চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০২৪

রাতেই বাতাসের বেগ বেড়ে ২২০ কিমি হতে পারে: ভারতের আবহাওয়া দপ্তর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৪ মে, ২০২৩ | ২:০৭ পূর্বাহ্ণ

ভারতীয় আবহাওয়া দপ্তর (আইএমডি) পূর্বাভাসে বলেছে, অত্যন্ত প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোখা আজ রাতে আরও শক্তি অর্জন করবে। এ সময় বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ২১০-২২০ কিলোমিটারে পৌঁছাবে। তবে উপকূলে আঘাত করার সময় বাতাসের বেগ কিছুটা কমবে।

ভারতীয় আবহাওয়া দপ্তর (আইএমডি) পূর্বাভাসে বলেছে, অত্যন্ত প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোখা আজ রাতে আরও শক্তি অর্জন করবে। এ সময় বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ২১০-২২০ কিলোমিটারে পৌঁছাবে। তবে উপকূলে আঘাত করার সময় বাতাসের বেগ কিছুটা কমবে।

আজ রাত সাড়ে ১০টায় দেওয়া এই পূর্বাভাসে আইএমডি জানিয়েছে, মোখা রোববার প্রতি ঘণ্টায় একটানা সর্বোচ্চ ১৮০-১৯০ কিলোমিটার গতির বাতাসের সঙ্গে কক্সবাজার এবং মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের উপকূল অতিক্রম করবে যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে।

তারা আরও বলেছে, মোখার অবস্থান এখন কক্সবাজার থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দূরে। ঘূর্ণিঝড়টি উপকূলের দিকে ঘণ্টায় ২২ কিলোমিটার বেগে এগিয়ে আসছে। আজ রাতে ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের আশপাশে বাতাসের একটানা বেগ বেড়ে ঘণ্টায় ২১০-২২০ কিলোমিটারে পৌঁছাবে যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২৪০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে। পরে বাতাসের বেগ কমে ঘণ্টায় ২০০-২১০ কিলোমিটার হবে যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে।

এর আগে বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের সন্ধ্যা ৬টার বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়, মোখার কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৮০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক আজিজুর রহমান বলেন, মূল ঝড়টি রোববার বিকেল ৩টা থেকে ৪টার মধ্যে বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানার সম্ভাবনা ৯০ শতাংশ।

ঘূর্ণিঝড়ের সময় বাতাসের গতিবেগ ৬২ থেকে ৮৮ কিলোমিটার হলে সেটি হয় সাইক্লোন বা ঘূর্ণিঝড়। বাতাসের গতিবেগ ৮৮ থেকে ১১৭ হলে তাকে বলা হয় প্রবল ঘূর্ণিঝড়। বাতাসের বেগ আরও বেড়ে ১১৭ থেকে ২২০ কিলোমিটার হলে তাকে বলা হয় অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়। আর ২২০ কিলোমিটারের ওপরে বাতাসের গতিবেগ উঠলে তাকে সুপার সাইক্লোন বলা হয়। সূত্র: দ্য ডেইলি স্টার

পূর্বকোণ/এএইচ

শেয়ার করুন