চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

সর্বশেষ:

দৈনিক পূর্বকোণের ৩৯ বছরে পদার্পণ উপলক্ষে জমকালো আয়োজন

সম্মিলিত প্রয়াসে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ | ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ

সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায়, একই উদ্যমে দেশসেরা আঞ্চলিক দৈনিক পূর্বকোণ এগিয়ে যাবে বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন দি পূর্বকোণ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও দৈনিক পূর্বকোণ প্রকাশক জসিম উদ্দিন চৌধুরী এবং সম্পাদক ডা. ম. রমিজউদ্দিন চৌধুরী।  বর্ষপূর্তি উপলক্ষে এবারও নানা আনন্দ-আয়োজনে ও প্রাণোচ্ছ্বাসে মেতে ওঠে পূর্বকোণ পরিবার। আড্ডা, নানা স্মৃতিচারণ, কথামালা, সংগীত পরিবেশনা ও নেচে গেয়ে প্রাণোচ্ছ্বলতায় মাতেন পরিবারের সদস্যরা। 
গতকাল শুক্রবার রাত ৮টায় পূর্বকোণ প্রাঙ্গণে বর্ষপূর্তির জমকালো অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন দি পূর্বকোণ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও দৈনিক পূর্বকোণ প্রকাশক জসিম  উদ্দিন চৌধুরী। তিনি বলেন, সাংবাদিকসহ সবার উদ্দেশে তিনি বলেন, পূর্বকোণ ৩৮ বছর সম্পন্ন করে ৩৯ বছরে পদার্পণ করছে। এর কৃতিত্ব আপনাদেরও। আপনাদের কারণেই এই ৩৮ বছর অতিক্রম করতে পারা। আপনাদের নিরলস পরিশ্রম, শুরু থেকে যারা ছিলেন, তাদের অবশ্য অনেকে এখন নেই। আপনারা সবাই এটার পেছনে খেটেছেন বলেই আজকে পূর্বকোণ সবার সেরা। আমি আশা করব, আপনারা আগে যেভাবে অক্লান্ত পরিশ্রম করে পূর্বকোণকে এগিয়ে নিয়েছেন, ভবিষ্যতেও একইভাবে পরিশ্রম করে পূর্বকোণকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। 
পূর্বকোণ সম্পাদক ডা. ম. রমিজউদ্দিন চৌধুরী বলেন, প্রতিবারের মত আমরা আজ একসঙ্গে হয়েছি এই আনন্দ আয়োজনে। সঙ্গে আমাদের চেয়ারম্যানসহ অনেকে আছেন। এমন মনোমুগ্ধকর আয়োজনের পেছনে যারা শ্রম দিয়েছেন, পূর্বকোণের যে টিম কাজ করেছে, তাদের সকলকে ধন্যবাদ। 
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হবে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কাল (আজ শনিবার) থেকে ‘পরিকল্পিত চট্টগ্রাম নগরী: চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক ধারাবাহিক বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ হবে। এর পেছনে অনেক কাজ আছে, অনেক কাজ হয়েছে, যা প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সবচেয়ে কঠিন কাজ। এটার সঙ্গে যারা  জড়িত, তাদের অনেক ধন্যবাদ। 
প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে পূর্বকোণের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, এই প্রতিষ্ঠানে আমরা দুইভাই আছি, আমাদের মধ্যে নেই আমার বাবা মোহাম্মদ ইউছুৃফ চৌধুরী এবং আমার বড়ভাই স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরী। তাঁদের শ্রদ্ধায় স্মরণ করি। তাঁদের সবারই প্রচেষ্টা আছে এটার পেছনে। এছাড়াও যারা এখানে ছিলেন, যারা আমাদের মধ্যে নেই তাদের আমি স্মরণ করি। আর যারা আমাদের পত্রিকায় নেই, তাদেরও আমরা স্মরণ করি। কারণ সবার অবদান ছিল পূর্বকোণকে এগিয়ে নেওয়ার, মুজিববর্ষে দেশসেরা আঞ্চলিক দৈনিকের স্বীকৃতি পাওয়ার। 
পূর্বকোণ সবসময় ব্যতিক্রম কিছু করতে চায় উল্লেখ করে ডা. ম. রমিজউদ্দিন চৌধুরী বলেন, পূর্বকোণ সবসময় চায় গতানুগতিক ধারার বাইরে কিছু করার। আমাদের প্রতি সপ্তাহের মিটিংয়ে আমি এটা সবাইকে বলি। ইদানিং আপনারা লক্ষ্য করেছেন হয়ত, বেশ কয়েকজন আন্তর্জাতিক কলামিস্ট পূর্বকোণে লেখেন। তাঁদের লেখার মধ্যে অনেক কিছু পাওয়া যায়, অনেক মানসম্মত লেখা। ঢাকা থেকে, সিডনি থেকে, মেলবোর্ন থেকে লিখছেন। সবার প্রচেষ্টায় ইনশা’আল্লাহ আমরা এগিয়ে যাব। আশা করব আমাদের পরের প্রজন্ম এই ধারা অব্যাহত রাখবে। 
পূর্বকোণের সহ-সম্পাদক মিহরাজ উদ্দিন রায়হানের সঞ্চালনায় এসময় বক্তব্য রাখেন পূর্বকোণের নির্বাহী পরিচালক জাসির চৌধুরী ও জায়ির চৌধুরী। 
অতিথিদের বক্তব্যের পর শুরু হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এসময় বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রামের শিল্পী অদিতা সেন লিলি এবং শিল্পী আলাউদ্দিন তাহের গান পরিবেশনা করেন। বন্ধু কালাচাঁদ দিয়ে পরিবেশনা শুরু করেন শিল্পী অদিতা সেন লিলি। একে একে তিনি পরিবেশন করেন বন্ধে মায়া লাগাইছে, ইন্দোবালা গো, যদি সুন্দর এক্কেন মন পাইতাম নিঠুর বন্ধু, পাল তুলে দে, সখী গো আমার মন ভালো না’র মত জনপ্রিয় গান। শিল্পী আলাউদ্দিন তাহের ‘আমি যে কে তোমার’ গান দিয়ে শুরু করেন তার পরিবেশনা। একে একে তিনি পরিবেশন করেন কফি হাউজের সেই আড্ডাটা, ললিতা, উড়ালপঙ্খী, মধু হই হই বিষ হাওয়াইলা, সময় গেলে সাধন হবে না’র  মত জনপ্রিয় গানগুলো। এসময় দর্শকদের অনুরোধে কইলজার ভিতর গাঁথি রাইক্কুম গানটির ডুয়েট পরিবেশন করেন দুই কৃতী শিল্পী।
পূর্বকোণ/পিআর 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট