চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

সর্বশেষ:

তরুণ ভোটাররা চান স্থানীয় সমস্যার সমাধান-কর্মসংস্থান

মরিয়ম জাহান মুন্নী

৩০ ডিসেম্বর, ২০২৩ | ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ

আর কয়েক দিন পরই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। বর্তমান তরুণ প্রজন্ম ও নতুন ভোটাররা কি ভাবছেন এবারের ভোট নিয়ে? চট্টগ্রামের এক দল তরুণ ভোটারের সাথে কথা বলে জানা যায়- দলমত নির্বিশেষে দেশের উন্নয়নে কাজ করবেন, শিক্ষিত তরুণদের বেকারত্ব দূরীকরণ ও নারী উন্নয়নে যিনি কাজ করবেন- তিনিই পাবেন তরুণদের রায়।

 

চট্টগ্রাম-৮ আসনের ভোটার এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী জাবেদ হোসেন বলেন, ভোটাধিকারের মাধ্যমে আমরা শুধু কোনো রাজনৈতিক নেতা নির্বাচিত করি তা নয় বরং পাঁচ বছরের জন্য একজন অভিভাবককেই নির্বাচিত করি। আমি এবারই প্রথম ভোট দিব। একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে আমার পছন্দে থাকছে শিক্ষিত তরুণ প্রার্থী। যিনি দেশের তরুণ প্রজন্মকে নিয়ে কাজ করবেন। বিশাল জনগোষ্ঠীকে জনসম্পদে পরিণত করতে ভূমিকা রাখবেন।

 

চট্টগ্রাম-১ আসনের ভোটার এবং শিক্ষক আহমেদ শাহিনুর হাসান ভুঞাঁ বলেন, একজন নাগরিক হিসেবে আমার চাওয়া ভোটকেন্দ্রে যেন সাধারণ মানুষ গিয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারে। দেশের অনেক উন্নয়ন হয়েছে, সামনে আরো হবে। কিন্তু এ দিয়ে আমাদের মত সাধারণ মানুষের পেট ভরে না। ভোগ্যপণ্যের দামের পাগলা ঘোড়াটির সাথে সাধারণ মানুষ কোনোভাবেই দৌড় প্রতিযোগিতায় তাল মেলাতে পারছে না। দেশের সাধারণ মানুষ যেন তিন বেলা ডাল-ভাত খেয়ে বাঁচতে পারে সেই পরিস্থিতি তৈরি করে দিতে হবে। কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে।

 

চট্টগ্রাম-৮ আসনের ভোটার সারোয়ার ফারুক ও আনজুমান আক্তার রুমি বলেন, আগামী নির্বাচনে প্রার্থীদের কাছে আমাদের একমাত্র চাওয়া কালুরঘাট সেতু নতুন করে নির্মাণ করা। এ সেতু আমাদের বোয়ালখালীবাসীর জন্য পুলসিরাতের মত। এলাকার বাসিন্দারা যারা চাকরি, পড়ালেখা, চিকিৎসার জন্য শহরে আসে তারাই জানে কষ্ট কী।

 

চট্টগ্রাম-৮ আসনের ভোটার গৃহিণী জান্নাতুর ফাহিম পলি বলেন, আমি নতুন ভোটার। যে কারণে ভোট নিয়ে আমার আলাদা একটা উৎসাহ আছে। কিন্তু জানি না আমি ভোট দিতে পারবো কি না। তবে আমি আমার নির্বাচনী এলাকায় শুধু নয়, সারাদেশে এমন প্রার্থীদের চাই যারা নারীদের উন্নয়নে, বেকারত্ব দূরীকরণে ও নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করবে।

 

চট্টগ্রাম-১০ আসনের ভোটার এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাবিলা ইবনাদ বলেন, স্বাধীনভাবে ভোট দিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে চাই। সব জায়গায় প্রভাব খাটানো ভালো লাগে না। আমাদের শহরে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। কিন্তু এ শহরের সবচেয়ে বড় সমস্যা জলাবদ্ধতা। এ নিয়ে খুব একটা কাজ হয় না। আমি চাই এবারের নির্বাচনে শুধু আমার এলাকার প্রার্থীর কাছেই নয়, বরং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে যত এমপি নির্বাচিত হবেন সবাই যেন জলাবদ্ধতা নিরসনে এক সাথে কাজ করেন।

পূর্বকোণ/পিআর 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট