চট্টগ্রাম শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০

৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৬:৪২ অপরাহ্ন

ক্রীড়া প্রতিবেদক

২৫০ টাকার কোচ এনে দিলো ৩ স্বর্ণ

নেপালে অনুষ্ঠিত এসএ গেমসের কারাতেতে বাংলাদেশ জিতেছে ৩টি সোনা। পদক পেয়ে বাংলাদেশের মুখ রক্ষা করেছেন তিন কারাতে খেলোয়াড় মোহাম্মদ আল আমিন, মারজান আক্তার ও হোমায়রা আক্তার। দেশের মুখ উজ্জ্বল করা এ তিন খেলোয়াড়ই আলোটা কেড়ে নিলেও পর্দার আড়ালের নায়ক জাপানি প্রধান উপদেষ্টা কোচ তেসুরো কিতামুরা। বাংলাদেশপ্রেমী এই কোচই কারাতের উপহার দিয়েছেন সোনাঝরা দিন।

সাফল্যের গল্পের আড়ালে লুকিয়ে আছে একটি বিস্ময়কর গল্পও। সোনাজয়ীদের তৈরি করা প্রধান উপদেষ্টা কোচ কিতামুরার দৈনিক সম্মানী মাত্র ২৫০ টাকা। ১৯৮৫ সালে প্রথমবারের মতো জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) মাধ্যমে বাংলাদেশে আসেন কিতামুরা। এরপরে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মেয়াদে বাংলাদেশে থাকার সুবাদে এই দেশ-ই যেন হয়ে উঠেছে তাঁর ঘরবাড়ি। এখন তিন মাস পর পর নিজ দেশে ফিরে কয়েকদিনের ছুটি কাটিয়ে আবার  ফেরেন বাংলাদেশে। কারাতে কোচিং করানোর পাশাপাশি চাকরি করছেন একটি জাপানি কোম্পানিতে।

বাংলাদেশের সঙ্গে কিতামুরার সখ্যতা ৩৪ বছর ধরে। এই সময়ে বাংলাদেশের জল-বাতাসের সঙ্গে গড়ে উঠেছে গভীর সম্পর্ক। ভালো রপ্ত করে নিয়েছেন বাংলা ভাষাটাও। তাঁর কণ্ঠেও বাংলাদেশ প্রেম, ‘এখন এটাই আমার প্রথম বাড়ি। আমি এখানকার মানুষ ও পারিবারিক বন্ধন পছন্দ করি। এখানকার মানুষেরা হৃদয়বান।’

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশনের সঙ্গে কিতামুরার কোনো আনুষ্ঠানিক চুক্তি নেই। তবে সবসময় কাতার ফেডারেশনের সঙ্গে যোগাযোগ থাকে তাঁর। গেমসের আগে কিতামুরাকে পেয়ে প্রধান উপদেষ্টা কোচ করে তাঁর হাতেই তুলে দেয়া হয় দলের দায়িত্ব। বিনিময়ে মাত্র ২৫০ টাকা পেয়েছেন দৈনিক ভিত্তিতে। সম্মানীর অঙ্ক নিয়ে ভাবেননি কিতামুরা, ‘গেমসের জন্য প্রতিদিন ২৫০ টাকা বরাদ্দ ছিল। এটা নিয়ে আমি মোটেও ভাবিনি। তবে ভবিষ্যতে আমার সঙ্গে চুক্তি করতে হলে দিতে হবে ভালো সম্মানী।’

বাংলাদেশ দলের সঙ্গে কাজ করা কিতামুরার সম্মানীর অঙ্কটা নিশ্চিত করেছেন কারাতে ফেডারেশনের সহ-সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন, ‘বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি কোচের জন্য যে ২৫০ টাকা বরাদ্দ ছিল, তাঁর জন্যও সে একই নিয়ম। এর বাইরে তাঁর সঙ্গে আনুষ্ঠানিক কোনো চুক্তি নেই আমাদের। ভালো সম্পর্ক থাকায় তিনি আমাদের সঙ্গে কাজ করছেন। তবে আমাদের ভবিষ্যতে তাঁর সঙ্গে চুক্তি করার ইচ্ছে আছে।’

এবারের ১৯ সোনার এসএ গেমসে কারাতেতে লড়াই হয়েছে। এর ১০টিই পেয়েছে স্বাগতিক দেশ নেপাল। পাকিস্তানের ঝুলিতে ৬টি সোনা। বাকি ৩টি জিতেছে বাংলাদেশ। লাল-সবুজের দল ৩ রুপা ও ১২টি ব্রোঞ্জও জিতেছে। এর আগে ২০১০ ঢাকা এসএ গেমসে ৪টি সোনা জেতে জাতীয় কারাতে দল।

পূর্বকোণ/রাশেদ

The Post Viewed By: 113 People

সম্পর্কিত পোস্ট