চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

১৪ জানুয়ারি, ২০২৩ | ১১:১৩ পূর্বাহ্ণ

‘বাবা আগুন বের হও’, সন্তানদের সেই ডাক পোড়াচ্ছে খোকনকে

নিজে বের হয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করলেও পারেননি; আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়েছেন দুই শিশু সন্তানসহ পাঁচ প্রিয়জন। আগুনে বেঁচে যাওয়া খোকন বসাক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। দুই শিশু সন্তানের ডাকে ঘুম ভাঙলে দেখেন ঘর জ্বলছে আগুনে। এরপর তাদেরসহ বাবা-মা ও স্ত্রীকে নিয়ে জড়ো হন বারান্দায়। সেখান থেকে বের হওয়ার পথটিতে তখন ভয়াবহ আগুনের লেলিহান শিখা। আগুনে পুড়ছে তখন অন্য কক্ষগুলোও। আর কোনো উপায় না দেখে বের হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন খোকন বসাক।

 

তার পিছুপিছু দুই সন্তান ও অন্যদের আসতে বলে খোকন আগুনের ভেতর দিয়ে দরজা পার হন। তবে আগুনের ভয়াবহতা এতটাই বেশি ছিল যে বারান্দায় থাকা বাকি পাঁচজন দরজার কাছে ভিড়তেই পারেননি। বাইরে থেকে নলকূপের পানি দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেও কূলিয়ে উঠতে পারেননি। পাগলের মত ডেকেছেন প্রতিবেশীদের। মধ্যরাতে তাদের সাড়া পেতেও লেগেছে কিছুটা সময়। ততক্ষণে চোখের সামনেই ঘরের বারান্দায় আগুনে পুড়তে দেখেছেন প্রিয়জনদের।-বিডিনিউজ

 

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে আগুন লাগার সময় ঘুমিয়ে ছিলেন রাঙ্গুনিয়ার পারুয়া গ্রামের সিএনজি অটোরিকশা চালক খোকন বসাক। দাদীর সঙ্গে অন্য কক্ষে ঘুমাচ্ছিলেন তার ১২ বছরের ছেলে সৌরভ ও পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে শয়ন্তী। হঠাৎ ‘বাবা আগুন, বের হও …‘ তাদের এমন চিৎকারে ঘুম ভাঙে খোকনের। এরপরই ঘর থেকে বের হওয়ার উপায় খুঁজছিলেন তিনি। পরে নিজে বের হতে পারলেও বাঁচাতে পারেননি আর কাউকে।

 

সেই থেকে সন্তানদের ডাক পোড়াচ্ছে তাকে। ঘুরে ফিরে কানে বাজছে তাদের কণ্ঠ, ‘বাবা আগুন’। ‘বাবা আগুন বের হও’, সন্তানদের সেই ডাক পোড়াচ্ছে খোকনকে অগ্নিদগ্ধ ৪২ বছর বয়সী খোকন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপডাতালের বার্ন ইউনিটের মেঝেতে আধশোয়া অবস্থায় আহাজারি করছিলেন এ নিয়ে। আফসোস করছিলেন নিজের দুই শিশু সন্তান, বাবা-মা ও স্ত্রীকে বাঁচাতে না পারায়। কেন তিনি তার দুই ছেলে মেয়েকে নিজে টেনে বের করলেন না। দুই সন্তানের ‘বাবা আগুন’ ডাক যেন তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে তাকে।

 

রাঙ্গুনিয়া উপজেলার পারুয়া ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডের মহাজনপাড়ার খোকন বসাকের বাড়িতে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে আগুন লেগে তার দুই ছেলেমেয়ে সপ্তম শ্রেণির সৌরভ বসাক (১২) ও প্রথম শ্রেণি পড়ুয়া শয়ন্তী বসাক (৫) ঘরের মধ্যেই মারা যান। তাদের সঙ্গে হারিয়েছেন পিতা কাঙাল বসাক (৭০), মা ললিতা বসাক (৬০) ও স্ত্রী লাকী বসাককে (৩২)।

পূর্বকোণ/আরএ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট