চট্টগ্রাম বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

সর্বশেষ:

কমলনগরে মেঘনার অর্ধেক বাঁধ নদীগর্ভে

নিজস্ব প্রতিবেদক

৭ মে, ২০১৯ | ৬:২৩ অপরাহ্ণ

নোয়াখালীর লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে মেঘনা নদীর ভাঙন রক্ষা রোধের বাঁধটির প্রায় অর্ধ কিলোমিটার নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। মাতাব্বর হাট এলাকার ১ কিলোমিটার দীর্ঘ ওই বাঁধটি এর আগে বেশ কয়েকবার ধসের সম্মুখীন হয়। এবার তা ভাঙনের মুখে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে উৎকণ্ঠায় রয়েছে এলাকাবাসী।

২০১৪ সালে ১৯৮ কোটি টাকা বরাদ্দে মেঘনা নদীর তীর রক্ষা বাঁধের কাজ শুরু করে সরকার। বরাদ্দকৃত টাকায় কমলনগরে এক কিলোমিটার, রামগতির আলেকজান্ডারে সাড়ে তিন কিলোমিটার ও রামগতিরহাট মাছঘাট এলাকায় এক কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়।কমলনগরে বাঁধ নির্মাণ শেষে গত দেড় বছরে বেশ কয়েকবার ধস নামে। মাতাব্বরহাট এলাকায় তীর রক্ষা বাঁধের ধসে যাওয়া বিভিন্ন অংশে ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, গত দেড় বছরে অন্তত আট থেকে দশবার ধস নেমেছে তীর রক্ষা বাঁধে ।  অনিয়ম ও নিন্মমানের কাজ করায় ওই বাঁধে বারবার ধস নামে।  দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ শুরু না হওয়ায় এবং বাঁধে ধস নামার পর প্রয়োজনীয় যথাযথ উদ্যোগ না নেয়ায় ওই এক কিলোমিটার বাঁধ এখন বিলীন হওয়ার পথে। ভাঙন ঠেকানো না গেলে পুরো বাঁধ বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। নদীর ঢেউ আর জোয়ারের পানির আঘাতে ব্যাপকভাবে ভাঙছে বাঁধ। এতে অরক্ষিত হয়ে পড়ছে কমলনগর। বাঁধটি ভেঙে গেলে উপজেলা কমপ্লেক্সসহ সরকারি বেসরকারি বহু স্থাপনা হুমকিতে পড়বে । এলাকাবাসীর আশঙ্কা, দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে বাঁধের ভাঙন থেকে পুরো এলাকায় বন্যা দেখা দিতে পারে।

খবর পেয়ে বাঁধে ভাঙনের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্রপাল, লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মূসা ও কমলনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইমতিয়াজ হোসেন।

লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মুসা বলেন, বাঁধ রক্ষায় চেষ্টা চলছে। ধস ও ভাঙন ঠেকাতে জিও ব্যাগ (বালুভর্তি বিশেষ ব্যাগ) ডাম্পিং করা হয়েছে।

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট