চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

‘ওয়াকার ইউনিস ছিলেন ভয়াবহ কোচ’

আসল বয়স জানালেন আফ্রিদি

৪ মে, ২০১৯ | ১:৪৮ পূর্বাহ্ণ

ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোতে শহীদ আফ্রিদির প্রোফাইলে দেখা যায় তার জন্ম ১৯৮০ সালে। তবে সম্প্রতি প্রকাশিত এক আত্মজীবনীতে দেখা যায় বয়স লুকিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলেছেন অবসরে চলে যাওয়া এই ক্রিকেটার। ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পা রেখেই সব আলো নিজের দিকে টেনে নিয়েছিলেন শহীদ আফ্রিদি। অবশ্য তা ছিলো বয়সের কারণেই। মাত্র ১৬ বছর বয়সে ৩৭ বলে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েছিলেন তিনি। বুমবুম আফ্রিদি এবার আলোচনায় আসলেন নিজের বয়স লুকানো নিয়ে। ১৯৯৬ সালে কেনিয়ার নাইরুবিতে চার জাতি ওয়ানডে টুর্নামেন্টে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচে ইতিহাস গড়েছিলেন আফ্রিদি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৩৭ বলে ওয়ানডের দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ডটা গড়েছিলেন তিনিই। যা টিকে ছিলো ১৭ বছর। দ্রুততম সেঞ্চুরির সঙ্গে তার অল্প বয়স নিয়েও আলোচনা ছিল সে সময়। তবে সম্প্রতি ‘গেম চেঞ্জার’নামের আত্মজীবনীতে আফ্রিদির বয়স দেখানো হয়েছে আরো বেশি। সেখানে তার আসল জন্মসাল ১৯৭৫ উল্লেখ করেছেন আফ্রিদি। ফলে মাত্র ১৬ বছর বয়সে আফ্রিদির দ্রুততম সেঞ্চুরি হাঁকানোর রেকর্ড এখন হুমকির মুখে। সে কথা সত্যি হলে আফ্রিদি ৫ বছর বয়স লুকিয়েছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে। এর অর্থ ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আফ্রিদি যখন বিদায় বলছিলেন, তখন তার বয়স ছিলো ৪০ অথবা ৪১ বছর। ফলে তার সেই রেকর্ডও ১৬ বছরে গড়া নয়, গড়েছিলেন ২১ বছরে। এদিকে ওয়াকার ইউনিস পাকিস্তানের কোচ থাকাকালীন সময়ে অধিনায়ক আফ্রিদির সাথে দ্বন্ধ লেগেই থাকতো। পরিস্থিতি এমন ছিল যে, ২০১১ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে আফ্রিদির তীব্র সমালোচনা করে ওয়াকার বলেছিলেন, ‘অধিনায়ক হিসেবে সে (আফ্রিদি) ভীষণ অপরিপক্ব, শৃঙ্খলা নেই এবং পরিকল্পনার অভাব আছে।’ দীর্ঘদিন পর ওয়াকারের সেই সমালোচনার জবাব দিয়েছেন আফ্রিদি। আর দিয়েছেন নিজের আত্মজীবনীতে। সেখানে ওয়াকারের সমালোচনার পাশাপাশি বিরোধের কারণও উল্লেখ করেন তিনি, ‘সে ছিল সাধারণ মাপের অধিনায়ক কিন্তু খুব ভয়াবহ কোচ। সব সময় সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে চাইত। অধিনায়ককে সব সময় বলার চেষ্টা করত, কী করতে হবে, কী করা উচিত।’

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট