চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪

সর্বশেষ:

স্টিল সিমেন্ট এনার্জি খাতে বাংলাদেশ আশাবাদী

অনলাইন ডেস্ক

৩০ মে, ২০২৪ | ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

কাঁচামাল আমদানি শর্টেজ, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে নীতি সহায়তা, আন্তঃরি- জিওনাল সহযোগিতা এবং টেকসই অনুশীলনের মাধ্যমে অবকাঠামো এবং শিল্পে উন্নয়ন সম্ভব বলে মনে করেন ব্যবসায়ী নেতারা। স্টিল, সিমেন্ট এবং এনার্জি খাতে বাংলাদেশের কঠিন চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনার কথাও তুলে ধরেছেন। স্টিল এবং সিমেন্টের ব্যাপক চাহিদার কথা উল্লেখ করে এই খাতে বিশেষ নজর দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

ঢাকার প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে অনুষ্ঠিত হয় দুই দিনব্যাপী চতুর্থ আন্তর্জাতিক ট্রেড সামিট। বাংলাদেশ এবং ভারতের যৌথ উদ্যোগে সামিটের আয়োজন করা হয়।

 

ভারতের বিগমিন্ট থেকে সুমিত আগারওয়াল এবং বাংলাদেশের আহমেদ এন্টারপ্রাইজের দিলশাদ আহমেদ যৌথভাবে সামিটের আয়োজন করে। এতে বাংলাদেশ-ভারত ছাড়াও আমেরিকা, জাপান, জার্মান, অস্ট্রেলিয়া, ইতালি, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, ইউএই, পাকিস্তান, নেপাল ভুটানসহ ২৯টি দেশের ৫০০ প্রতিনিধি অংশ নিয়েছেন। সামিটের প্রথমদিনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন। উদ্বোধক ছিলেন পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। সামিটে স্টিল, সিমেন্ট ও এনার্জি বিষয়ে পৃথক সেশনে সংশ্লিষ্ট খাতের সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলেন ব্যবসায়ীরা। তারা মনে করেন, অর্থনৈতিক নানা বাধার পরও এসব খাতে বাংলাদেশ আশাবাদী।

 

সামিটে বাংলাদেশে নিযুক্ত নরওয়ের রাষ্ট্রদূত এসপেন রিক্টার সোভেনডসেন, বিএসআরএমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমির আলী হুসেন, রহিম স্টিলের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসিন, পিএইচপি ফ্যামিলির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন, বিএসএমএ মহাসচিব ও আরআরএম চেয়ারম্যান সুমন চৌধুরী, রুয়েটের উপাচার্য মো. জাহাঙ্গীর আলম, অর্থনীতিবিদ ও বিএইচবিএফসি চেয়ারম্যান সেলিম উদ্দিন, পিএইচপি ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ আমির হোসেন সোহেল, সালাম স্টিলের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম, সিএসআরএমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শাহজাহান; জেডএসআরএমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম, রহিম স্টিলের নির্বাহী পরিচালক মারুফ মহসিন উপস্থিত ছিলেন।

 

দুইদিনের সামিটে ১৭টি সেশন অনুষ্ঠিত হয়; সেখানে বিশেষজ্ঞরা স্টিল, সিমেন্ট, পাওয়ার এবং এনার্জি, জাহাজ রিসাইক্লিং সহ ভারী শিল্পের চ্যালেঞ্জ এবং সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন। প্রথমবারের মত এই সামিটে সফলতার গল্প নিয়ে বিশেষ একটি সেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে পিএইচপি ফ্যামিলির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সুফি মোহাম্মাদ মিজানুর রহমান তার ব্যবসায়ী জীবনের সফলতার পেছনের গল্প তুলে ধরেন। কিভাবে ১০০ টাকা থেকে শুরু করে আজকের বিলিয়ন টাকার গ্রুপে রূপান্তর করেছেন সেই অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন। তৃতীয় প্রজন্ম বা যারা ব্যবসায় তাদের দাদার অবস্থানে আছেন সেই তরুণ উদ্যোক্তাদের নিয়ে আরেকটি সেশন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে তারা কিভাবে তাদের দাদার ব্যবসার প্রসার ঘটাতে চান; সেই পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

 

সাম্প্রতিককালে পরিবেশগত এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় উল্লেখযোগ্য উন্নতিসহ বাংলাদেশের জাহাজ ভাঙা শিল্প ভারত ও পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। স্বাস্থ্য সুবিধা এবং কর্মীদের জন্য বীমা উল্লেখযোগ্য নজির স্থাপন করেছে। অর্থনৈতিক অস্থিরতার কারণে ১৩০টির বেশি শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সিমেন্ট সেক্টরে কাঁচামাল সংগ্রহের চ্যালেঞ্জ এবং উৎস বৈচিত্র’ শীর্ষক চূড়ান্ত অধিবেশনে বাংলাদেশের সিমেন্ট খাতের বিশ্বব্যাপী খ্যাতি তুলে ধরা হয়।

 

 

পূর্বকোণ/সাফা/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট