চট্টগ্রাম বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

সর্বশেষ:

২২ ডিসেম্বর, ২০২২ | ১২:৩৪ অপরাহ্ণ

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ

অপহৃতদের উদ্ধারে বাড়ানো হয়েছে গোয়েন্দা তৎপরতা

টেকনাফ থেকে অপহৃত ৮ বাংলাদেশিকে এখনো উদ্ধার করা যায়নি। অপহরণের পর ৩দিন পার হয়ে গেলেও তারা উদ্ধার না হওয়ায় স্বজনরা উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠায় দিন পার করছেন। বাহারছড়া ইউনিয়নের জাহাজপুরার পাহাড়ি এলাকা থেকে অপহৃত ওই আটজনের মধ্যে জেলে ছাড়া কলেজ ছাত্রও রয়েছেন।

 

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবদুল হালিম জানিয়েছেন, রবিবার ১৮ ডিসেম্বর বিকেলে বাহারছড়ার জাহাজপুরা পাহাড়ের পাশের একটি খালে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন ওই আটজন। এ সময় অস্ত্রের মুখে তাদের অপহরণ করে পাহাড়ের দিকে নিয়ে যায় মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা। অপহৃতদের উদ্ধারে বিশেষ টিমের পাশাপাশি নুতন করে করে গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। পুলিশের উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। অবশ্য অপহরণকারীরা রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী কিনা, এমন কিছু এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অপহরণের শিকার ব্যক্তিদের স্বজনদের মতে মুক্তিপণ দাবি করে ফোন করা ব্যক্তিদের সঙ্গে রোহিঙ্গাদের ভাষার মিল রয়েছে।

 

জাহাজপুরা গ্রামের হাবিব উল্লাহ বলেন, ‘অপহৃত আটজনের মধ্যে রয়েছে আমার দুই ভাই। অপহরণের পর আমার ভাই মোস্তফা ফোন করে জানিয়েছেন, মাছ ধরার সময় পাহাড় থেকে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা নেমে এসে আমাদের সবাইকে জিম্মি করে পাহাড়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এরপর থেকেই তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরে বিভিন্ন নাম্বার থেকে ফোন করে জনপ্রতি তিন লাখ টাকা চাওয়া হয়েছে’।

 

বুধবার ২১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭টায় বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খোকন সিকদার বলেন, ‘অপহৃতদের উদ্ধারে পুলিশের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। শখ করে মাছ ধরতে গিয়ে অপহরণের শিকার ৮ জন ৩ দিনেও উদ্ধার না হওয়ায় তাদের পরিবারগুলো চরম আতংকে রয়েছে’।

 

পূর্বকোণ/আর

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট