চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

২১ নভেম্বর, ২০১৯ | ৩:৩০ পূর্বাহ্ন

ট্রিসকাইডেকাফোবিয়া

সত্যিই ১৩ অশুভ সংখ্যা?

কিছু কিছু সংখ্যা রয়েছে ‘অপয়া’ বলে অনেকে বিশ্বাস করেন। আর অশুভ লক্ষণগুলোর মধ্যে ১৩ সংখ্যাটি সবচেয়ে বেশি ভয়ের জায়গা দখল করে আছে। তাই ‘আনলাকি থার্টিন’ একটি বহুল আলোচিত বিষয়।

অনেকেই ১৩ নম্বর প্লটে বাড়ি করতে চান না। শেষে ১৩ সংখ্যাটি থাকলে সিমকার্ডও বাতিল করেন। ফ্ল্যাটের ১৩ তলায় বাসা কিনে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কেউ কেউ পূজাঅর্চনা করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

আসলে সত্যিই কি ১৩ সংখ্যাটি অশুভ? না কি কুসংস্কার?
নিউমেরোলজি বলছে, ১৩ মোটেই কোন অশুভ সংখ্যা নয়। ভারতীয় পুরাণ ও প্রাচীন শাস্ত্র একই কথা বলে। বরং ভারতীয় ঐতিহ্যে ১৩ একটি ‘লাকি’ সংখ্যা।

কীভাবে সংখ্যাটি ‘অপয়া’ হিসেবে পরিচিতি পেল, আসুন জানি সেই ইতিহাস।
ইতালির বিখ্যাত সুরকার জিওচিনো এনটোনিও রোশিনি বায়োগ্রাফি থেকে আনলাকি ১৩ সংখ্যার বিশদ বর্ণনা মেলে ১৮৬৯ সালে। শুধু তাই নয়, রোশিনি নিজেও অশুভ ১৩ তারিখের এক শুক্রবার মৃত্যু বরণ করেন। ফলে বিষয়টি আরও গুরুতর কালো সংখ্যা হিসেবে সকলের মনে প্রতিষ্ঠা পায়।
১৩ নিয়ে এই ভীতির নাম ‘ট্রিসকাইডেকাফোবিয়া’।
সেই সুবাদে চলুন একটা গল্প জেনে আসি। অনিন্দ্য সুন্দর মোহময় এক জ্যোৎস্নাস্নাত রাতে ১২ জন দেবতার নৈশ ভোজের আয়োজন চলছিল। রাতে খাবার টেবিলে একসাথে বসলেন সকলে। ঠিক তখনই বিনা আমন্ত্রণে সেই ভোজ সভায় উপস্থিত হলেন ১৩তম ব্যক্তি। সকলেই হতচকিত। কারণ সেই ১৩তম ব্যক্তি ছিলেন খারাপ কাজের দেবতা স্বয়ং লোকি।

অশুভের সূচনা হলো এর পরপরই। লোকি শুরু করেন যত অশান্তি। লোকির প্ররোচনায় শীত ও অন্ধকারের দৃষ্টিহীন দেবতা হোড ভালো কাজের দেবতা ব্লাডারকে হত্যা করে। সেদিন পুরো স্বর্গপুরীতে নেমে এসেছিল শোক। সেই থেকে ১৩তম জনের উপস্থিতি অর্থ পরের বছর আর কোনো মৃত্যু সংবাদ!
এভাবে সারা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ধর্মে ও সমাজ ব্যবস্থায় ১৩ সংখ্যাটি অপয়া হিসেবে পরিচিতি পায়। উন্নত-অনুন্নত অনেক দেশের
সংস্কৃতিতেও এর ব্যতিক্রম ঘটে না।

সংখ্যাটি শুভ না অশুভ?
– ১৩ সংখ্যাটিকে ভারতীয় সংখ্যাতত্ত্ব একটি মহাজাগতিক সংখ্যা বলে গণ্য করে।
– যেকোন মাসের ১৩ তারিখকে তন্ত্র ও অন্যান্য হিন্দু ধারা পবিত্র বলে মনে করে। এই দিনগুলোতে বিশেষ পূজা-পাঠের নির্দেশ অনেক শাস্ত্রেই রয়েছে।
– মাঘ মাসের ১৩ তারিখেই মহাশিবরাত্রি উদযাপিত হয়। এদিন হিন্দু ঐতিহ্যে সবচেয়ে পবিত্র দিনগুলোর মধ্যে অন্যতম।
– হিন্দু পঞ্জিকা অনুসারে ত্রয়োদশী দিনটি শিবের প্রতিই উৎসর্গীকৃত।
তাই ‘আনলাকি থার্টিন’র মিথকে ভুলে ১৩ সংখ্যাটিকে স্বাভাবিকভাবে গ্রহণ করুন। উপভোগ করুন এর মাহাত্ম্য। [সূত্র : পত্রপত্রিকা]

রাকিবুল হক

The Post Viewed By: 24 People

সম্পর্কিত পোস্ট