চট্টগ্রাম শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪

সর্বশেষ:

মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে ২ ব্যক্তির আমৃত্যু কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক

৪ অক্টোবর, ২০২৩ | ১১:২০ অপরাহ্ণ

নগরীর বাদুরতলা শাহ আমানত হাউজিং সোসাইটি এলাকায় নয় বছরের মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে দুই আসামিকে আলাদা ধারায় দু’বার আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বুধবার (৪ অক্টোবর) দুপুরে চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক ফেরদৌস আরা এ রায় দেন। রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেন বেঞ্চ সহকারী কফিল উদ্দিন।

দণ্ডিতরা হলেন, মো. জীবন (২৫) ও ইমন হাসান (২৬)। রায় ঘোষণার সময় আসামি দুইজন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তাদের সাজা পরোয়ানামূলে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ১৩ জুন নগরের পাঁচলাইশ থানার বাদুরতলা শাহ আমানত হাউজিং সোসাইটির বাসিন্দা মো. সোলায়মানের মেয়ে সালমা আক্তার (৯) কেনাকাটার জন্য দোকানের উদ্দেশে বাসা থেকে বের হয়। দুপুর ২টার পরও বাসায় ফিরে না যাওয়ায় খোঁজাখুঁজি শুরু হয়। কিন্তু খোঁজ না মেলায় ওইদিন সন্ধ্যায় পাঁচলাইশ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন সোলায়মান। ১৪ জুন রাত পৌনে ৩টার দিকে সালমার মামা মহিউদ্দিন নঈমী মার্কেটের সামনে গেলে তার নাকে গন্ধ লাগে। বিষয়টি তিনি ভগ্নিপতি সোলায়মানকে জানান। এরপর পরিবারের সদস্যরা তিনতলা নঈমী ভবনের তৃতীয় তলায় সিঁড়িঘরের পাশে ময়লার স্তূপে কাঠের বাক্সের ভেতর থেকে প্রায় ৩৯ ঘণ্টার পর সালমার মরদেহ উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাত আসামি করে মামলা করা হয়। পুলিশ ওই বছরের ২২ জুন জীবন এবং পরদিন ইমনকে গ্রেফতার করে। নিহতের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে তাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার প্রমাণ পাওয়া যায়। পরবর্তীতে পুলিশ তদন্ত করে ২০১৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০১৮ বছরের ২৫ জুলাই আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। রাষ্ট্রপক্ষে ১৫ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। আসামি পক্ষে তিনজনের সাফাই সাক্ষ্য শেষে আদালত রায় দেন।

 

পূর্বকোণ/আরআর/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট