চট্টগ্রাম রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২২ নভেম্বর, ২০১৯ | ১:৩০ পূর্বাহ্ন

স্পোর্টস ডেস্ক

চাপ নেই, খেলায় মনোযোগ

বাংলাদেশের ভাগ্য বদলাতে মুমিনুলের মন্ত্র

ইডেনে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার দিবারাত্রির টেস্ট ম্যাচকে ঘিরে কলকাতায় চলছে উৎসব। কিন্তু মাঠের বাইরের কোনো চাপ মাথায় নিচ্ছেন না বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। নিজেদের খেলায় মনোযোগ বাংলাদেশের। প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ ভারত। ইডেনে দুই দলের ম্যাচটি শুরু হবে শুক্রবার। উপমহাদেশে এটি প্রথম গোলাপি বলে টেস্ট। ঐতিহ্যবাহী ইডেনে দুই দলের প্রথম দিবারাত্রির টেস্ট ম্যাচকে ঘিরে কলকাতায় চলছে উৎসব। ভারতের প্রথম দিবারাত্রির টেস্ট হওয়ায় ইডেন থাকবে হাউসফুল। এছাড়া ম্যাচের আগে-পরে এবং মাঝে রয়েছে একাধিক প্রোগ্রাম। এমনিতেই সিরিজে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। এর ওপরে প্রথমবারের মতো গোলাপি বলে খেলতে নামার অদৃশ্য চাপ রয়েছে। সঙ্গে ইডেনের ফুলহাউস গ্যালারি আর উৎসব। সব মিলে যে উন্মাদনা ছড়িয়েছে, তা কিছুটা হলেও চাপ তৈরি করছে খেলোয়াড়দের ওপর। বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক অবশ্য বলছেন, তাদের ওপর কোনো চাপ নেই। মাঠের বাইরের বিষয়গুলো মাঠে প্রভাবও ফেলবে না।’ ম্যাচের আগের দিন মুমিনুল বলেছেন, ‘আমার কাছে কোনোভাবে মনে হয় না এসব প্রভাব ফেলবে। কারণ পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে চিন্তা করলে এসব চিন্তা আসা উচিত না।

আপনার কাজ আপনি ঠিকমতো করবেন, আমার কাজ আমি করব। যে যার কাজটি ঠিকমতো করতে হবে। আমার কাছে মনে হয় পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে বিষয়গুলো মাথায় ঢোকার সুযোগ নেই।’ ইন্দোরে প্রথম টেস্ট বাংলাদেশ ম্যাচ হেরেছে তিন দিনে। ইডেনে কি একই ব্যর্থতার পুনরাবৃত্তি হবে নাকি বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়াবে? ব্যর্থতা ঝেরে সামনে তাকিয়ে বাংলাদেশ। মুমিনুল চান ইন্দোরের ভুল পুনরায় না করতে, ‘আগে কী হয়েছে, ভালো না খারাপ- সেটা কোনো সময় চিন্তা করার সুযোগ থাকে না। খারাপ হলে সেখান থেকে শিক্ষা নিয়ে সামনে কাজ করতে হয়। আমিও সেভাবে চিন্তা করি। শেষ ম্যাচে যেসব ভুল হয়েছে সেখান থেকে শিক্ষা নিয়ে ইডেনে সেগুলো শুধরানোর কাজ করব।’ গোলাপি বল আরও বেশি আঁটসাঁট টেকনিকের দাবি করে বলে মনে করেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। মুমিনুল হক এর সঙ্গে যোগ করলেন শট নির্বাচন, ধৈর্য ও প্রতিটি বলে শতভাগ মনোযোগ। বাংলাদেশ অধিনায়কের বিশ্বাস, ভাগ্য বদল করতে এই ব্যাপারগুলো ঠিকঠাক থাকলেই হবে। প্রথম টেস্টে চোয়ালবদ্ধ দৃঢ়তা দেখাতে পারেননি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। মাটি কামড়ে পড়ে থেকে দলকে এগিয়ে নেওয়ার মানসিকতা দেখা যায়নি প্রায় কারোর মাঝে। দল হেরেছিল ইনিংস ও ১৩০ রানে।

গোলাপি বল আর ইডেন গার্ডেন্সের উইকেট বাংলাদেশের আরেকটি বিব্রতকর হারের আভাস দিচ্ছে। তবে খেলা শুরুর আগেই নিজেদের পিছিয়ে রাখতে রাজি নন মুমিনুল। ‘আমার মনে হয়, প্রতিটি বলে শতভাগ মনোযোগী থাকতে হবে। কিছু কিছু শট সিলেকশন নিয়ে আমাদের দুর্ভাবনা আছে। এই ব্যাপারে আমাদের আরও মনোযোগী হতে হবে। আমাদের মানসিকভাবে আরও বেশি প্রস্তুত থাকতে হবে। ওদের তিন জন খুব ভালো পেসার আছে, তাদের সামলাতে আমাদেও ধৈর্য ধরতে হবে।’ উমেশ যাদব, ইশান্ত শর্মা ও মোহাম্মদ শামিকে ফ্লাড লাইটের আলোয় সামলানো হতে পারে আরও বেশি কঠিন। এই চ্যালেঞ্জকে নিজেদের সামর্থ্য দেখানোর সুযোগ হিসেবে দেখতে চান বাংলাদেশ অধিনায়ক। ‘ফ্লাড লাইটে খেলার চ্যালেঞ্জ আছে। আবার ওদের বোলারদের খেলারও চ্যালেঞ্জ আছে। আমার মনে হয়, এই সব চ্যালেঞ্জ ইতিবাচকভাবে নেওয়াই ভালো। আমরা সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি। ভারতীয় বোলারদের খেলা অবশ্যই চ্যালেঞ্জ। তিন জন বিশ্ব মানের পেসারের বিপক্ষে খেলছেন, এটা শুধু আমাদের জন্য না সব দলের জন্যই চ্যালেঞ্জিং।’

The Post Viewed By: 32 People

সম্পর্কিত পোস্ট