চট্টগ্রাম রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২২ অক্টোবর, ২০১৯ | ১:১৭ am

স্পোর্টস ডেস্ক

সাঁতারে অপ্রীতিকর ঘটনা, কোচের পদত্যাগ

দুই মাসেরও কম সময়ের মধ্যে এসএ গেমসে লড়বেন সাঁতারুরা। এরই মাঝে ঘটে গেছে অপ্রীতিকর ঘটনা। জুনিয়র সাঁতারুদের শাস্তি ভোগ করতে দেখে সরে গেছেন সাঁতারের মূল কোচ তাকেও ইনোকি। ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে চলে যাওয়ার পর ফেইসবুক স্ট্যাটাসে জানিয়েছেন আসল কারণ। গত রোববার ইনোকির তত্ত্বাবধানে সৈয়দ নজরুল ইসলাম সুইমিং কমপ্লেক্সে সিনিয়র জাতীয় দলের অনুশীলন চলছিল। সে সময় জুনিয়র জাতীয় দলও (ট্যালেন্ট হান্ট দল) ছিল সেখানে। এক সময়ে জাপানিজ কোচ দেখেন, নিয়ম ভেঙে মোবাইল ফোন ব্যবহার করায় জুনিয়র জাতীয় দলের কোচ ও কর্মকর্তারা গরমের মধ্যে শারীরিক অনুশীলনের শাস্তি দিচ্ছেন সাঁতারুদের। শাস্তি ভোগের এক পর্যায়ে শরিফা আক্তার মিম নামের এক সাঁতারু অজ্ঞান হয়ে যান। ১০ মিনিটের মতো তিনি রোদের মধ্যে একাই পড়েছিলেন ফ্লোরে। ইনোকি কোচদের জিজ্ঞেস করেন, মেয়েটা ঠিক আছে কি না। তারা হাসতে হাসতে জানান, অভিনয় করছে, কিছু হয়নি! ইনোকি কোচদের বলেন, মিমের কাছে যেতে। বলার ২/৩ মিনিট পরে কোচরা গিয়ে তাকে ছায়ায় নিয়ে যান। এই সময়ে ইনোকি বারবার বলার পরও এম্বুলেন্সে খবর দেননি জুনিয়র কোচরা। পরে ভ্যানে করে কোথায় নিয়ে যাওয়া হয় মিমকে। সেদিনই বিকালে পদত্যাগ করে ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে যান ইনোকি।

এই ব্যাপারে সাঁতার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এমবি সাইফ জানান ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে চলে গেছেন জাপানি কোচ। ‘তার যাওয়ার সময় আমি উপস্থিত ছিলাম। আমরা কথা বলার অনেক চেষ্টা করেছি। সে আমাদের সাথে কোনো কথা বলনি।

ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে চলে গেছে।’ ‘সাঁতারুরা গোপনে মোবাইল রাখতো। যে কারণে ওদের শাস্তি দিয়েছিল। সেটা নিয়েই ইনোকি মূলত প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।’ বিশ্ব সাঁতারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিনার কাছে অভিযোগ জানাবেন বলে ফেইসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন ইনোকি। ৫ কর্ম দিবস সময় দিয়ে এরই মধ্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে সাঁতার ফেডারেশন।

The Post Viewed By: 133 People

সম্পর্কিত পোস্ট