চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২২

২৬ অক্টোবর, ২০২২ | ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ

কক্সবাজার সংবাদদাতা

কক্সবাজারে পাহাড় কেটে মামলা খেলেন আ.লীগ নেতাসহ ২০ জন

কক্সবাজার সদর উপজেলার পিএমখালীতে দেড় কোটি ঘনফুট পাহাড় কাটার ঘটনায় ১৩ মামলার আসামি শীর্ষ পাহাড়খেকো ওবায়দুল করিমকে প্রধান করে ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর।

 

মঙ্গলবার (২৫ অক্টোবর) রাতে পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাইফুল ইসলাম বাদি হয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

 

মামলায় কক্সবাজার সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক ও জেলা পরিষদের সদস্য মাহমুদুল করিম মাদু, তার ভাই মামুন, ছনখোলার সুলতান আহমদ মেম্বারের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম, তোতকখালীর আমিন চেয়ারম্যানের ছেলে জোসেফ, তোতকখালীর সাবেক ইউপি সদস্য তাজমহল, হানিফ সিকদারের ছেলে কায়েস সিকদার, দক্ষিণ খুনিয়াপালংয়ের নুর আহমেদের ছেলে নুরুল কবির বাবুল, ছনখোলার ঘোনারপাড়ার মৃত আমির হোসেনের ছেলে লুৎফর রহমান, মৃত আবু তাহেরের ছেলে সোনা আলী, পরানিয়াপাড়ার সোনা মিয়ার পুত্র কাজল, নুরুল আলমের ছেলে মনিরুল ইসলাম মুন্না, খুরুশকুল লামাজিপাড়ার আবুল কাশেমের ছেলে নাছির উদ্দিন, উত্তর পরানিয়াপাড়ার আবু তালেব ভোট্টুর ছেলে মো. সোহেল, তোতকখালীর মৃত সোনা মিয়ার ছেলে সিরাজ, উত্তর পরানিয়াপাড়ার মোহাম্মদের ছেলে শাহজাহান, নয়াপাড়ার মাহমুদুল হকের ছেলে হারুন, ডিকপাড়ার জাফর আলমের ছেলে মোস্তাক আহমদ ও পরানিয়াপাড়ার গুরা মিয়ার ছেলে নুরুল আমিন ও নয়াপাড়ার সুলতান আহমদের ছেলে পিএমখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল কাদের আসামি করা হয়েছে।

 

আসামিদের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়নের তাজমহলের ঘোনা, ঘোনারপাড়া, ছনখোলা ও পশ্চিমপাড়া এলাকায় ওবায়দুল করিমের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ চক্র এক বছর ধরে আনুমানিক ১০ একর আয়তনের সরকারি একাধিক পাহাড় কেটে ডাম্প ট্রাক ভর্তি করে দেড় কোটি ঘনফুট বালি ও মাটি বিক্রির অভিযোগ আনা হয়।

 

এর আগে সরেজমিন একাধিকবার পরিদর্শন করে পাহাড় কাটার ঘটনাটি পরিবেশ বিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এনভায়রনমেন্ট পিপল, কক্সবাজার সচেতন নাগরিক আন্দোলন ও এক সাংবাদিক লিখিত-মৌখিক অভিযোগ করে সংশ্লিষ্ট দপ্তর এবং গণমাধ্যমের নজরে আনেন।

 

কক্সবাজার সচেতন নাগরিক আন্দোলনের সদস্য সচিব মোরশেদ আলম বলেন, প্রায় তিন মাস আগে পিএমখালীতে ভয়াবহ পাহাড় কাটার ঘটনায় ৯ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছিল। কিন্তু মামলায় চিহ্নিত কয়েকজন পাহাড়খেকোকে বাদ দেয়া হয়েছে।

 

পরিবেশ বিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এনভায়রনমেন্ট পিপলের প্রধান নির্বাহী রাশেদুল মজিদ বলেন, ‘পাহাড় কাটার মতো গুরুতর অপরাধের মামলাগুলোতে আসামি শাস্তি না পাওয়ায় পাহাড় কাটা বন্ধ হচ্ছে না। এক্ষেত্রে মামলা দায়েরে আসামি, স্বাক্ষী, অপরাধের ধরণ, ক্ষয়ক্ষতি, আলামত, আসামির সংশ্লিষ্টতা, ঘটনার পারিপার্শ্বিক অবস্থা, অভিযোগপত্র ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু অনেক সময় মামলার দূর্বল এজাহার ও অভিযোগপত্রের কারণে প্রকৃত অপরাধী পার পেয়ে যায়।’

 

মামলার বাদি পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাইফুল ইসলাম মামলা দায়েরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘মামলাটি পরিবেশ অধিদপ্তর তদন্ত করবে। তদন্তে সবকিছু চলে আসবে। যারা জড়িত তাদের কেউ বাঁচার সুযোগ নেই।’

পূর্বকোণ/পিআর/এএইচ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট