চট্টগ্রাম শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

সর্বশেষ:

উৎকণ্ঠা দূর হোক আসুক স্বস্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক 

১ জানুয়ারি, ২০২৪ | ১২:১৫ অপরাহ্ণ

পশ্চিমাকাশে সূর্যাস্তের মধ্য দিয়ে যবনিকা পড়ল একটি বছরের। ক্যালেন্ডারের পাতা থেকে বিদায় নিল ২০২৩। পূর্বাকাশে নতুন সূর্যোদয়ের মধ্য দিয়ে হাজির হলো আরেকটি নতুন বছর।  অতীতের ঘরে জমা হওয়া দুঃখ-হতাশা ক্ষোভ-ভুলকে দূরে ঠেলে নতুনভাবে এগোনোর বার্তা নিয়ে হাজির হলো ২০২৪।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ২০২৩ জুড়েই উত্তপ্ত ছিল দেশের রাজনীতি। একপক্ষের হরতাল-অবরোধে অস্থিরতা তৈরি হয় ব্যবসায়-বাণিজ্যে। অন্যপক্ষের নির্বাচনী প্রচারণায় সংঘাত-হানাহানিতে উৎকণ্ঠা বাড়ে মানুষের মধ্যে। তাই নতুন বছরে সবার প্রত্যাশা- দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের এ অস্থিরতা দূর হবে। দেশকে এগিয়ে নিতে সবাই কাজ করবেন একসঙ্গে।

মূল্যস্ফীতি ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি গত বছর সাধারণ মানুষকে অসহনীয় অবস্থায় ফেলেছে। নাভিশ্বাস উঠেছে নিম্নবিত্ত থেকে মধ্যবিত্ত- সবার। নতুন বছরে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম হাতের নাগালে না থাকলেও সহনীয় থাকবে- বাজারে সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য কমবে এটাই তাদের প্রত্যাশা। নতুন বছরে সাধারণ মানুষ অর্থনৈতিক অগ্রগতির সঙ্গে নিত্যপণ্যের বাজারে স্বস্তি চায়।

বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প চালুর বছর ছিল ২০২৩। রেলে চড়ে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের শহর কক্সবাজার ভ্রমণ, নদীর তলদেশ ছুঁয়ে নির্মিত বঙ্গবন্ধু টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েসহ মানুষের স্বপ্নের অনেক প্রকল্প চালু হয়েছে এ সময়। তবে এতো এতো উন্নয়ন প্রকল্পে ভিড়ে নতুন কালুরঘাট সেতুর নির্মাণকাজ শুরু না হওয়ায় অক্ষেপও ছিল নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের।

শিল্পায়নের জন্য বিনিয়োগবান্ধব অবকাঠামো জরুরি। এটি হলে নতুন নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর এ বছর পুরোদমে চালুর সম্ভাবনা রয়েছে। এটি হলে বিপুল জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান হবে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের পথে এগিয়ে যেতে দেশকে ‘স্মার্ট’ করার নানা প্রকল্প বাস্তায়িত হবে এ বছর। নতুন কারিকুলাম নিয়ে শিক্ষা-স্বাস্থ্য খাতও এগিয়ে যাবে নতুন লক্ষ্যে। ‘রোহিঙ্গা’ সমস্যার সমাধান শিগগির না হলেও এর স্থায়ী সমাধান কী হবে তা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন রয়েছে। বাংলাদেশের মানুষ রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান চায়। অন্যদিকে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনগত ঝুঁকিতে থাকা দেশ। তার মধ্যেই নদীদূষণ, দখল, পাহাড় ও গাছ কাটার মতো ঘটনা ঘটছেই। এসব বন্ধেও কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার তাগিদ রয়েছে নতুন বছরে।

২০২৩ এর সব উৎকণ্ঠা কাটিয়ে সঙ্গী হোক স্বস্তি। প্রতিবন্ধকতাকে ঠেলে শুভ হোক ২০২৪। বিদায় ২০২৩। স্বাগত ২০২৪।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা

খ্রিস্টীয় নতুন বছর উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে বলেছেন, উৎসাহ-উদ্দীপনা ও আনন্দের সমাহার নিয়ে নববর্ষের আগমন ঘটে। তাই বিগত দিনের ভুল-ভ্রান্তি, ব্যর্থতা ও হতাশাকে দূরে ঠেলে এগিয়ে যেতে হবে। নতুন ও ইতিবাচক পরিবর্তনকে গ্রহণ করতে প্রস্তুত থাকতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বাণীতে বলেন, আজ আমরা যে সময়কে পেছনে ফেলে নতুন দিনের আলোয় উদ্ভাসিত হতে যাচ্ছি, সে সময়ের যাবতীয় অর্জন আমাদের সম্মুখ যাত্রার শক্তিশালী সোপান হিসেবে কাজ করছে। তাই নতুন বছরের এই মাহেন্দ্রক্ষণ সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে নতুন নতুন সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে উন্নতির নতুন শিখরে আরোহণের সোপান রচনা করার অনুপ্রেরণা।

 

পূর্বকোণ/এসি

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট