরসভা কর্তৃপক্ষ জানে কিনা- এমন প্রশ্নে হাসেম বলেন, তারা অবশ্যই জানেন। নইলে আমি গ্যারেজ করেছি কি করে? এদিকে এভাবে গণশৌচাগারগুলো নিয়ে পৌরকর্তৃপক্ষের উদাসীনতা রয়েছে বলে জানান পৌরসদর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রেজাউল করিম বাহার। সীতাকুণ্ড পৌরসভার মেয়র মুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলম বলেন, উত্তর বাজারের গণশৌচাগারে রিকশা গ্যারেজ পরিচালনার কথা আমার জানা ছিলো না। আমি শীঘ্রই লোক পাঠিয়ে এটি দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

 

 

পূর্বকোণ/এ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট