চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪

দুই মিনিটেই ছিনতাই করা মোবাইলের আইএমইআই বদল, মূলহোতা ধরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ | ৩:৩০ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামে চুরি ও ছিনতাই হওয়া মোবাইলগুলো ছিনতাইকারীদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে ২ মিনিটেই আইএমইআই নম্বর বদলে দেওয়া চক্রের মূলহোতা মো. সরোয়ার হোসেন সুজনকে (৩১) গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ।

 

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) পাহাড়তলী থানাধীন মৌসুমী আবাসিক এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযানে আইএমইআই বদল করা অবস্থায় ৫২টি বিভিন্ন ব্রান্ডের মোবাইল সেটসহ ঐ কাজে ব্যবহৃত ২টি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়।

 

আজ বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেন মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মো. মান্নান।

 

তিনি জানান, গ্রেপ্তার সরোয়ার আইএমইআই পরিবর্তনের জটিল কাজগুলো টিম ভিউয়ার সফটওয়্যারের মাধ্যমে পাকিস্তানি ও ইন্দোনেশিয়ান এক্সপার্ট দিয়ে করাতেন। গতকাল রাতে নগরীর পাহাড়তলীর মৌসুমী আবাসিক এলাকার নিজ বাসায় অভিযান চালিয়ে আইএমইআই বদলে দেওয়ার মূল হোতা সরোয়ারকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার কাছে পাওয়া যায় ২টি ল্যাপটপ এবং ৫২টি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোবাইল সেট।

 

জিজ্ঞাসাবাদে আসামি জানায়, আইএমইআই বদলের জন্য প্রায় ৫০ হাজার টাকা বিনিময়ে দুটি সফটওয়্যার ক্রয় করে ল্যাপটপ ইন্সটল করে। এরপর ওই সফটওয়্যার ব্যবহার করে ২ মিনিটেই আইএমইআই খুব সহজে বদল করে ফেলেন।

 

গ্রেপ্তার সরোয়ার আইটি বিষয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার নিয়ে লেখাপড়া করেছেন। সে আগে একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। সে ইন্টারনেটে বিভিন্ন ভিডিও দেখতে দেখতে বিদেশি নাগরিকের সাথে পরিচয় হয়। একপর্যায়ে এই বিদ্যাটা আয়ত্তে এনে সাড়ে তিনমাস ধরে নিজ বাসা থেকে এই কাজ করতেন।

 

প্রতিদিন তিনি ৫/৬০টি মোবাইল এভাবে আইএমইআই বদল করে থাকেন। নগরীর অলঙ্কার শপিং কমপ্লেক্সে নিজের দোকান ও অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে বিক্রি করেন। মোবাইলগুলো চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে চুরি, ছিনতাই বা পকেটমারদের নিকট হতে কম দামে ক্রয় করে এভাবে মোবাইলের আইএমইআই বদলে প্রতিদিন মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতেন।

 

এর মধ্যে অত্যধুনিক মোবাইলগুলোর আইএমইআই বদলের জটিল কাজগুলো পাকিস্তানি বা ইন্দোনেশিয়ান এক্সপার্টদের ডলার পে করার মাধ্যমে করতেন। মোবাইলের আইএমইআই পরিবর্তনের কাজ কারো কাছ থেকে নিলে প্রতি মোবাইলে ১ থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত নিতেন।

 

গ্রেপ্তার সরোয়ার আরও বলেন, আগে এই কাজে ছিলাম না। এই কাজ করবো এমন মানসিকতা ছিল না। বিভিন্ন ভিডিও দেখতে দেখতে এক একপর্যায়ে বিদেশি এক্সপার্টদের সাথে পরিচয় হয়। তারপর কাজগুলো করি। নিজে চোরাই মোবাইল ক্রয় করে তারপর আইএমইআই পরিবর্তন করে বিক্রি করতাম।

পূর্বকোণ/পিআর/এএইচ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট