চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪

স্বাস্থ্যসম্মতভাবে লাল মাংস রান্না

অনলাইন ডেস্ক

৩ জুলাই, ২০২৩ | ৯:০৩ অপরাহ্ণ

মাংস কিভাবে রান্না করা হচ্ছে তার ভিত্তিতেও স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি বাড়তে পারে। সাধারণত প্রচুর পরিমাণে শুকনা মরিচের গুঁড়া, তেল ও মসলা দিয়ে কোরবানির মাংস রান্না করা হয়। মাংস যথেষ্ট সুস্বাদু করার চেষ্টা চলে। কিন্তু আমরা ভুলে যাই যে মাংসেও প্রাকৃতিক তেল রয়েছে, তাই অতিরিক্ত তেলে মাংস রান্না করা অযৌক্তিক বা অনুচিত।

এমনকি অতিরিক্ত মসলার ব্যবহারও কাম্য নয়। পেটের অস্বস্তি এড়াতে মাংস রান্নার উপকরণ সীমিত রাখতে হবে। এ ছাড়া রান্নার উপকরণে কিছু পরিবর্তনও মাংসকে স্বাস্থ্যকর করতে পারে, যেমন—শুকনা মরিচের গুঁড়ার পরিবর্তে কাঁচা মরিচ ব্যবহার করতে পারেন। মাংস রান্না হয়ে গেলে কিছু অলিভ অয়েল দিতে পারেন। এটি হজমে সাহায্য করে। তাড়াহুড়া করে মাংস রান্না করবেন না, আগে ভালোভাবে রক্ত দূর করে ফেলুন। অন্যথায় এটি পেটব্যথার কারণ হতে পারে।

নিয়ম মেনে মাংস গ্রহণ ও সঠিক উপায়ে রান্না করলে জটিলতামুক্ত থাকা যায়।

মাংস রান্নায় দৃশ্যমান জমানো চর্বি বাদ দিয়ে রান্না করতে হবে। কম তেলে রান্না করতে হবে।

১) রান্নার আগে সম্ভব হলে ৫-১০ মিনিট মাংস সিদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে নিলে চর্বির অংশ অনেকটা কমে যায়। উচ্চ তাপে রান্না করতে হবে।
২) মাংস রান্না করার সময় ভিনেগার, টক দই, পেঁপে বাটা, লেবুর রস ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারেন। এতে চর্বির ক্ষতিকর প্রভাব কিছুটা হলেও কমানো সম্ভব।
৩) যাদের উচ্চ রক্তচাপজনিত সমস্যা আছে বা কো-মরবিডিটি আছে, তারা একেবারেই না এড়াতে পারলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে দু-এক টুকরা খেতে পারেন। সে ক্ষেত্রে মাংস রান্নায় সবজি ব্যবহার করতে হবে। যেমন—কাঁচা পেঁপে, লাউ, চালকুমড়া, টমেটো কিংবা মাশরুম। কিংবা তাঁরা মাংসের সঙ্গে সবজি মিশিয়ে কাটলেট বা চপ করে খেতে পারেন।
৪) মাংস খাওয়ার সময় ঝোল বাদে খাওয়া ভালো। আবার ভুনা মাংসের পরিবর্তে কম তেলে গ্রিল, বারবিকিউ করে বা কাবাব করেও মাংস খাওয়া যায়।

পরামর্শ দিয়েছেন: নাহিদা আহমেদ, পুষ্টিবিদ, ফরাজী হাসপাতাল, বারিধারা।

 

পূর্বকোণ/সাফা/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট