চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

১৭ জানুয়ারি, ২০২০ | ২:৪৬ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

মানবতার ডাকে টেনিস কোর্টে তারকারা

কথাটা আগেই দিয়ে রেখে ছিলেন। এবার কথা রাখলেন রজার ফেদেরার। মানবতার ডাকে দিলেন আনুষ্ঠানিক সাড়া। তার সঙ্গে দাতব্য ম্যাচ খেলে কথা রাখলেন রাফায়েল নাদাল, সেরেনা উইলিয়ামস ও ক্যারোলিন ওজনিয়াকিও। দুটি দলে ভাগ হয়ে চ্যারিটি ম্যাচ খেললেন আরো বেশ কয়েকজন টেনিস তারকা। টিম সেরেনা উইলিয়ামসের হয়ে কোর্ট দাপিয়ে বেড়ালেন ডোমিনিক থিয়েম, পেত্রা কেভিতোভা, নোভাক জোকোভিচ ও রাফায়েল নাদাল। টিম ক্যারোলিন ওজনিয়াকির হয়ে টেনিস র‌্যাকেট হাতে লড়লেন কোকো গাউফ, আলেক্সান্ডার জভেরেভ, স্তেফানোস সিতসিপাস ও নাওমি ওসাকা। সবাই মূলত খেলতে এসেছেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেন। মূল লড়াই শুরুর আগে তারা পরিচয় দিলেন মহানুভবতার। সবাই মিলে হাসি আর আনন্দে প্রদর্শনী ম্যাচ খেলে বুশফায়ার আপিলের জন্য তুললেন ৪ মিলিয়নের অধিক অস্ট্রেলিয়ান ডলার। র‌্যালি ফর রিলিফ স্লোগান নিয়ে প্রদর্শনী ম্যাচে নিক কিরগিওস এস সার্ভিসের জন্য একাই তোলেন ১৬শ অস্ট্রেলিয়ান ডলার (৯৫৪ পাউন্ড)। যৌথভাবে ৩৯ গ্র্যান্ড স্ল্যাম ট্রফির মালিক রজার ফেদেরার ও রাফায়েল নাদাল দুজনে মিলে দান করেছেন দুই লাখ ৫০ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার (১ লাখ ৩২ হাজার ২৮৫ পাউন্ড)। ওজনিয়াকির দলের হয়ে স্বাগতিক খেলোয়াড় কিরগিওস খেলেন একটি একক ম্যাচ। তবে তিনি ৭-৬ (৭-৪) গেমে হেরে যান সেরেনার দলের সুইস মহাতারকা ফেদেরারের কাছে। তবে সবমিলিয়ে অবশ্য বিজয়ী হয় সেরেনার দলই। তারকাদের টেনিস লড়াই উপভোগ করতে গ্যালারিতে উপস্থিত ছিলেন দমকল বাহিনীর সদস্যরা। গ্যালারির দর্শকরা দাঁড়িয়ে তুমুল করতালি দিয়ে তাদেরকে অভিবাদন জানান।

দমকল বাহিনীর একজন সদস্য তো নাদালের সঙ্গে জুটি বেঁধে দ্বৈত ম্যাচ খেলতে কোর্টে নেমে যান। ২৩ গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী মার্কিন তারকা সেরেনা জানান, তিনি কন্যা অলিম্পিয়াকে সঙ্গে নিয়ে এসেছেন দমকল কর্মীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করাতে। সেরেনা ও কেভিতোভার মতো বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় ঘোষণা দিয়েছেন, অস্ট্রেলিয়া সফরে পাওয়া প্রতিটি এস সার্ভিসের জন্য তারা দান করবেন। কিন্তু নাদাল ও ফেদেরারকে কানাডিয়ান খেলোয়াড় ব্রাইডেন শনুর অভিহিত করেছেন স্বার্থপর টেনিস সুপারস্টার হিসেবে।

কেননা তারা মেলবোর্নের বাজে প্লেয়িং কন্ডিশনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেননি। অস্ট্রেলিয়ার দাবানল এখনো পর্যন্ত কেড়ে নিয়েছে কমপক্ষে ২৮ জনের প্রাণ। ধ্বংস হয়েছে ১০ মিলিয়ন হেক্টর বনভূমি। অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে জীব-বৈচিত্র্যের।

The Post Viewed By: 29 People

সম্পর্কিত পোস্ট