চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪

রাস্তা-ফুটপাত দখল করে জনদুর্ভোগ কাম্য নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ | ১২:২৫ অপরাহ্ণ

রাস্তা, ফুটপাত দখল করে মানুষের চলাফেরায় বিঘ্ন বা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করা কারো কাম্য নয়। রাস্তায় যানবাহন চলাচল করবে এটাই হচ্ছে নিয়ম। তবে পৃথিবীর প্রায় দেশেই হকার রয়েছে। নীতিমালার মাধ্যমে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নির্দিষ্ট স্থানে বসে। হকাররাও মানুষ। বিভিন্ন দল ও মতের মানুষ রয়েছে। তাদের জীবন-জীবিকা নির্বাহে মানবিক দিক বিবেচনা করে বিকল্প ব্যবস্থা করে উচ্ছেদ করলে ভালো হতো। তিনি বলেন, সিটি করপোরেশন, প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, হকার-ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের সঙ্গে বসে ঐকমত্যের ভিত্তিতে নীতিমালার আওতায় আনা যায়। সরকার ও প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণাধীন নীতিমালার মধ্যে আনা হলে মানবিকভাবে উপকৃত হবে হকাররা।

উপরিউক্ত মতামতগুলো তার ব্যক্তিগত মতামত বলে জানিয়ে সাবেক সংসদ সদস্য নোমান আল মাহমুদ বলেন, উচ্ছেদ করার পর হকাররা সম্মিলিতভাবে দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। দলীয় ফোরামে অনেকেই মানবিক দিক বিবেচনায় বিকল্প উপায়ে হকারদের পুনর্বাসনের কথা বলেছেন। তবে দলীয়ভাবে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।

 

উল্লেখ্য, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি হকাররা নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গেও দেখা করেছেন। এ সময় তিনি বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ সরকার জনবান্ধব সরকার। ধনী-গরিব নির্বিশেষে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের স্বার্থ সুরক্ষা করে। গরিব মানুষের মৌলিক অধিকার সুরক্ষা ও কর্মসংস্থানকে গুরুত্ব দেয়। ফুটপাতের হকাররাও সমাজ-রাষ্ট্রের নাগরিক। বেকারত্ব ও কর্মসংস্থানের অভাবেই তারা ফুটপাতে ব্যবসাপাতি করে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতে বাধ্য হচ্ছে। তবে হকারদের কারণে ফুটপাতে চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা বিঘ্নিত হচ্ছে। তাই হকারদের নিয়মনীতি-শৃঙ্খলা ও আইন-কানুন মেনে ব্যবসাপাতি করা এবং ফুটপাতের পাশে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বার্থও বিবেচনা করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

পূর্বকোণ/পিআর 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট