চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০২৪

সর্বশেষ:

অনন্য সম্মাননা পেলেন গৃহপরিচারিকা আনোয়ারা

অনলাইন ডেস্ক

৯ জুন, ২০২৪ | ১০:৩২ অপরাহ্ণ

যুবতী বয়সে শুরু করেন বুয়ার কাজ। দেখতে দেখতে আনোয়ারা বেগম হোকনের ওই বাড়িতেই কেটে গেল দীর্ঘ ৩৬টি বছর। অবশেষে এল বিদায়ক্ষণ। যেই বাড়িতে কাজ করেছেন সেই বাড়ির কর্তারাও ভোলেননি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করতে। হোকনের বিদায় বেলাকে স্মরণীয় করে রাখতে ওই পরিবার আয়োজন করে বিদায় সংবর্ধনার। কেক কেটে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেছেন তারা।

 

এদিকে বিষয়টি ফেসবুকে জানাজানি হওয়ার পর রীতিমত ভাইরাল। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সেক্রেটারি তাহসিনা আফরিনের লেখাটি হুবহু দেয়া হল-

 

ছোটবেলায় বুঝ হবার পর থেকে জেনেছি আমাদের পরিবারে সদস্য সংখ্যা সাতজন। বাবা-মা-ভাই বোন-দাদু আর বুয়া।

 

আমাদের বুয়া, আনোয়ারা বেগম আম্মুর কাছে আসেন যখন আমার দাদী ভীষণ বৃদ্ধ, চলৎশক্তিহীন ছিলেন আর তানিয়া একদম নতুন হওয়া বাবু। আম্মু তখনো অনার্সের ছাত্রী। এরপর কেটেছে ৩৬ বছর! বুয়া আমাদের ছেড়ে কোথাও যাননি।

 

বুয়া ছিলেন কিছুটা বুদ্ধিতে খাটো এবং খেয়ালি। নানা কারণে স্বামী তাকে পরিত্যাগ করেছিল, একটা মেয়ে ছিল তাকেও পালক দিয়ে দিয়েছিল। ফলে তিনি ছিলেন একা। আমাদের বাসায় কাজে এসেও তিনি আজন্ম নিজের খেয়াল খুশি মত কাজ করতেন, কাউকেই সেভাবে মানতেন না, সারাদিন পান চিবানো, তুচ্ছ কারনে চেচিয়ে পাড়া জাগানো- এসব ছিল তার স্বভাব! আম্মু কলেজ থেকে ফিরলে আমাদের সারাদিনের কর্মকাণ্ড আম্মুকে জানিয়ে দেয়ার কারণে ছোটবেলায় বুয়াকে সহ্যই হত না! কিন্তু বড় হতে হতে বুঝেছি, আমাদের বাসায় আসলে বুয়া ছিলেন একটা গুরুত্বপূর্ণ পিলারের মতন। তাই আম্মু এত শত সমস্যার পরেও বুয়াকে আগলে রেখেছেন। এবং এখন একজন কর্মজীবী নারী হিসেবে বুঝি, বাসায় একটা বিশ্বস্ত সহচর পাওয়া কত বড় নেয়ামত।

 

বুয়া এই ৩৬ বছরে কত কি করেছেন আমাদের জন্যে! আম্মু পড়াশোনা শেষ করলেন, বিসিএস দিলেন, আমাদের একটা নতুন ভাই হল, আম্মু জবে জয়েন করলেন, আমরা স্কুল পেরিয়ে বড় হচ্ছিলাম, ২০০০ সালে দাদী মারা গেলেন, আম্মু চট্টগ্রাম-ফেনী-ঢাকার একাধিক পোস্টিং প্লেসে কাজ করলেন, আর আমাদের ‘আম্মুর বাসা’ আগলে রাখলেন আমাদের বুয়া। যে কোন সময় মায়ের বাসায় এলেই হত, কারণ দরজা খোলার মানুষটা অন্তত ছিল!

 

এখন খাগড়াছড়ির রামগড়ে, বুয়ার পরিবার দিনে দিনে আর্থিকভাবে বেশ সচ্ছল হয়েছেন। তারা বুয়ার খোঁজখবর নিয়মিত নিতো। তারা চাইতো না তিনি আর কাজ করুক। এরপরেও আরো দশ বছর বুয়া নিজের আগ্রহেই রয়ে গেলেন আমাদের সাথে। কখনো রূপকথার টানে, কখনো শেহজাদ, আর কখনো আনন্দের বিয়ে দেখে যাবার ইচ্ছেয়।

 

অবশেষে বুয়ার যাবার সময় হল। শরীরের শক্তি থাকতে থাকতে তাকে তার মত করে বাকি জীবন প্রিয়জনের সাথে থাকার জন্যে আম্মু আব্বু প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করে দিলেন। বুয়ার পরিবারও তাকে আদরে সাদরে টেনে নিলো। আমাদের আম্মুর বাসাটা, বুয়ার চেচামেচি-হইচই আর সরব উপস্থিতি বিনে একদম শুনশান শুনায় এখন!

 

গত মা দিবসে আম্মু বুয়ার জন্যে একটা ছোট্ট ফেয়ারওয়েল পার্টির আয়োজন করলেন। ব্যানার বানালেন, আমাদের সবাইকে ইনভাইট করলেন, বুয়ার জন্যে আলাদা করে অনেক গিফট কিনলেন। আমরা সবাই মিলে তার অপরিসীম অবদানের কৃতজ্ঞতা প্রকাশের সুযোগ নিলাম। এরপর স্বজনদের কাছে তাকে পৌঁছে দিয়ে এসেছেন আম্মু নিজে। দীর্ঘদিনের সারথিকে বিদায় দিতে আম্মুর চোখে বার বার পানি দেখেছি।

 

আমাদের বুয়াকে তার গ্রামের লোকজন অপদার্থ ভেবে এক সময় তুচ্ছ করেছে। তার জীবনটা পৃথিবীর কোথাও কোন কাজে লাগবে, কেউ গ্রাহ্য করেনি। কিন্তু আমরা জানি, আমাদের পাঁচজনের এই পরিবারে বুয়ার কত অবদান, আমাদের দাদীর বৃদ্ধ সময়টায় বুয়ার কত অবদান। এমন নিভৃতে অন্যের জীবনে আলো ধরে যাওয়া মানুষগুলোকে আল্লাহ উত্তম প্রতিদান দিক।

 

আমাদের আদরের বুয়ার অবসর সময় অনেক ভালো কাটুক।

 

 

পূর্বকোণ/জেইউ/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট