চট্টগ্রাম বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

সর্বশেষ:

২২ ডিসেম্বর, ২০২২ | ১২:৪৩ অপরাহ্ণ

‘বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গবেষণা সংস্কৃতি বাড়াতে হবে’

ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেছেন, ‘স্বাধীনতার ৫১ বছরে দেশের সর্বক্ষেত্রে আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। বৈশ্বিক অগ্রগতির সাথে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে ভাবতে হবে। ইউজিসি চায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে উচ্চশিক্ষায় গুণগত মানোন্নয়নে ঘটাতে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সেন্ট্রাল রিসার্চ ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা জরুরি। যাতে বিভিন্ন ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সংযোগ বাড়ানো যায়। প্রতিবছর আমরা কী পরিমাণ পিএইচডি ডিগ্রি প্রদান করতে পারছি সেটা দিয়েই কিন্তু আমাদের দেশের গবেষণা সংস্কৃতি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। এই দিকটাই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে মনযোগ বাড়াতে হবে। ইন্ডাস্ট্রির সাথে কোলাবোরেশান যত বেশি বাড়ানো যাবে, ততবেশি গবেষণা কার্যক্রমে গতি আসবে।’

 

তিনি গতকাল বুধবার সকাল ১১ টায় শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের মাল্টিপারপাস মিলনায়তনে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের উদ্যোগে এবং ইউজিসি-এর সহযোগিতায় ৬ষ্ঠ বারের মতো ‘পুরকৌশল বিষয়ের অগ্রগতি’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

 

অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের ছাড়া কোনো দেশের অগ্রগতি কল্পনা করা যায় না। সভ্যতার বিকাশে ইঞ্জিনিয়ারদের প্রত্যক্ষ ভূমিকা রয়েছে। আমাদের দেশের যত মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে, সবগুলোই ইঞ্জিনিয়ারদের নেতৃত্বে সম্ভব হয়েছে। একটি দেশের টেকসই উন্নয়ন ও পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের প্রত্যক্ষ সহযোগিতা ছাড়া সম্ভবপর নয়।

 

ওঈঅঈঊ-২০২২ এর কনফারেন্স চেয়ার ও পুরকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. আসিফুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পুরকৌশল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. মইনুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কনফারেন্স সেক্রেটারি ও পুরকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. বশির জিসান। পুরকৌশল বিভাগের প্রভাষক মায়শা কবির ও মো. আসিফুর রহমানের যৌথ সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন কনফারেন্সের কী-নোট স্পিকার ও আইআইটি, খড়গপুর-এর অধ্যাপক ড. অঞ্চলি পাল, কনফারেন্সের আমন্ত্রিত বক্তা ও ভারতের ওড়িশ্যার কেআইআইটি’র এপ্লায়েড সায়েন্সের অধ্যাপক ড. তারাশঙ্কর পাল এবং জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক শোভন শাহাবুদ্দিন রাজ। সমবেত জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে ৬ষ্ঠ এই আন্তর্জাতিক কনফারেন্সের শুরু হয়। পরে পুরকৌশল বিষয়ের বৈশ্বিক সর্বশেষ অগ্রগতি নিয়ে একটি প্রামাণ্যচিত্র উপস্থাপন করা হয়।

 

এবারের সম্মেলনে বাংলাদেশ, ভারত, জাপান ও যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচজন প্রধান বক্তা এবং ২০০ জনেরও বেশি শিক্ষাবিদ, গবেষক বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যোগ দিচ্ছেন। কনফারেন্সে মোট ১৫১টি গবেষণাপত্র উপস্থাপন, ১৬টি টেকনিক্যাল সেশন ও ৪টি কী-নোট সেশন রয়েছে। এই সম্মেলনের লক্ষ্য হলো বিশ্বব্যাপী পুরকৌশল বিষয়ের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নেতৃস্থানীয় একাডেমিশিয়ান, বিজ্ঞানী, গবেষক ও শিক্ষাবিদদের একত্রিতকরণ এবং নতুন-নতুন ধারণা ও জ্ঞান বিনিময়ের পাশাপাশি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সাম্প্রতিক উন্নয়ন ও অগ্রগতিগুলো তুলে ধরা। উক্ত সম্মেলন ছাত্র-ছাত্রী ও তরুণ গবেষণাকারীদের জন্য সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং-এর উপর নতুন এবং সা¤প্রতিক বিষয়গুলোর সাথে পরিচিত হওয়ার একটি অনন্য সুযোগ প্রদান করে; যা তাদের ক্যারিয়ার, নিজ-নিজ প্রতিষ্ঠান এবং সামগ্রিক সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং স¤প্রদায়কে এগিয়ে নিতে সাহায্য করবে।

 

এদিকে আজ ২২ ডিসেম্বর উক্ত কনফারেন্সের সমাপনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি থাকবেন এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়র এমিরেটাস অধ্যাপক ড. এম. শামীম জেড. বসুনিয়া। বিশেষ অতিথি থাকবেন চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এতে সভাপতিত্ব করবেন কনফারেন্সের সাইন্টিফিক ও টেকনিক্যাল কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. স্বপন কুমার পালিত।-বিজ্ঞপ্তি

 

পূর্বকোণ/আর

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট