চট্টগ্রাম বুধবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৩১ অক্টোবর, ২০১৯ | ১০:২৩ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

মোফাজ্জলের সংগ্রহে মুক্তিযুদ্ধকালীন ৫০০ রেডিও

গত মঙ্গলবার রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে শুরু হয়েছে তিন দিনের রেডিও এশিয়া কনফারেন্স এন্ড রেডিও সং ফেস্টিভ্যাল। এশিয়া প্যাসিফিক ব্রডকাস্টিং ইউনিয়ন (এবিইউ) আয়োজিত উৎসবে বিভিন্ন ধরনের কয়েকশ রেডিও নিয়ে এসেছেন ‘রেডিওপ্রেমী’ মোফাজ্জল হোসনে।

মোফাজ্জল হোসেন। একজন পুরনো রেডিও সংগ্রাহক । মুক্তিযুদ্ধকালে ব্যবহৃত পাঁচ শতাধিক রেডিও রয়েছে তার সংগ্রহে। এর মধ্যে রয়েছে গ্রামোফোন, মাউথ স্পিকার, দেশি-বিদেশি ইলেকট্রনিক ট্রানজিস্টর।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিভিন্ন দেশ থেকে আসা অতিথি ও দর্শনার্থীরা ঘুরে ঘুরে মোফাজ্জলের রেডিওগুলো দেখছেন। অনেকে কলের গান বাজিয়েও শুনছেন। তার সংগৃহীত প্রতিটি রেডিওর রয়েছে একটি গল্প। সেসব গল্প ও সংগ্রহের ইতিবৃত্তও জেনে নিচ্ছেন অনেকেই।

রেডিও সংগ্রহ শুরুর গল্প প্রসঙ্গে মোফাজ্জল হোসেন সাংবাদিকদের জানান, ছোটবেলা থেকে তার আগ্রহ ছিল রেডিওর প্রতি। কারণ তার বাবা আবদুল ফারুক ছিলেন রেডিওর মেকানিক। মুক্তিযোদ্ধা ফারুক প্রতিদিন রেডিওতে শুনতেন দেশ-বিদেশের খবরাখবর। ১৯৮৫ সাল থেকে দেশের নানা প্রান্তে ঘুরে ঘুরে সংগ্রহ করেছেন রেডিও। ২০ বছর ধরে তিনি নিজের খরচে রক্ষণাবেক্ষণ করছেন সংগ্রহ করা এই রেডিওগুলো। সে জন্য মাসে শুধু ঘর ভাড়া বাবদই তাকে গুনতে হচ্ছে ২০ হাজার টাকা।

তিনি আরও জানান, রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা এবং পেশায় একজন ঘড়ির মেকানিক। পুরনো ও নষ্ট ঘড়ি মেরামত করে বিক্রির পর পাওয়া অর্থ দিয়ে রেডিও সংগ্রহ ও রক্ষণাবেক্ষণ করছেন তিনি। তার কাছে ১৯৩৬ সালে হল্যান্ডে তৈরি ফিলিপস রেডিও থেকে শুরু করে পাই, বিউলার, সিটিজেন, সনি, গ্রুন্ডিক, মারফি, জ্যামিথ, টেলিফোন ক্যান, বুশ কোম্পানিসহ নামীদামি সব ব্র্যান্ডের প্রায় এক হাজারেরও বেশি রেডিও রয়েছে।

আমি ছোটবেলায় বাবার দোকান থেকে একটু একটু করে এই রেডিওগুলো সংগ্রহ করা শুরু করি। পরে দেশের নানা প্রান্তে যাই রেডিও কিনতে। তখন রেডিওর দাম অনেক ছিল। কিন্তু তাও আমি থেমে যাইনি। আমি বেশি কিনেছি মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধারা যে রেডিওগুলো ব্যবহার করেছেন সেগুলো।

মোফাজ্জল জানান, রেডিও সংগ্রহ আমার নেশা হয়ে গেছে। অনেক সময় পকেটে টাকা থাকে না। মানুষের বাড়িতে কামলা দিয়া সেই টাকায়ও রেডিও কিনেছি। তার দাবি, নতুন প্রজন্ম আমার রেডিও নিয়ে গবেষণা করবে। রেডিওর ইতিহাস, স্বাধীনতাযুদ্ধের ইতিহাসে রেডিওর ভূমিকার বিষয়টি জানবে।

হতাশ কণ্ঠে রেডিও সংগ্রাহক মোফাজ্জল জানান, সবাই শুধু আশ্বাস দেয় কাজের কাজ কিছু করেনা। আমি চাই এই রেডিওগুলো সবার জন্য উন্মুক্ত করতে একটি স্থায়ী জাদুঘর করতে। কিন্তু টাকার অভাবে করা হয়না। সরকারি পর্যায় থেকে আশ্বাস পেলেও পাই না কোনো অর্থায়ন।

পূর্বকোণ-রাশেদ

The Post Viewed By: 44 People

সম্পর্কিত পোস্ট