চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪

সর্বশেষ:

স্মার্ট চট্টগ্রাম গঠনে জেলা প্রশাসনের ১১ উদ্যোগ

ইফতেখারুল ইসলাম

৭ মে, ২০২৩ | ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ

স্মার্ট চট্টগ্রাম বিনির্মাণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ১১ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। উদ্যোগসমূহ হল জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কর্মশালা আয়োজন, সকল সরকারি দপ্তরে ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা নিযুক্তকরণ, জেলা ওয়েবপোর্টালে ‘স্মার্ট চট্টগ্রাম’ নামে ডেডিকেটেড কর্নার চালুকরণ, স্মার্ট চট্টগ্রাম বেস্ট আইডিয়া এওয়ার্ড প্রতিযোগিতার আয়োজন, স্মার্ট চট্টগ্রাম সিটিজেন ক্লাব গঠন, স্মার্ট চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস এম্বেসেডর ক্লাব গঠন, ফ্রিলেন্স ক্লাব গঠন, ফ্রি ওয়াইফাই জোন চালুকরণ। সকল বিদ্যালয়ে রোবোটিক্স ক্লাব স্থাপন, জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক লিফলেট/পাম্পলেট বিতরণ কার্যক্রম, প্রাপ্ত আইডিয়া/প্রকল্পসমূহ নিয়ে স্মার্ট চট্টগ্রাম শোকেসিং ও উৎসব আয়োজন।
সম্প্রতি চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাধারণ সভায় স্মার্ট বাংলাদেশ ও স্মার্ট চট্টগ্রাম বাস্তবায়ন শীর্ষক উপস্থাপনায় তার উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে ঘোষণা করেছিলেন রুপকল্প ২০২১ : ডিজিটাল বাংলাদেশ। এ লক্ষ্য অর্জিত হওয়ার পর আমাদের পরবর্তী গন্তব্য রুপকল্প ২০৪১। স্মার্ট বাংলাদেশ, যা অর্জনের মাধ্যমে আমরা জ্ঞানভিত্তিক, উদ্ভাবনী অন্তর্ভুক্তিমূলক উচ্চ আয়ের দেশে পরিণত হব। স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের ক্ষেত্রসমূহ তুলে ধরে তিনি বলেন, স্মার্ট সরকারি সেবা, স্মার্ট ভ‚মি ব্যবস্থাপনা, স্মার্ট কৃষি সেবা, স্মার্ট বিচার ও আইনশৃঙ্খলা, স্মার্ট সামাজিক সুরক্ষা, স্মার্ট স্বাস্থ্যসেবা, স্মার্ট শিক্ষা ব্যবস্থা, স্মার্ট সমাজ ও অর্থনীতি, এবং স্মার্ট পরিবহন ব্যবস্থা।
এরমধ্যে স্মার্ট সিটির জন্য প্রযোজ্য বিষগুলো তুলে ধরে তিনি বলেন, এরমধ্যে থাকতে হবে স্মার্ট পার্কিং, পর্যটকদের ভ্রমণে সহায়তা করার জন্য ডিজিটাল অ্যাপ, ডিজিটাল টান্সপোর্ট অপ্টিমাইজেশান সিস্টেম, সিসিটিভি কাভারেজসহ স্মার্ট নিরাপত্তাব্যবস্থা, স্মার্ট বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং অপ্টিমাইজেশান, স্মার্ট ভিড় শনাক্তকরণ এবং ব্যবস্থাপনা, ইন্টেলিজেন্ট দুর্যোগ সতর্কীকরণ সিস্টেম, ফায়ার এলার্মের জন্য জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ, বিনামূল্যে ওয়াইফাই, স্মার্ট ওয়াটার নেটওয়ার্ক মনিটরিং, বৈদ্যুতিক যানবাহন শেয়ারিং এবং চার্জিং স্টেশন, স্মার্ট ভিলেজের জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগগুলোর মধ্যে থাকবে ট্যাপড ওয়াটার এর ব্যবহার, পুকুর খনন করা, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করা, হেলথ কার্ড প্রদান, স্মার্ট ব্লু বুক, সোলার, প্রপার ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট, শতভাগ স্যানিটেশন, প্রত্যেক বাড়ির নাম্বারিং করা, কমিউনিটি ক্লিনিক, স্মার্ট সিটিজেন কার্ড, বীমা, এনজিওদের সাথে সমন্বয়, সবুজায়ন, ল্যান্ড জোনিং, কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট, শতভাগ স্কুলিং, বাড়ির নাম্বার/হোল্ডিং নাম্বার দেয়া, সড়ক নং ব্লক সিস্টেম, সুইমিং পুল, কমিউনিটি সেন্টার, মিনি স্টেডিয়াম।
জেলা প্রশাসক বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশের প্রথম স্মার্ট জেলা হবে চট্টগ্রাম। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে স্মার্ট চট্টগ্রামের রোডম্যাপ প্রস্তুত করা হচ্ছে। জেলার মেট্রোপলিটন ও উপজেলা পর্যায়ের সকল ধরনের সরকারি, আধাসরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহ এবং সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভাসমূহের প্রত্যক্ষ ও গঠনমূলক অংশগ্রহণের মাধ্যমে স্মার্ট চট্টগ্রাম বাস্তবায়ন করা হবে।
এই লক্ষ্যে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হচ্ছে। প্রতি উপজেলায় ৩ জন, মহানগরে ৫ জনকে স্মার্ট চট্টগ্রাম বেস্ট আইডিয়া এওয়ার্ড দেয়া হবে। প্রথম পুরস্কার ৫০ হাজার, দ্বিতীয় পুরস্কার ৩০ হাজার, তৃতীয় পুরস্কার ২০ হাজার, চতুর্থ পুরস্কার ১৫ হাজার (মহানগরে), পঞ্চম পুরস্কার ১০ হাজার টাকা (মহানগরে), জেলাভিত্তিক প্রথম পুরস্কার ৫ লক্ষ, দ্বিতীয় পুরস্কার ৩ লক্ষ এবং তৃতীয় পুরস্কার ২ লক্ষ টাকা।

 

 

পূর্বকোণ/এ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট