চট্টগ্রাম শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২৪

বিদায় শিখরের, সব নজর এখন ঋষভে

স্পোর্টস ডেস্ক

২১ জুন, ২০১৯ | ২:০২ পূর্বাহ্ণ

শেন ওয়ার্নের কাউন্টি হ্যাম্পশায়ার মাঠের উপরে তখন বেশ কালো মেঘ। একটু পরে বৃষ্টিও নামল। ভারতীয় দলের এক তারকা ক্রিকেটারের মাথার উপর তত ক্ষণে বজ্রপাত ঘটে গিয়েছে। তিনি শিখর ধাওয়ান। আশঙ্কাকে সত্যি প্রমাণিত করে ছিটকেই গেলেন বিশ্বকাপ থেকে। দলের ম্যানেজার সুনীল সুব্রমহ্মণ্যম আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষণা করেন, শিখরের বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গিয়েছে। তাঁকে আর পাওয়া যাবে না। ইতিমধ্যেই দলের সঙ্গে প্র্যাক্টিস শুরু করা ঋষভ পন্থ যোগ দিচ্ছেন পরিবর্ত হিসেবে। ম্যানেজার বললেন, ‘শিখরের বাঁ-হাতের প্রথম মেটাকার্পলের গোড়ায় চিড় ধরেছে। আমরা একাধিক ডাক্তারি মত নিয়েছি। দেখা যাচ্ছে, জুলাইয়ের মাঝামাঝি পর্যন্ত এ ভাবেই ব্যান্ডেজ লাগানো অবস্থায় থাকতে হবে। তাই ওর পক্ষে বিশ্বকাপে আর খেলা সম্ভব হবে না।’ পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেল, বাঁ-হাতের বুড়ো আঙুলের কাছেই চিড়টা ধরেছে। সেই কারণে সম্পূর্ণ সেরে না-উঠলে বাঁ-হাতি ওপেনারের পক্ষে ব্যাট ধরাই কার্যত অসম্ভব। আশা করা হচ্ছিল, যদি নক-আউট পর্ব থেকেও অন্তত শিখরকে ফের পাওয়া যায়। ম্যানচেস্টারে পাকিস্তান ম্যাচ খেলার সময় থেকেই সংশয় বাড়তে থাকে। সাউদাম্পটনে এসে সর্বশেষ ডাক্তারি পরীক্ষায় নিশ্চিত হয়ে যায়, শিখর পারবেন না। বিশ্বকাপ শেষ হয়ে যাওয়ার পরে খুব আবেগপূর্ণ একটি টুইট করেছেন শিখর। সেখানে তিনি দল এবং ভক্তদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন তাঁকে সমর্থন করার জন্য। ভারতীয় শিবিরে সকলে শ্রদ্ধাবনত তাঁর লড়াই দেখে। কেউ কেউ এ দিনও বলছিলেন, ‘ওর যে এত বড় চোট লেগেছে, কাউকে বুঝতেই দেয়নি। দুঃসাহসিক আর অমর হয়ে থাকবে শিখরের লড়াই।’ ছোটবেলার ক্রিকেটার-বন্ধুরা অবশ্য সে-দিনের ব্যাট করে যাওয়া দেখে অবাক হননি। তাঁদের বক্তব্য, ‘ক্রিকেট মাঠে শিখর কোনও কিছুতে ভয় পায় না। নিজে ইচ্ছা করে গিয়ে দাঁড়াত সিলি পয়েন্ট, শর্ট লেগে। ব্যাটসম্যানদের মুখের উপরে দাঁড়িয়ে শোলের গব্বর সিংহের সংলাপ আওড়াত। তা থেকেই তো ওর নাম হয়েছিল গব্বর।’ এর পর এক বার ঠোঁটে সংক্রমণ হওয়ায় গোঁফ বড় হয়ে যায়। সেই শুরু পাকানো গোঁফের। সম্পূর্ণতা পেয়ে গেল ক্রিকেট মাঠের গব্বর চরিত্র।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট