চট্টগ্রাম রবিবার, ২১ এপ্রিল, ২০২৪

সাতকানিয়ায় যানজট সৃষ্টি করায় বাধা দেয়ার জের

চালক-হেলপারের পিটুনিতে দুই পুলিশ আহত, আটক ৩

সুকান্ত বিকাশ ধর , সাতকানিয়া

১৮ জুন, ২০১৯ | ২:৩২ পূর্বাহ্ণ

সাতকানিয়ায় মহাসড়কে যানজট সৃষ্টি করে যাত্রী উঠানামায় বাধা দেওয়ায় পুলিশ বক্সে ঢুকে ট্রাফিক পুলিশের দুই কনস্টেবলকে পুলিশের লাঠি দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেছে বাসের চালক ও হেলপাররা। এসময় ভাংচুর করা হয় বক্সের জানালার কাঁচ। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন, মুমিনুল হক (৩৯) ও নুরুল হক (৪০)। তারা বর্তমানে সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
গতকাল (সোমবার) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের কেরানীহাট বান্দরবান রাস্তার মাথা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপর কেরানীহাট মহাসড়কে ওই বাসের চালক বাস দিয়ে ব্যারিকেড সৃষ্টি করলে প্রায় ১৫ মিনিটের মত যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। এ ঘটনায় বাসের চালক ও হেলপারসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। অন্যদিকে, গতকাল রাতে সার্জেন্ট গোলাম হোসেন সবুজ বাদি হয়ে সাতকানিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
কেরানীহাট ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট গোলাম হোসেন সবুজ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গতকাল (সোমবার) সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে সাতকানিয়ার চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের কেরানীহাট বান্দরবান রাস্তার মাথা এলাকায় কক্সবাজার অভিমুখী হানিফ পরিবহনের একটি বাস (চট্টমেট্রো-ব-১১-১২৮৮) মহাসড়কে দাঁড়িয়ে যাত্রী উঠানামা করছিল। এ সময় মহাসড়কে চলাচলরত গাড়ির জট লাগতে দেখে কেরানীহাট ট্রাফিক পুলিশে কর্মরত কনস্টেবল মুমিনুল হক বাসটিতে লাঠি দিয়ে আঘাত করে স্থান ত্যাগ করতে বলে। এসময় বাসের হেলপার আক্তার হোসেন পুলিশ মুমিনুলকে গালাগাল করতে থাকে। খবর পেয়ে পুলিশ বক্সে বসা অপর কনস্টেবল নুরুল হক ঘটনাস্থলে গিয়ে হেলপারকে পুলিশ বক্সে নিয়ে আসে। পরে হেলপার আক্তার বক্সের দেওয়ালে মাথা টুকতে দেখে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। এর প্রতিবাদে চালক রুবেল বাসটি দিয়ে মহাসড়কে ব্যারিকেড নিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। এসময় মহাসড়কের উভয় পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়ে ১৫ মিনিটের মত যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। খবর পেয়ে সাতকানিয়া থানার ওসি মো. সফিউল কবীরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ব্যারিকেড সরিয়ে নিলে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। এর আগে ওই বাসের চালক-হেলপার এবং সোহাগ পরিবহনের একটি বাসের আরেকজন হেলপারসহ ৩ জন পুলিশ বক্সে প্রবেশ করে। এসময় দুই কনস্টেবল মুমিনুল ও নুরুল হক বক্সের মধ্যে বসা ছিলেন। পরে চালক-হেলপাররা বক্সে রক্ষিত পুলিশের লাঠি দিয়ে দুই কনস্টেবলকে বেধড়ক পিটুনি দেয় এবং বক্সের জানালার কাঁচ ভাংচুর করে। খবর পেয়ে সার্জেন্ট গোলাম হোসেন সবুজ সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যদের নিয়ে কেরানীহাটের নেজামুদ্দীন পেট্রোল পাম্প, পুলিশ বক্স ও বাস কাউন্টার এলাকা থেকে চালক-হেলপারসহ ৩ জনকে আটক করে সাতকানিয়া থানা পুলিশকে সোপর্দ করে। আটকরা হলো, চালক আনোয়ারা উপজেলার রায়পুর এলাকার আবুল কাশেম প্রকাশ আমির হোসেনের ছেলে মো. রুবেল (৩২), হেলপার চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীর মোজাফ্ফর আহমদের ছেলে আক্তার হোসেন (৩২) এবং ব্যারিকেড সৃষ্টির ইন্দনদাতা চন্দনাইশের আবুল কাশেমের ছেলে হারুনুর রশিদ (৫০)। ঘটনার কিছুক্ষণ পর ট্রাফিক পুলিশ বক্সে সাতকানিয়া থানার ওসি মো. সফিউল কবীর, কেরানীহাট ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর (টি.আই) মোখলেছুর রহমান ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি আরব আলী বাঁচাসহ শ্রমিক নেতৃবৃন্দদের নিয়ে একটি বৈঠকের আয়োজন করলেও ছেড়ে দেয়া হয়নি আটক চালক ও হেলপারকে।
এ ব্যাপারে শ্রমিক নেতা আরব আলী বাঁচা বলেন, ‘পুলিশের সাথে বাড়াবাড়ি হওয়ার কারণে বাসের হেলপারকে ধরে পুলিশ বক্সে নিয়ে আসে। পরে চালক ও হেলপারসহ ২-৩ জন মিলে বক্সে ঢুকে পুলিশকে মারধর করে’। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘পুলিশের সাথে বৈঠকে আমরা মিমাংসার কথা বলেছিলাম, অথচ পুলিশ আমাদের কথা শুনেনি। আপাতত আমাদের কোন কর্মসূচিও নেই’।
এ ব্যাপারে কেরানীহাট ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর (টি.আই) মোখলেছুর রহমান বলেন, ‘কেরানীহাট এলাকায় একটি বাস অহেতুক দাঁড়িয়ে থেকে যানজট সৃষ্টি করছিল। এসময় এক পুলিশ সদস্য বাসটিতে লাঠি দিয়ে আঘাত করে চলে যেতে বললে হেলপার তাকে গালমন্দ করে। পরে চালক ও ২ হেলপার বক্সে ঢুকে বক্সে থাকা লাঠি দিয়ে ২ পুলিশ কনস্টেবলকে ব্যাপক মারধর করে। বর্তমানে তারা সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এছাড়া শ্রমিক নেতাদের সাথে বৈঠকেও তারা চালক ও হেলপার অহেতুক এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে স্বীকার করেছেন’।
সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও.সি) মো. সফিউল কবীর বলেন, কেরানীহাটে যানজট নিরসন করতে গিয়ে ২ ট্রাফিক পুলিশ কনস্টেবলকে মারধর করেছে চালক ও হেলপাররা। এ ঘটনায় ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। ট্রাফিক সার্জেন্ট গোলাম হোসেন সবুজ বাদি হয়ে ৩ জনকে এজাহার নামীয় ও ৭/৮ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে গতকাল (সোমবার) রাতে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট