চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৩ মে, ২০২৪

সন্তু লারমার গানম্যানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৮ মে, ২০২৩ | ১২:০৫ অপরাহ্ণ

সরকারি কর্মচারী হয়েও এমএলএম ব্যবসার নামে সাধারণ গ্রাহকদের কাছ থেকে ১৪ কোটি ৬৪ লাখ ৪২ হাজার ৪৫ টাকা আত্মসাতের দায়ে সাবেক পুলিশ সদস্য টারজান খীসার (৪২) বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুদক।

 

গতকাল দুর্নীতি দমন কমিশন রাঙামাটি জেলা কার্যালয়ে মামলাটি দায়ের করা হয়। দুদক চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয়, চট্টগ্রাম-২ এর সহকারী পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

 

মামলার আসামি টারজান খীসা রাঙামাটি জেলার কোতোয়ালী থানাধীন কল্যাণপুরের যতীন প্রকাশ খীসার ছেলে। তিনি পুলিশের নায়েক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। পরে বিভিন্ন অভিযোগে তাকে পুলিশ বাহিনী থেকে বরখাস্ত করা হয়। এছাড়াও টারজান খীসা পাহাড়ি জনসংহতি সমিতির সভাপতি জোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমার (সন্তু লারমা) সাবেক নিরাপত্তারক্ষী। এছাড়াও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কর্মী ছিলেন বলেও জানায় দুদক।

 

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, টারজান খীসা বাংলাদেশ পুলিশের একজন সরকারি কর্মচারী হওয়া সত্ত্বেও অসৎ উদ্দেশ্যে নিজের প্রকৃত পরিচয় গোপন করে প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যবসায়ী পরিচয়ে বিভিন্ন ব্যাংকে হিসাব খোলেন। সাধারণ মানুষকে মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসার নামে বিভিন্ন ব্যক্তির নিকট হতে ৫ মাসে দ্বিগুণ লাভের প্রলোভন দেখিয়ে ২৩টি ব্যাংক হিসেবে আমানত গ্রহণপূর্বক ১৪ কোটি ৬৪ লাখ ৪২ হাজার ৪৫ টাকার লেনদেন করে তা স্থানান্তর, হস্তান্তর ও রুপান্তর করে দ-বিধির ৪২০/১৬৮ ধারা তৎসহ মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪(২) ও ৪(৩) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

 

বিষয়টি নিশ্চিত করে মামলার বাদী দুদকের সহকরী পরিচালক নুরুল ইসলাম বলেন, ‘কমিশনের নির্দেশে পুলিশের সাবেক সদস্য টারজান খীসার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। টারজান খীসা জাল জালিয়াতির মাধ্যমে ইসলামি ব্যাংকের তিনটি, ডাচ বাংলা ব্যাংকের ১৭টি, আইএফআইসি ব্যাংকের দুইটি ও ব্র্যাক ব্যাংকের একটি একাউন্টে এসব টাকা লেনদেন করেন। সরকারি কর্মচারী হয়ে নিজেকে ব্যবসায়ী পরিচয় দিয়েই এসব একাউন্ট খোলেন। যা আইন বর্হিভূত।’

 

এর আগে গতকাল  দৈনিক পূর্বকোণে ‘গ্রাহকের ১৫ কোটি নিয়ে লাপাত্তা সন্তু লারমার সাবেক গানম্যান’ শিরোনামে অনুসন্ধানের সূত্র ধরে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

পূর্বকোণ/পিআর 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট