চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪

সর্বশেষ:

নগরীর সরকারি কলেজে বিজ্ঞানে আসন সংকট

ভাল ফলাফলেও চিন্তার ভাঁজ

ইমরান বিন ছবুর

২০ মে, ২০২৪ | ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ

সদ্য প্রকাশিত এসএসসি পরীক্ষায় ভালো ফল করার পরও ‘ভালো কলেজে’ ভর্তি নিয়ে বরাবরের মত দুশ্চিন্তায় পড়েছেন বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক। এবার চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫ হাজার ৭৬৫ শিক্ষার্থী। কিন্তু এর বিপরীতে নগরীর ৭ সরকারি কলেজে বিজ্ঞানের আসন রয়েছে মাত্র ৩ হাজার ৫৯০টি। সে হিসেবে ২ হাজার ১৭৫ জন জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থী যা মোট জিপিএ-৫ পাওয়া ৩৮ ভাগ শিক্ষার্থী নগরীর সরকারি কলেজের বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তির সুযোগ পাবে না। সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়তে হলে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের বড় একটি অংশকে বিভাগ পরিবর্তন করতে হবে। অন্যথায় এসব শিক্ষার্থীদের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আগামী ২৬ মে থেকে একাদশে ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদন শুরু হবে। তিন ধাপে এই আবেদন চলবে ১১ জুন পর্যন্ত। আগামী ১৫ জুলাই থেকে ২৫ জুলাই পর্যন্ত ভর্তি কার্যক্রম চলবে। আর ক্লাস শুরু হবে ৩০ জুলাই থেকে। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটি ভর্তির আবেদন, ফল প্রকাশ, ভর্তি ও ক্লাস শুরু বিষয়ে এক বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল রবিবার এ তথ্য জানিয়েছে।

 

জানা যায়, জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের তুলনায় চট্টগ্রাম নগরী ও জেলায় সরকারি কলেজের আসন সংখ্যা তুলনামূলক কম। ফলে প্রতিবছর জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের বড় একটি অংশ সরকারি কলেজে ভর্তির সুযোগ পায় না। এবার এসএসসি পরীক্ষায় চট্টগ্রাম বোর্ড থেকে ১০ হাজার ৮২৩ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। জিপিএ-৫ এর তুলনায় সরকারি কলেজে আসন নেই। তবে শিক্ষার্থী পাসের তুলনায় যথেষ্ট আসন রয়েছে বলে জানান শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর জাহেদুল হক।

 

শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা শাখা সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬ হাজার ৪৪৬ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫ হাজার ৭৬৫ জন, মানবিক বিভাগ থেকে ৩৬ জন এবং ব্যবসায় শিক্ষা থেকে ৬৪৫ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর বিপরীতে নগরীর ৮টি সরকারি কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১০ হাজার ১০০টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৩ হাজার ৫৯০টি, ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ৩ হাজার ৭৭০টি এবং মানবিক বিভাগের আসন সংখ্যা ২ হাজার ৭৪০টি।

 

অন্যদিকে, চট্টগ্রাম নগরীর বাইরে বিভিন্ন উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ৬৮৮ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ২৬০ জন, মানবিক বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬১ জন এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৬৭ জন শিক্ষার্থী।

 

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর মো. জাহেদুল হক বলেন, গতবছরও কলেজের সক্ষমতা বিবেচনা নগরীর দুই সরকারি কলেজের বিজ্ঞান ও বাণিজ্য বিভাগে ১৫০টি আসন বাড়ানো হয়েছে। চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান বিভাগে ১১০টি, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ১০টি এবং চট্টগ্রাম সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান বিভাগে ৩০টি আসন বাড়ানো হয়েছে। এবছর আর আসন বাড়ানোর সুযোগ নেই।

 

এছাড়া, এবছর নগরীর ৮টি সরকারি কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১০ হাজার ১০০টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৩ হাজার ৫৯০টি, ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ৩ হাজার ৭৭০টি এবং মানবিক বিভাগের আসন সংখ্যা ২ হাজার ৭৪০টি।

 

কোন কলেজে কত আসন:

চট্টগ্রাম সরকারি কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৪০টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৬৬০টি এবং মানবিক বিভাগে ৩৮০টি। সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৭২৫টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৬৬০টি, ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ৬১৫টি এবং মানবিক বিভাগে ৪৫০টি। সরকারি কমার্স কলেজে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ৯৭০ আসন রয়েছে। চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজে দুই শিফটে (দিবা ও নৈশ) মোট আসন সংখ্যা ২ হাজার ১৮০টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে (দিবা) ৬৬০টি, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের দিবা ও নৈশ শাখায় ৩৮০টি করে আসন রয়েছে। এছাড়া, মানবিক বিভাগের দিবা ও নৈশ শাখায় ৩৮০টি করে আসন রয়েছে।

 

এছাড়া, চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৪০০টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৫০০টি, ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ৫০০টি এবং মানবিক বিভাগে ৪০০টি আসন রয়েছে। বাকলিয়া সরকারি কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৪৩৫টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৪৬০টি, ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ৫২৫টি এবং মানবিক বিভাগে ৪৫০টি। চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৩০০টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ২০০ এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ১০০টি আসন রয়েছে। চট্টগ্রাম সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৫০টি। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৪৫০টি, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক শাখায় ৩০০টি করে আসন আসন রয়েছে।

পূর্বকোণ/পিআর 

শেয়ার করুন