চট্টগ্রাম শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২৪

সর্বশেষ:

শোষক শ্রেণির নিপীড়নের বিরুদ্ধে গণআন্দোলন

নিজস্ব প্রতিবেদক

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ

১৯৪০ সালে লাহোর প্রস্তাবের পর স্বাধীন দেশের স্বপ্নে বিভোর ছিল পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্টে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর পূর্ব বাংলার জনসাধারণ বুঝতে পারে তাদের ভাগ্যের কোন পরিবর্তন হয়নি। এটা কোন স্বাধীনতা নয়, এক শোষকের হাত থেকে অন্য শোষকের হাতে ক্ষমতা ন্যস্ত হয়েছে।

 

পাকিস্তান সৃষ্টির আগ থেকেই পূর্ব বাংলায় পশ্চিম পাকিস্তানের একটা প্রভাব চরম আকারেই ছিল। কারণ ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্রগঠন প্রক্রিয়ায় পূর্ব বাংলার মানুষরাও তাদের সাথে জোট বেধে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন করেছিল। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার কয়েক বছরের মধ্যেই পাকিস্তানিদের আসল চেহারা ফুটে ওঠে। কৃষিপ্রধান পূর্ব বাংলার কৃষক জনতার জীবন ছিল বহু সমস্যায় পরিপূর্ণ। সেগুলোর প্রতি কোনো দৃষ্টি ছিল না মুসলিম লীগ সরকারের।

 

এর মধ্যে দ্রব্যমূল্য মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যায়। পূর্ব বাংলায় ১৯৪৮, ১৯৪৯, ১৯৫০ এবং ১৯৫১ সালে দুর্ভিক্ষ, অপরদিকে পশ্চিম পাকিস্তানে বিলাসিতার জীবনযাপন। ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পাকিস্তানি শাসক ও শোষকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিবাদ গড়ে ওঠে এই পূর্ব বাংলায়। অবশ্য এর আগে পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে রাজশাহীর নাচোল বিদ্রোহ, ময়মনসিংহের টংক প্রথাবিরোধী বিদ্রোহ, সিলেটের নানকার প্রথাবিরোধী বিদ্রোহ হয়েছে।

 

পূর্ব বাংলার ভাষা আন্দোলনও তখনকার রাজনীতির সঙ্গে একই গ্রন্থিতে অবিচ্ছিন্নভাবে গ্রথিত এবং সেই অনুসারে পরস্পরের সঙ্গে নিবিড় ও গভীরভাবে একাত্ম। ১৯৪৮ থেকে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন মুষ্টিমেয় ছাত্র-শিক্ষক- বুদ্ধিজীবীর আন্দোলন নয়, তা শুধু শিক্ষাগত অথবা সাংস্কৃতিক আন্দোলনই ছিল না। বস্তুতপক্ষে তা ছিল পূর্ব বাংলার ওপর সাম্রাজ্যবাদের তাঁবেদার পাকিস্তানি শাসক ও শোষক শ্রেণির জাতিগত নিপীড়নের বিরুদ্ধে একটি বিরাট ও ব্যাপক গণআন্দোলন।

 

পূর্বকোণ/ জেইউ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট