চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

১৬ মে, ২০১৯ | ২:৩৭ পূর্বাহ্ণ

মোবাইল-টিভির আশ্রয়ে নয়, মাঠঘাটে দৌড়ে বাড়ুক শিশুরা

দীর্ঘদিন ধরে আলোচনা চলছিল। তারই ফল হিসেবে মোবাইল, টেলিভিশনের আসক্তি থেকে শৈশব রক্ষায় নির্দেশিকা জারি করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। শিশুরা যাতে মাঠঘাটে খেলা করে বড় হয়, সেই পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ওই নির্দেশিকায়।
রাকিবুল হক
হু-র ওই নির্দেশিকা অনুযায়ী, এক বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের মোবাইল, টেলিভিশনে কার্টুন দেখা বা কম্পিউটারে ভিডিয়ো গেম্স খেলা উচিত নয়। শিশুর বয়স দুই থেকে চার বছরের মধ্যে হলে, মোবাইল, টেলিভিশনের পর্দায় সময় কাটানোর সীমা এক ঘণ্টা বেঁধে দেওয়া উচিত। এক ঘণ্টার কম হলে আরও ভাল। ওই নির্দেশিকা আরও বলছে, সব সময়ে প্র্যাম, বিছানা বা পরিজনেদের কোলে করে ঘোরানো ঠিক নয় শিশুদের। বাড়ির মেঝেতে খেলতে দেওয়া দরকার। তিন-চার বছরের শিশুদের অন্তত তিন ঘণ্টা মাঠঘাট, পার্কে ছুটে বেড়ানো জরুরি বলে মত হু-র বিশেষজ্ঞদের। শিশুদের পরিমাণ মতো ঘুম নিয়েও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ওই নির্দেশিকায়।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এই নির্দেশিকার তাৎপর্য ব্যাখ্যায় এক শিশুরোগ
চিকিৎসক জানান, মস্তিষ্কের বিকাশে শিশুর পাঁচ বছর পর্যন্ত বয়স খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই সময়ে যে অভ্যাসগুলি গড়ে ওঠে, তার প্রভাব দীর্ঘস্থায়ী। তাঁর কথায়, ‘‘অধিকাংশ ক্ষেত্রে বাবা-মা দু’জনেই কাজে বেরিয়ে যাচ্ছেন। বাড়িতে তাকে রাখার জন্য আয়া শিশুর সামনে মোবাইল বা টিভি চালিয়ে দিচ্ছেন! ৬-৭ মাস বয়স থেকে শিশুর মোবাইল নির্ভরতা তৈরি হয়েছে, এমন ঘটনাও পাওয়া গেছে। এ ধরনের শিশুদের মনঃসংযোগে সমস্যা দেখা দিচ্ছে।’’ শিশুদের খাওয়ানো নিয়ে অধিকাংশ মায়েরা অনুযোগ করেন। সমস্যার সমাধানে অনেকে সন্তানের সামনে মোবাইল অথবা টেলিভিশনে কার্টুন চালিয়ে দেন। চিকিৎসক বলেন, ‘‘বাবা-মা বোঝেনই না সন্তানের কতটা ক্ষতি হচ্ছে। মোবাইল দেখে ‘এ ফর অ্যাপেল’ শিখছে। তাতে শিশুর
সৃষ্টিশীলতা কমছে। মোবাইল, টিভিতে আসক্তি থেকে সামাজিক মেলামেশায় অভ্যস্ত হচ্ছে না। শিশু দেরিতে কথা বলতে শিখছে। ছোটরা যদি ঘরে হামাগুড়ি না দেয়, তা হলে হাঁটা শিখবে কী ভাবে?’’ ছোটবেলায় পরিশ্রম করার অভ্যাস তৈরি না হওয়ায় শিশুদের মধ্যে মোটাত্বের প্রবণতা বাড়ছে। যার জেরে বড় হয়ে টাইপ টু ডায়াবিটিস, হাইপারটেনশন, হার্টের সমস্যা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা।
আর এক পেডিয়াট্রিক সার্জন বলছেন, ‘‘যে বয়সে যত ওজন হওয়া উচিত, তার তুলনায় অনেক বেশি ওজনের বাচ্চা দেখি। সেখান থেকে বিভিন্ন রকম রোগের যোগসূত্র রয়েছে। ছোট ছোট শিশুরা পিঠে, গাঁটে, মাথা ব্যথার সমস্যা নিয়ে আসে। প্রাথমিক ভাবে মাথা ব্যথার সমস্যা অবজ্ঞা করা হলে, পরে তা মাইগ্রেনে পরিণত হতে পারে।’’ হু-র নির্দেশিকার সুরেই তিনি বলেন, ‘‘শিশুদের সাঁতার, দৌড়, ক্রিকেট, ফুটবলের মতো খেলায় যোগ দেওয়া উচিত। ছড়া বলা, গান করা, অন্য শিশুদের সঙ্গে মেশা খুব দরকার।’’
এক চক্ষু চিকিৎসক স্কুলে বোর্ড দেখতে পাচ্ছে না এমন এক শিশুকে পরীক্ষা করে দেখেছেন, তার চোখে সমস্যা নেই। সে গ্যাজেটে অনেক বেশি সময় কাটায়। মনঃসংযোগে যার প্রভাব পড়েছে। ফলে মনে হচ্ছে, ব্ল্যাকবোর্ড দেখতে পাচ্ছে না। আসল কারণ কিন্তু তা নয়।’’ খুব বেশি মোবাইল আসক্তি থেকে রোদে দেখতে অসুবিধা হয় বলেও জানিয়েছেন তিনি।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 344 People

মন্তব্য দিন :

সম্পর্কিত পোস্ট