চট্টগ্রাম শনিবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২০

১৪ জানুয়ারী, ২০২০ | ৩:১৫ পূর্বাহ্ন

স্পোর্টস ডেস্ক

কাল রাজশাহীর বিরুদ্ধে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে খেলবে চট্টগ্রাম

ফাইনালে খুলনা টাইগার্স

এলিমিনেটরে জিতে বঙ্গবন্ধু বিপিএলের প্রথম আসরে ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা টিকিয়ে রেখেছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। প্লে-অফের প্রথম ম্যাচে গতকাল ঢাকা প্লাটুন ৮ উইকেটে ১৪৪ রান সংগ্রহ করে। জবাব দিতে নেমে চট্টগ্রাম ১৪ বল হাতে রেখে ৭ উইকেটে অনায়াস জয় কুড়িয়ে নেয়। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল আগামীকাল সন্ধ্যায় দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে খেলবে রাজশাহী রয়েলসের বিরুদ্ধে। রাজশাহী রয়েলস গতকাল প্রথম কোয়ালিফায়ারে হার মানে খুলনা টাইগার্সের বিরুদ্ধে। খুলনা টাইগার্স দলের জয়ে অন্যতম অবদান ছিল পাকিস্তানের বোলার মোহাম্মদ আমিরের ১৭ রানে ৬ উইকেট দখল। বিপিএলের ইতিহাসে মোহাম্মদ আমিরের গতকালের বোলিংই রেকর্ড সেরা। ম্যাচে আগে ব্যাট করে খুলনা আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান নাজমুল হোসেন শান্ত’র ৭৮ রানের সুবাদে ৩ উইকেটে ১৫৮ রান সংগ্রহ করে। জবাব দিতে নেমে এক পর্যায়ে ৩৩ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যাওয়া রাজশাহীর স্কোর ভদ্রস্ত হয় শোয়েব মালিকের ৫০ বলে ৮০ রানের সুবাদে। শেষ পর্যন্ত রাজশাহীর ইনিংস শেষ হয় ১৩১ রানে। ২৭ রানে জিতে ফাইনাল নিশ্চিত করে মুশফিকুর রহিমের খুলনা টাইগার্স। দিনের প্রথম ম্যাচে চট্টগ্রামের সামনে লক্ষ্য খুব বড় ছিল না, ১৪৫ রানের। ক্রিস গেইলের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নেমে ছোটখাটো এক ঝড় তুলেন জিয়াউর রহমান। ১২ বলে ৩ চার আর ২ ছক্কায় ২৫ রান করে মেহেদী হাসানের শিকার হন তিনি। এরপর ইমরুল কায়েসও অনেকটা সময় সঙ্গ দিয়েছেন গেইলকে। ২২ বলে ১ চার আর ৩ ছক্কায় ৩২ রান করে শাদাব খানের বলে আউট হন ইমরুল। গেইলের ধীরগতির ইনিংসটি থেমেছে ১৪ সেলাই নিয়ে খেলতে নামা মাশরাফির এক হাতের ক্যাচে।

শাদাবকে সুইপ করতে গিয়ে শর্ট ফাইন লেগে ঢাকা অধিনায়কের তালুবন্দী হন ৪৯ বলে ৩৮ রান করা গেইল। তবে পরের সময়টায় কোনোরকম বোকামি না করে দেখেশুনে দলকে এগিয়ে নিয়েছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আর চ্যাডউইক ওয়ালটন। জয় যখন প্রায় নিশ্চিত, তখন আর দেরি করেননি মাহমুদউল্লাহ। ১৮তম ওভারে শাদাব খানকে টানা দুই ছক্কা হাঁকিয়েই আনন্দে মেতেছেন চট্টগ্রাম দলপতি। ১৪ বলে ৪ ছক্কায় তিনি অপরাজিত থাকেন ৩৪ রানে। ১০ বলে ১২ রানে সঙ্গে ছিলেন ওয়ালটন। এর আগে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় বড় পুঁজি পাওয়া হয়নি ঢাকা প্লাটুনের। লেগস্পিনার শাদাব খানের ফিফটিতে ভর করে ৮ উইকেটে ১৪৪ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় মাশরাফি বিন মতুর্জার দল। শাদাব ৬৪ রান করেন। এছাড়া ওপেনার মুমিনুল হক ৩১ ও পেরেরা ২৫ রান করেন। ম্যাচের আরেকটি উল্লেখযোগ্য দিক ছিল হাতে বাম হাতে ১৪টি সেলাই নিয়েও মাশরাফি মুর্তজার মুল একাদশে মাঠে নেমে পড়া। ব্যাট হাতে কোন রান করতে না পারলেও দুর্দান্ত ফিল্ডিং করেন তিনি, ক্যাচও নেন একটি। এছাড়া পুরো ৪ ওভার বল করে ৩৩ রানে উইকেটশুন্য ছিলেন। তার এই অদম্য মানসিকতা প্রশংসা কুড়ায় সকলের। চট্টগ্রামের পক্ষে বল হাতে ৩টি উইকেট নিয়েছেন রায়াদ এমরিট। এছাড়া রুবেল হোসেন ও নাসুম আহমেদের ঝুলিতে জমা পড়েছে দুটি করে উইকেট।

The Post Viewed By: 57 People

সম্পর্কিত পোস্ট