চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

‘সরকারে ‘রাসেলস ভাইপার’ আছে, ধরার মতো বেজি নাই’

অনলাইন ডেস্ক

২৪ জুন, ২০২৪ | ১১:৫১ অপরাহ্ণ

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য সৈয়দ সায়েদুল হক (ব্যারিস্টার সুমন) বলেছেন, ‘রাসেলস ভাইপার সাপ’ এ সরকারে চলে এসেছে। যখন সাপ আসে প্রকৃতিতে বেজিও থাকে। এই বেজি সাপকে নিয়ন্ত্রণ করে। সরকারে বিভিন্ন জায়গায় রাসেলস ভাইপার আছে, কিন্তু বেজি ওই পরিমাণ নেই যে সাপ ধরবে।

 

আজ সোমবার (২৪ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন সায়েদুল হক।

 

সায়েদুল হক বলেন, ‘আমাদের প্রতিষ্ঠানগুলো দুর্বল হয়ে গেছে। একজন ভদ্রলোককে দুদক ধরতে পারেনি। এনবিআর ধরতে পারেনি। বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্ট ইউনিট ধরতে পারেনি। আর এনবিআরের মতিউর রহমানকে ধরল একটা ছাগল। ছাগল না এলে এই লোককে আর জানতে পারতেন না।’

 

এই স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য বলেন, ‘সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ। তিনি কত বড় হয়ে গেলেন; মন্ত্রণালয় জানল না, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানলেন না। এই বাচ্চাটা এত বড় হয়ে গেল, আর কিছুদিন সুযোগ পেলে পুরো গোপালগঞ্জ কিনে ফেলত। তারপরও বলব, এর দায় এই মন্ত্রণালয় এড়াতে পারে না।’

 

সায়েদুল হক বলেন, ‘মুদ্রা সংকোচন নীতি করতে গিয়ে এমপিদের ওপরও সংকোচন শুরু হয়ে গেছে। আমাদের গাড়ির ওপর ২০ শতাংশ কর চলে এল। কাদের সাথে আমরা তুলনা করব। আমার এলাকার সব সরকারি কর্মকর্তার গাড়ি আছে। তাদের নতুন নতুন গাড়ি দেওয়া হয় আর আমাদের কিনতে হয়।’

 

সায়েদুল হক বলেন, তিনি ইতিমধ্যে শুল্কমুক্ত গাড়ি পেয়েছেন। তিনি যেহেতু পেয়েছেন, অন্যরা না পেলে তা বৈষম্য হয়। তবে যদি দেশের স্বার্থে শুল্ক বসানোর প্রস্তাব পাস হয়, তাহলে তিনি করের টাকা জমা দিয়ে আসবেন।

 

সায়েদুল হক বলেন, ‘এই সংসদে আমার বিরুদ্ধে একজন মাননীয় সংসদ সদস্য অভিযোগ দিয়েছেন। আমি বরাদ্দের তথ্য ফেসবুকে দিয়ে দিয়েছি। ২৫ কোটি টাকার কথা বলা হয়েছে। আমি যত বরাদ্দ পেয়েছি, এমপি হিসেবে তার ট্রাস্টি আমি। এই টাকা জনগণের। জনগণের এটার বিষয়ে জানার অধিকার আছে। আপনি যে বরাদ্দ পাবেন, নতুন প্রজন্ম তা জানতে চায়। সেটা জানার অধিকার জনগণের আছে।’

 

 

পূর্বকোণ/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট