চট্টগ্রাম শনিবার, ২৫ মার্চ, ২০২৩

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ২:৩০ অপরাহ্ণ

সবার গল্পগুলো সুন্দর, কাকে স্কলারশিপ দিবো?

দীর্ঘমেয়াদী ডিগ্রির চাপ থেকে শিক্ষার্থীদের মুক্তি দেয়ার জন্য Quantic School of Business & Technology খুবই কম সময়ে অল্প খরচে MBA-র অফার দিচ্ছে। দেখলাম শিক্ষার্থীদের অনেক বড় বড় কোম্পানি যেমন অ্যামাজন, গুগল, মাইক্রোসফট, অ্যাপল, আইবিএম ইত্যাদি স্কলারশিপ দিচ্ছে। আমারও এরকম একটা দারুণ প্রকল্পে ঐ কোম্পানিগুলোর সাথে যোগ দিতে ইচ্ছা করলো।
তাদের সাথে একটা মিটিং ফিক্স করলাম। সন্ধ্যায় মিটিংয়ের সময় স্কলারশিপ দলের প্রতিনিধি জেন আমাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে জিজ্ঞেস করলো, তুমি কি MBA করতে চাচ্ছো?
বললাম, না, তোমাদের কার্যকলাপ পছন্দ হয়েছে। স্কলারশিপ দিতে চাই।
সে কিছুক্ষণ হা করে থাকার পর বললো, এটা কিভাবে সম্ভব? আজ পর্যন্ত যেসব কোম্পানি আমাদের কাছে এসেছে সবাই এত এত লম্বা ফর্ম আর ব্যুরোক্রেসির পর আমাদের স্কলারশিপ দিতে চেয়েছে। আমাদের কোন জিনিসটা তোমার ভাল লাগলো?
বললাম, তোমাদের ট্যাগলাইন – The Business School of the Future Has Arrived. বেশিরভাগই এই কথাটা ধরতে পারে না। ভবিষ্যৎ থেকে চিন্তা করতে পারা। তোমাদের সাথে আমার মিল পেলাম, তাই কথা বলতে ইচ্ছা করলো।

খেয়াল করলাম জেনের চোখ বারবার বাম দিকে চলে যাচ্ছে আর একটা বাচ্চার আওয়াজ। বুঝলাম জেনের বাচ্চা তার দিকে মনোযোগ চাইছে। না পেয়ে কান্না করছে।
জেন বললো- I am so sorry about this unprofessional situation.
বললাম, ওকে তোমার কোলে নিয়ে আসো। হাই বলি।
আমরা অনেকক্ষণ জমিয়ে আড্ডা দিলাম। বাচ্চাটার নাম নোভা।
জেন বললো, আমার কাছে স্কলারশিপের জন্য অনেক ধরণের কভার লেটার আসে। কাকে ছেড়ে কাকে স্কলারশিপ দিবো বলো? সবার গল্পগুলো এত সুন্দর! নিসর্গ, তোমার ইচ্ছা হবে সবাইকে সিলেক্ট করতে! একজনকেও বাদ দিতে ইচ্ছা করবে না!
কেন মানুষ স্বপ্ন দেখতে ভুলে যাচ্ছে, কেন বিসর্জন দিচ্ছে – এসবের জন্য আমরা কি করতে পারি এসব নিয়ে অনেক আলাপ হলো।
তারপর মে মাসে নিউ ইয়র্কে তাদের ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থীদের একটা পিচ প্রোগ্রামের দাওয়াত পেলাম।
রাখার আগে বললাম, নোভা, আমি তোমাকে দেখতে আসবো।
সিলিকন ভ্যালি পর্যন্ত আমার যেতে পারার কারণ আমার টাকা না, মেধা না, পরিশ্রম না।
মানুষের জন্য অগাধ ভালবাসা।

লেখক: নিসর্গ নিগার, জার্মানি থেকে

পূর্বকোণ/এএইচ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট