চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪

বাইডেনের কথিত উপদেষ্টার জন্য ‘কনস্যুলার অ্যাক্সেস’ চেয়েছে মার্কিন দূতাবাস

অনলাইন ডেস্ক

৩০ অক্টোবর, ২০২৩ | ৮:২০ অপরাহ্ণ

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কথিত উপদেষ্টা গ্রেফতারকৃত মিয়া জাহিদুল ইসলাম আরেফীর বিষয়ে ‘কনস্যুলার অ্যাক্সেস’ (বিদেশে কোনও নাগরিক গ্রেপ্তার হলে তাকে সহায়তা দেওয়ার জন্য দূতাবাস থেকে  দেখা করার ইচ্ছা প্রকাশ) চেয়েছে ঢাকায় মার্কিন দূতাবাস। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম এ তথ্য জানিয়েছেন।

 

রবিবার (২৯ অক্টোবর) শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মিয়া জাহিদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সোমবার (৩০ অক্টোবর) আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

 

মার্কিন নাগরিকের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস থেকে যোগাযোগ করা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে সোমবার পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘মার্কিন দূতাবাস এ বিষয়ে ‘কনস্যুলার এক্সেস’ চেয়েছে। আমরা আমাদের আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’’

 

এর আগে রবিবার (২৯ অক্টোবর) রাতে রাজধানীর পল্টন থানায় তার বিরুদ্ধে বাদী হয়ে মামলা করেন মহিউদ্দিন শিকদার নামে গোপালগঞ্জের একজন বাসিন্দা। মামলায় আরেফী ছাড়াও বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেন এবং অবসরপ্রাপ্ত লে. জেনারেল হাসান সোরাওয়ার্দীকে আসামি করা হয়েছে।

 

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, শনিবার (২৮ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিক্ষোভ থেকে বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধ কর্মীরা কাকরাইল মোড় থেকে আরামবাগ পর্যন্ত পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। বিএনপির নেতাকর্মীরা প্রধান বিচারপতির সরকারি বাসভবন, সরকারি স্থাপনা ও সরকারি গাড়িসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ করে।

 

সংঘর্ষের ফলে পুলিশের ৪১ জন আহত ও একজন সদস্য নিহত হন। একপর্যায়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা বিকাল ৩টার দিকে মহাসমাবেশ স্থগিত ঘোষণা করেন। বিএনপির এই কর্মকাণ্ডের পরবর্তী সময়ে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শনিবার সন্ধ্যা আনুমানিক ৬টা থেকে ৭টার মধ্যে অন্তত ২০ জন নেতাকর্মী বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমের সামনে উপস্থিত হন। তখন এক নম্বর আসামি মিয়া জাহিদুল ইসলাম আরেফী ওরফে মিয়া আরাফী নিজেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা হিসেবে পরিচয় দেন।

 

 

পূর্বকোণ/আরআর/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট