চট্টগ্রাম সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

১৭ মে, ২০১৯ | ২:৪৮ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

বাংলাদেশের অধরা যত ‘ফাইনাল’

একটি ম্যাচ ভেসে গেছে বৃষ্টিতে, তবে বাকি তিনটি ম্যাচে হেসেখেলে জয় তুলে নিয়ে অপরাজিত দল হিসেবেই আয়ারল্যান্ডে চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে খেলবে বাংলাদেশ। আজ ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ উইন্ডিজ, এই সিরিজের দুইবারের দেখায় যাদের বিপক্ষে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল পেয়েছে সহজ জয়। ক্যারিবীয়দের হারানোর ধারা অব্যাহত রেখে টাইগাররা কি পারবে আরও একটি জয় তুলে নিতে? এটি বাংলাদেশের সপ্তম ফাইনাল। এর আগে ছয়টি টুর্নামেন্ট বা ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে উঠলেও বাংলাদেশ জিততে পারেনি একটি ফাইনালও। তার চেয়েও বড় কথা, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই হারতে হয়েছে জয়ের খুব কাছাকাছি পৌঁছে। স্বভাবতই তাই শঙ্কা জাগছে- দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাংলাদেশের এবারো স্বপ্নভঙ্গ হয় কি না!
ত্রিদেশীয় সিরিজ, ২০০৯: স্বাগতিকদের ভূমিকায় থাকা বাংলাদেশ এই সিরিজে আতিথেয়তা করেছিল শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে। সেবারই প্রথম কোনো ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল খেলেছিল বাংলাদেশ। ৬ রানে লঙ্কানদের ৫ উইকেটের পতন ঘটিয়ে প্রথম ফাইনালেই বাজিমাত করার সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছিল। তবে ম্যাচের শেষদিকে র”বেল হোসেনের বোলিংয়ে মুত্তিয়া মুরালিধরনের তা-ব শ্রীলঙ্কাকে ২ উইকেটে জিতিয়ে দেয় মোহাম্মদ আশরাফুলের নেতৃত্বাধীন টাইগারদের বিপক্ষে। বাংলাদেশের ফাইনাল-দুঃস্বপ্নের সে-ই শুর”।
এশিয়া কাপ, ২০১২: এশিয়া কাপের সেই আসরে বাংলাদেশ ছিল স্বাগতিকের ভূমিকায়। ভারত ও শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে বাংলাদেশ জায়গা করে নেয় ফাইনালে। পাকিস্তানের ২৩৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে জয়ের খুব কাছেই পৌঁছে গিয়েছিল মুশফিকুর রহিমের দল। তবে শেষ পর্যন্ত ২ রানের পরাজয় বরণ করে নিতে হয়। খুব কাছে গিয়ে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের সুযোগ হারানোর বেদনায় সেদিন অঝোর ধারায় কেঁদেছিলেন ক্রিকেটাররা, যা এখনো দেশের ক্রিকেটের ইতিহাসের অন্যতম বেদনাদায়ক ঘটনা।
এশিয়া কাপ, ২০১৬: সেবারও এশিয়া কাপের আয়োজক ছিল বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তানের মত দলকে হারিয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল নিশ্চিত করে ফাইনাল। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সেই ফাইনালে অবশ্য বাংলাদেশ প্রতিপক্ষ ভারতের কাছে পাত্তা পায়নি। ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে ঘরের মাঠে হজম করতে হয় ৮ উইকেটের পরাজয়।
ত্রিদেশীয় সিরিজ, ২০১৮ : এ যেন ২০১২ ত্রিদেশীয় সিরিজের পুনরাবৃত্তি। বাংলাদেশ ফাইনালে উঠে শ্রীলঙ্কাকে একটি ম্যাচে হারিয়ে, লঙ্কানরা আবার একটি ম্যাচে হেরে বসে জিম্বাবুয়ের কাছে। ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে মাত্র ২২১ রানে আটকে প্রথম ফাইনাল জয়ের মোক্ষম সুযোগও এসেছিল সামনে। কিন্তু ৭৯ রানের বড় ব্যবধানে হেরে গিয়ে আরও একবার ব্যর্থতার ঢেউয়ে পর্যবসিত হয় টাইগাররা।
নিদাহাস ট্রফি, ২০১৮: বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম স্মরণীয় টুর্নামেন্ট বা ত্রিদেশীয় সিরিজ এটি। স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে দুইবার হারিয়ে বাংলাদেশ নিশ্চিত করে ফাইনাল। দু’টি ম্যাচই উত্তাপ ছড়িয়েছিল মাঠ থেকে শুর” করে গ্যালারি কিংবা অনলাইন জগৎ পর্যন্ত। ফাইনালে বাংলাদেশের সামনে ছিল ভারত, যে দলে ছিলেন না বিরাট কোহল ও মহেন্দ্র সিং ধোনির মত সিনিয়র খেলোয়াড়রা। রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন দল টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সেই ফাইনালে বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেওয়া ১৬৭ রান তাড়া করতে নামে। সৌম্য সরকারের করা শেষ ওভারে প্রায় জিতেই গিয়েছিল টাইগাররা। তবে শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে কাংক্ষিত ৫ রানের দেখা পেয়ে যান দীনেশ কার্তিক। ফলে বাংলাদেশ হারে ৪ উইকেটের ব্যবধানে।
এশিয়া কাপ, ২০১৮: একই বছর আরেক ফাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে আবারো ভারতকেই পায় বাংলাদেশ। মাত্র ২২২ রানের পূঁজি নিয়েও ওয়ানডে ফরম্যাটের ফাইনালে ভারতকে কোণঠাসা করে ফেলেছিল বাংলাদেশের বোলিং লাইনআপ। তবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের করা ইনিংসের শেষ বলে ভারত তুলে নেয় ৩ উইকেটের জয়।
‘৭’ সংখ্যাকে বলা হয় সৌভাগ্যের নম্বর। বাংলাদেশ দাঁড়িয়ে আছে নিজেদের সপ্তম ফাইনালের সামনে। অতীত ইতিহাসে স্বস্তির সংবাদ না থাকায় ‘ফাইনাল’ থেকে বাংলাদেশের প্রেরণা খুঁজে নেওয়ার সুযোগ নেই। তবে চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজে টাইগারদের যেমন পারফরম্যান্স, তাতে তো উইন্ডিজের চেয়ে বাংলাদেশই বেশি ফেভারিট। মাশরাফি-সাকিবরা কি পারবেন ফাইনালের ফাঁড়া কাটাতে? সপ্তম ফাইনাল সত্যিকার অর্থেই ‘লাকি সেভেন’ হয়ে উঠবে তো!

শেয়ার করুন