চট্টগ্রাম শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪

সর্বশেষ:

দৈনিক পূর্বকোণ’র ৩৮ বছর পদার্পণে জমকালো আয়োজন

পূর্বকোণ এগিয়ে যাবে অনেক দূর

নিজস্ব প্রতিবেদক

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ

সকলের সম্মিলিত প্রয়াসে মুজিববর্ষে দেশসেরা আঞ্চলিক পত্রিকার স্বীকৃতি পেয়েছে দৈনিক পূর্বকোণ। শ্রেষ্ঠত্বে আত্মতুষ্ট হয়ে থেমে থাকার সুযোগ নেই। আরও এগিয়ে যেতে হবে। আরও এগিয়ে যাবে পূর্বকোণ। দৈনিক পূর্বকোণের ৩৮ বছরে পদার্পণ উপলক্ষে এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন দি পূর্বকোণ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও পূর্বকোণ প্রকাশক জসিম উদ্দিন চৌধুরী ও পূর্বকোণ সম্পাদক ডা. ম. রমিজউদ্দিন চৌধুরী।

 

বর্ষপূর্তি উপলক্ষে প্রতিবারের মতো এবারও প্রণোচ্ছ্বাসে মেতে ওঠে পূর্বকোণ পরিবার। কথামালা, সঙ্গীত পরিবেশন ও নেচে-গেয়ে আনন্দ-উচ্ছ্বলতায় মেতে ওঠে পূর্বকোণ পরিবারের সদস্যরা।

 

পূর্বকোণ লিমিটেডের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, চট্টগ্রামবাসীর ভালবাসায় দৈনিক পূর্বকোণ এতদূর এগিয়ে এসেছে। আগামীতে পূর্বকোণ আরও অনেক দূর এগিয়ে যাবে। এ সাফল্য কারো একার হাত ধরে আসেনি, দৈনিক পূর্বকোণের সাথে জড়িত সকলের আন্তরিকতা, নিষ্ঠা ও একাগ্রতায় এটি সম্ভব হয়েছে।’

 

তিনি বলেন, ‘আজকের এই দিনে আমার বাবা পূর্বকোণের প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ মোহাম্মদ ইউসুফ চৌধুরীকে স্মরণ করছি। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠাবাষির্কীর বিশেষ আয়োজন ‘দৃষ্টিজুড়ে চট্টগ্রামের’ সাথে জড়িত সকল সদস্যদের ধন্যবাদ জানাই। আগামীর দিনগুলো যেন আরও সুন্দর-সুগম হয়, এ কামনা করছি।’

 

দৈনিক পূর্বকোণ সম্পাদক ডা. ম. রমিজউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘প্রতি বছরের মতো এবারও বিশেষ থিম নিয়ে সাজানো হয়েছে পূর্বকোণের বর্ষপূর্তির বিশেষ সংখ্যা। চার মাস ধরে সকলের অক্লান্ত পরিশ্রমে আজ থেকে বের হচ্ছে বিশেষ সংখ্যাগুলো। এজন্য সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ।’

 

পূর্বকোণ সম্পাদক আরও বলেন, ‘সরকারের চলমান উন্নয়নের ছোঁয়া শহর-নগর ছাড়াও গ্রাম-গঞ্জেও যাতে সমান্তরালে ছড়িয়ে পড়ে, সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিয়েছে পূর্বকোণ। চট্টগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চল ঘুরে ঘুরে তুলে আনা হয়েছে এই জনপদের গৌরবোজ্জল ইতিহাস-ঐতিহ্য, সমস্যা, সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ। উন্নয়ন সমতায় যাতে সরকার ও প্রশাসন সঠিকভাবে নজর দিতে পারে, সেই চ্যালেঞ্জিং কাজটি করেছে পূর্বকোণ।’

 

তিনি বলেন, পূর্বকোণ চট্টগ্রামের কথা বলে। দেশ ও মানুষের কথা বলে। সেই দায়বদ্ধতা থেকেই এবার ‘দৃষ্টিজুড়ে চট্টগ্রাম’ শীর্ষক থিম বেইজড বিশেষ সংখ্যা প্রকাশিত করছে। এতে গ্রাম-বাংলার পথে-প্রান্তরের উন্নয়ন-উন্নয়নবঞ্চনার চিত্র তুলে ধরে। আশা করছি, এই বিশেষ সংখ্যা পাঠক, লেখক-গবেষকদের নিরাশ করবে না।

 

পূর্বকোণ প্রকাশক ও সম্পাদকের বক্তব্যের পর পরিবেশিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সংগীত পরিবেশন করে ব্যান্ড দল সফট টাচ্। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তিসা দেওয়ান পর পর ১৫টি গান করেন। চলো না ঘুরে আসি অজানাতে দিয়ে শুরু করেন তার পরিবেশনা। এরপর এই মুখরিত জীবনের চলার পথে, ময়ূরকণ্ঠী রাতেরও নীলে, মন শুধু মন ছুঁয়েছে। ভাষার মাস হিসেবে দেশের গান, রবীন্দ্র সংগীত গেয়ে পূর্বকোণ পরিবার মাতিয়ে তোলেন তিনি। বাদ দেননি পাহাড়ি অঞ্চলের লাল পাহাড়ের দেশে যাই ও আরও কয়েকটি গান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন দৈনিক পূর্বকোণের সিনিয়র সহ-সম্পাদক মিহরাজ রায়হান।

 

 

 

 

পূর্বকোণ/জেইউ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট